X
সোমবার, ২৮ নভেম্বর ২০২২
১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৯

ছদ্মবেশে থেকেও রেহাই পাচ্ছে না পলাতক আসামিরা

রিয়াদ তালুকদার
২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ২৩:৫০আপডেট : ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৪:৩৯

অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডের কারণে মামলার প্রেক্ষিতে বিভিন্ন মেয়াদের সাজা কিংবা যাবজ্জীবন কারাদণ্ড থেকে বাঁচতে অনেকে আসামি পলাতক থেকে বিভিন্ন ছদ্মবেশ ধারণ করছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নজরদারি বাড়ানোর কারণে দণ্ডাদেশ পাওয়া এসব পলাতক আসামিরা এখন আর রেহাই পাচ্ছে না। যে ছদ্মবেশেই থাকুক না কেন, এমনকি ভোটার আইডিতে নাম পরিবর্তন করেও গ্রেফতার এড়াতে পারছে না তারা। সম্প্রতি দেশের বিভিন্ন জায়গায় পলাতক আসামিদের গ্রেফতারের পর এসব তথ্য জানাচ্ছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বিভিন্ন স্তরের কর্মকর্তারা।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনী বলছে, বিভিন্ন ঘটনা অনুসন্ধান করতে গিয়ে অনেক ধরনের চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে হয় এবং নানা ধরনের প্রতিবন্ধকতা তো রয়েছেই। ২০০৮ সালের আগে যারা বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডে জড়িত ছিল এবং যাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে তাদের বিষয়ে আমাদের ডাটাবেজে কোনও তথ্য নেই। এটির জন্য সরাসরি গোয়েন্দা তথ্য সংগ্রহ করতে হয়। এছাড়া ঘটনাগুলো ১৫ থেকে ২০ বছর আগের হওয়ায় মানুষের চেহারারও পরিবর্তন হয়। অনেক বিষয় মাথায় রেখেই তদন্তে এগোতে হয়। এ কারণে অপরাধীকে শনাক্ত করতে দীর্ঘ সময় লেগে যায়।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তারা বলছেন, ঘটনার পর অপরাধীরা অন্য এলাকায় চলে যায়। সেখানে গিয়ে দীর্ঘদিন বসবাস করছে। এমনকি সেখানে তারা বিয়েও করছে। আগের পরিচয় গোপন রেখে তারা ওই এলাকায় থেকে যায়। অসাধু কর্মকর্তাদের সহায়তায় জাতীয় পরিচয়পত্র তৈরি করছে তারা। পরিবর্তন করছে নাম-ঠিকানা। যোগাযোগ রাখছে না পরিবারের সদস্যদের সঙ্গেও।

যাবজ্জীবন কারাদণ্ড থেকে বাঁচতে অনেকেই ৩০-৩৫ বছর পলাতক থাকছে। এরচেয়ে কম মেয়াদে দণ্ডাদেশ পাওয়া পলাতক আসামিদেরও সম্প্রতি গ্রেফতার করতে সক্ষম হচ্ছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। বিভিন্ন ছদ্মবেশ ধারণ করেও তারা গ্রেফতার এড়াতে পারছে না।

সম্প্রতি র‍্যাবের অভিযানে জুলেখা (১৯) হত্যা মামলার মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি সিরাজুল (৩৯) ১৯ বছর পর, ইদ্রিস হত্যা মামলার মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি নজরুল ইসলাম (৪২) ৭ বছর পর, আজাহার হত্যা মামলার মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি কাউছার ৩১ বছর পর, নিপা ও তার ৩ বছরের মেয়ে জ্যোতি হত্যা মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি জাকির হোসেন (৪৭) ১২ বছর পর, আম্বিয়া হত্যা মামলার ২১ বছরের পলাতক মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি আলম (৪০), সামিনা হত্যা মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি রহিম ও রোকেয়া ১৭ বছর পর চাঁদপুর থেকে, ২০১৪ সালের রমনা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি মাহবুবুর রহমান রানা হত্যাকাণ্ডের পলাতক আসামি গ্রেফতার করা হয়।

র‍্যাব-৩ এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল আরিফ মহিউদ্দিন আহমেদ বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, যখনই বিভিন্ন তদন্তে আমরা হত্যাকাণ্ডসহ নানা অপরাধে জড়িত অভিযোগে পলাতক আসামিদের তথ্য পাই গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে আমরা তাদের ওপর নজর রাখি। সব বিষয়ে তদন্ত করে যখন তার পরিচয় সম্পর্কে নিশ্চিত হতে পারি তখনই তাদেরকে আইনের আওতায় নিয়ে আসি। সাম্প্রতিক সময় এ ধরনের বেশ কয়েকটি ঘটনায় র্যাবের সাফল্য রয়েছে। পালিয়ে থাকা বিভিন্ন আসামিদের আগের অবস্থা এবং বর্তমান অবস্থা পর্যালোচনা করে চেহারা, পরিচয় এবং বিভিন্ন ঘটনায় সংশ্লিষ্টতার প্রমাণ পাওয়ার পরেই তাদেরকে আইন আওতায় নিয়ে আসছি।

র‍্যাব-৪ এর অধিনায়ক মোজাম্মেল হক বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, র‍্যাব যেকোনও জায়গায় অভিযান পরিচালনা করতে পারে। গোয়েন্দা তথ্য পেলে সে অনুযায়ী অভিযান পরিচালনা করা হয়ে থাকে। অপরাধী যদি একবার অপরাধের জালে জড়িয়ে যায়, তার মধ্যে ওই ধরনের অ্যাডভেঞ্জার কাজ করে। গ্রেফতার হবার পর অপরাধ স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দিও দিয়েছে অনেক আসামি।

/এমএস/
নৌ শ্রমিকদের কর্মবিরতিতে অচল খুলনা ও নওয়াপাড়া নদী বন্দর
নৌ শ্রমিকদের কর্মবিরতিতে অচল খুলনা ও নওয়াপাড়া নদী বন্দর
সচিবদের যেসব নির্দেশনা দিলেন প্রধানমন্ত্রী
সচিবদের যেসব নির্দেশনা দিলেন প্রধানমন্ত্রী
মেয়র হানিফের জীবন ও কর্ম অনুসরণের আহ্বান রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর
মেয়র হানিফের জীবন ও কর্ম অনুসরণের আহ্বান রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর
চাকরি ছাড়ছেন ডিএনসিসির পাঁচ ভেটেরিনারি কর্মকর্তাই!
চাকরি ছাড়ছেন ডিএনসিসির পাঁচ ভেটেরিনারি কর্মকর্তাই!
সর্বাধিক পঠিত
সরকারি কর্মচারীদের সম্পদের আলাদা হিসাব দিতে হবে না
সরকারি কর্মচারীদের সম্পদের আলাদা হিসাব দিতে হবে না
সুইজারল্যান্ডকে বিশ্বকাপে কখনও হারাতে পারেনি ব্রাজিল
সুইজারল্যান্ডকে বিশ্বকাপে কখনও হারাতে পারেনি ব্রাজিল
প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগের ফল প্রকাশ সোমবার
প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগের ফল প্রকাশ সোমবার
ভারতকে বাদ দিয়ে এ অঞ্চলের দেশগুলোর সঙ্গে বৈঠক চীনের
ভারতকে বাদ দিয়ে এ অঞ্চলের দেশগুলোর সঙ্গে বৈঠক চীনের
বেলজিয়ামকে হারিয়ে দিলো মরক্কো
বেলজিয়ামকে হারিয়ে দিলো মরক্কো