মাদক কারবারি ইশতিয়াকের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৯:৪২, নভেম্বর ১১, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৯:৪৫, নভেম্বর ১১, ২০১৯

ইশতিয়াকজ্ঞাত আয়-বহির্ভূত সম্পদ অর্জন ও নোটিশ পাওয়ার পরও সম্পদ বিবরণী দাখিল না করায় শীর্ষ মাদক কারবারি মো. ইশতিয়াক ও তার স্ত্রী পাখির বিরুদ্ধে আলাদা মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। সোমবার (১১ নভেম্বর) মামলা দু’টি দায়ের করা হয় বলে দুদকের উপ-পরিচালক (জনসংযোগ) প্রণব কুমার ভট্টাচার্য্য জানান।

দু’টি মামলার বাদীই দুদক প্রধান কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মো. সাঈদুজ্জামান। দুদকের সমন্বিত জেলা কার্যালয় ঢাকা-১-এ মামলা দু’টি দায়ের করা হয়। মামলায় ইশতিয়াক ও পাখির স্থায়ী ঠিকানা আশুলিয়া মধ্যপাড়ার দরগাপাড় গাজীরচটের আরফিন ভিলা উল্লেখ করা হয়েছে।

ইশতিয়াকের বিরুদ্ধে দায়ের হওয়া মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, ‘দুদক আইন, ২০০৪’-এর ২৬ (১) ধারায় সম্পদ বিবরণী নোটিশ জারি করলেও ইশতিয়াক সম্পদ বিবরণী দাখিল করেননি। এর মধ্য দিয়ে দুর্নীতি দমন কমিশন আইন, ২০০৪ এর ২৬ (২) ধারায় শাস্তিযোগ্য অপরাধ করেছেন তিনি। এছাড়া জ্ঞাত আয়-বর্হিভূত টাকায় (২৭ লাখ ৪০০ টাকায়) নিজ নামে জমি কিনে বাইপাইল মৌজার ৪ শতাংশ ভূমি। এর ওপর ৬ তলা বিশিষ্ট ভবন করেছেন। এছাড়া ৪ দশমিক ৭০ শতাংশ ভুমির ওপর আরও একটি একতলা বিশিষ্ট একটি ভবনের মালিক হয়েছেন। এর বাইরে ৮ দশমিক ২৮৩ শতাংশ জমির ওপর ৭ তলাবিশিষ্ট আরও ১টি ভবনেরও মালিক তিনি।
পাখির বিরুদ্ধে দায়ের হওয়া মামলার এজাহারে বলা হয়, দুদক আইন, ২০০৪ এর ২৬(১) ধারায় সম্পদ বিবরণী চেয়ে দুদক নোটিশ জারি করলেও সম্পদ বিবরণী দাখিল করেননি তিনি। জ্ঞাত আয়-বর্হিভূত অবৈধ টাকায় (২৮ লাখ ১ হাজার ৯৬৪ টাকা) বাইপাইল মৌজার ৪ শতাংশ ভূমি ও তার ওপর ৬ তলাবিশিষ্ট ভবন করেছেন। দিয়াখালী মৌজার ৮ দশমিক ২৮৩ শতাংশ জমির ওপর তার রয়েছে ৭ তলা বিশিষ্ট ১টি ভবন।

প্রসঙ্গত, গত ২৩ জুলাই মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের তালিকাভুক্ত মাদক কারবারি ইশতিয়াক ও তার স্ত্রীর পাখিকে সম্পদ বিবরণী চেয়ে নোটিশ পাঠায় দুদক। পরিবহন ব্যবসার আড়ালে মাদক কারবার পরিচালনা করায় ইশতিয়াকের বিরুদ্ধে রাজধানীর মোহাম্মদপুর থানায় মাদক ও হত্যাসহ ১৫টি মামলা আছে। পুলিশের খাতায় ‘মোস্ট ওয়ান্টেড’ আসামি ইশতিয়াক।

/ডিএস/এমএনএইচ/

লাইভ

টপ