জাতিসংঘ শিশু অধিকার সনদের ৩০ বছর উদযাপন

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ০৫:৫৫, নভেম্বর ১৮, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ০৬:৪৯, নভেম্বর ১৮, ২০১৯

single pic template-1শিশুবান্ধব নানা প্রকাশনার মোড়ক উন্মোচন ও আলোচনা পর্বের মাধ্যমে জাতিসংঘ শিশু অধিকার সনদের ত্রিশ বছর পূর্তি উদযাপন করেছে বেসরকারি সংস্থা সেভ দ্য চিলড্রেন ইন বাংলাদেশ। রবিবার (১৭ নভেম্বর) রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে এ আয়োজন করা হয়।

জাতিসংঘের শিশু অধিকার সনদের অনুচ্ছেদগুলো নিয়ে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় এবং বাংলাদেশ শিশু একাডেমির সঙ্গে সমন্বিত উদ্যোগে একটি শিশুবান্ধব পোস্টার প্রকাশ করেছে সেভ দ্য চিলড্রেন। পোস্টারটির উদ্বোধন করেন শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী। এ সময় তিনি বলেন, ‘নতুন বই বিতরণ, ব্রেইল পদ্ধতির বই প্রকাশ ইত্যাদি নানা উদ্যোগ সরকার গ্রহণ করেছে। জাতিসংঘ শিশু অধিকার সনদে বর্ণিত সব অধিকার আমরা নিশ্চিত করতে চাই। আমাদের প্রচেষ্টার ধারাবাহিকতায় তা অর্জিত হবে বলে আশা করছি।’

অনুষ্ঠানে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে শিশুর শারীরিক ও মানসিক বিকাশ, শিক্ষা ও খেলাধুলার উপযুক্ত পরিবেশ নিশ্চিত করতে হবে।’

শিশু প্রতিনিধি ন্যাশনাল চিলড্রেন টাস্কফোর্সের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক জাহারা তুস মেহের ঐক্য সংলাপ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন। তিনি বলেন, ‘শিশুদের সুরক্ষা ও অধিকার রক্ষায় সরকার সচেষ্ট। ভবিষ্যতেও এসব উদ্যোগ অব্যাহত থাকবে এই প্রত্যাশা করছি।’

অনুষ্ঠানে প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সেভ দ্য চিলড্রেনের চাইল্ড রাইটস গভর্ন্যান্স ও চাইল্ড প্রোটেকশন সেক্টরের পরিচালক আবদুল্লাহ আল মামুন। ১৯৯০ সালে বাংলাদেশ সরকার জাতিসংঘ শিশু অধিকার সনদ অনুস্বাক্ষর করার পর এখন পর্যন্ত শিশু অধিকার বাস্তবায়নে  অগ্রগতি ও ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার কথা তুলে ধরেন তিনি। এ সময় তিনি জানান, নবজাতক ও মাতৃমৃত্যুর হার কমিয়ে আনতে উল্লেখযোগ্য সাফল্য অর্জন করেছে বাংলাদেশ।

পাশাপাশি অক্টোবর মাসে সারা দেশ থেকে শিশুদের অংশগ্রহণে একটি সেলফি ভিডিও প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছিল সেভ দ্য চিলড্রেন। ‘আমার দেশ আমার দায়িত্ব’ শীর্ষক এ আয়োজনে শিশুরা তাদের ধারণকৃত সেলফি ভিডিওতে জানায় কেমন বাংলাদেশ দেখতে চায় তারা এবং সে লক্ষ্য পূরণে তারা কী দায়িত্ব পালন করবে। বাল্যবিবাহ, শিশু নির্যাতন, দুর্নীতি, শিক্ষা ও স্বাস্থ্যসেবা উন্নয়নে কাজ করবে বলেও অঙ্গীকার করে শিশুরা। এ সময় প্রতিযোগিতার সেরা দশটি ভিডিও প্রদর্শিত হয়।

 

/এসও/এমএএ/

লাইভ

টপ