মশক নিধনে ডিএনসিসির পরিচ্ছন্নতা অভিযান উদ্বোধন

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ০০:৫৭, নভেম্বর ২২, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ০১:০২, নভেম্বর ২২, ২০১৯





‘মশক নিধনে পরিচ্ছন্নতা অভিযান’ কার্যক্রমের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে কথা বলছেন মেয়র আতিকুল ইসলাম‘মশক নিধনে পরিচ্ছন্নতা অভিযান’—কার্যক্রমের উদ্বোধন করেছেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম। বৃহস্পতিবার (২১ নভেম্বর) বেলা ১১টায় ডিএনসিসির মোহাম্মদপুর ইকবাল রোড মাঠে এ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন তিনি। শুকনো মৌসুমে কিউলেক্স মশার প্রকোপ বাড়ার আশঙ্কায় এ অভিযান পরিচালনা করা হবে।


অভিযানের আওতায় আগামী ২৪ নভেম্বর থেকে ডিএনসিসির সব (৫৪টি) ওয়ার্ডে ১০ দিনব্যাপী কিউলেক্স মশার ৬২৬টি প্রজননস্থলে (হটস্পট) পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম ও মশার লার্ভা ধ্বংস করা হবে। এছাড়া ডিএনসিসির আওতাধীন এলাকার সব কচুরিপানা অপসারণ করা হবে।
ডিএনসিসি সূত্র জানায়, ইতোপূর্বে পরিচালিত এক সমীক্ষায় ডিএনসিসি এলাকায় ৬২৬টি কিউলেক্স মশার হটস্পট পাওয়া গেছে। অভিযানে এসব স্থানে ওষুধ প্রয়োগ করা হবে।
উদ্বোধন অনুষ্ঠানে মেয়র বলেন, ‘এডিস মশা নিয়ন্ত্রণে যে চিরুনি অভিযান পরিচালনা করা হয়, এরই ধারাবাহিকতায় কিউলেক্স মশা নিধনে এ অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। কীটতত্ত্ববিদদের পরামর্শে মশক নিধনে ইতোমধ্যে বেশকিছু আধুনিক যন্ত্রপাতি ক্রয় করা হয়েছে। আমরা ২০টি মিক্সড ব্লোয়ার যন্ত্র এনেছি, যার সাহায্যে কাভার্ড ড্রেনগুলোর ভিতরে মশার ডিম ও লার্ভা নিধনের কীটনাশক (লার্ভিসাইড) সহজে স্প্রে করা যাবে। এছাড়া অল্প সময়ে বেশি এলাকায় পূর্ণাঙ্গ মশা মারার কীটনাশক (এডাল্ডিসাইড) ছিটানোর জন্য দুইটি ভেহিকেল মাউন্টেড ফগার মেশিন আমদানি করা হয়েছে। আরও তিনটি আমদানি করা হবে। এর ফলে মশক নিধন কার্যক্রমে ডিএনসিসির গতি বৃদ্ধি পাবে।’
এ সময় যেখানে সেখানে ময়লা-আবর্জনা না ফেলতে নগরবাসীর প্রতি আহ্বান জানান আতিকুল ইসলাম। তিনি বলেন, ‘এডিস মশা বাসা-বাড়ির আশপাশে জমে থাকা পানিতে বংশ বিস্তার করে। আর কিউলেক্স মশা বাড়ির সামনের ড্রেনে, ডোবা-নালার ময়লা পানিতে বংশ বিস্তার করে। তাই কিউলেক্স মশামুক্ত করতে হলে ডোবা-নালাগুলো পরিষ্কার রাখতে হবে।’
অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন—প্যানেল মেয়র আলেয়া সারোয়ার ডেইজী, ওয়ার্ড কাউন্সিলর নজরুল ইসলাম রতন, ডিএনসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আবদুল হাই, সচিব রবীন্দ্র শ্রী বড়ুয়া, প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোমিনুর রহমান মামুন, প্রধান প্রকৌশলী ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সাঈদ আহমেদ, প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা কমোডর এম মঞ্জুর হোসেন প্রমুখ।

/এসএস/আইএ/

লাইভ

টপ