ছাত্রীকে অপহরণ মামলায় শিক্ষক কারাগারে, পরিবারের দাবি হয়রানি

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ০১:৫১, ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৭:৪৬, ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০২০

শামীমের মা ও স্ত্রীর সংবাদ সম্মেলনরাজধানীর শনির আখড়া বর্ণমালা স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষক আশরাফ উদ্দিন শামীম এক ছাত্রীর পরিবারের দায়ের করা অপহরণ মামলায় কারাগারে আছেন। তবে ওই শিক্ষকের পরিবারের দাবি, মিথ্যা অপহরণ মামলা দিয়ে হয়রানি করা হচ্ছে। মঙ্গলবার (১৮ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১১টায় রাজধানীর সেগুনবাগিচায় বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন মিলনায়তনে শিক্ষক শামীমের মা শামসুন্নাহার বেগম ও তার স্ত্রী সংবাদ সম্মেলনে এই দাবি করেছেন।

শামসুন্নাহার লিখিত বক্তব্যে বলেন, ‘আমরা দনিয়া নাছির উদ্দিন রোড, কদমতলীর ভাড়া বাড়িতে থাকি। আমার ছেলে আশরাফ উদ্দিন শামীম শনির আখড়া বর্ণমালা স্কুল অ্যান্ড কলেজের ফিন্যান্স বিভাগের শিক্ষক। সে স্থানীয় মো. জলিলের মেয়ে জাকিয়া সুলতানা হৃদিকে প্রাইভেট পড়াতো। জাকিয়া সুলতানা আমার ছেলেকে ভালোবাসে বলে দাবি করে। আমার ছেলে বিবাহিত জানালেও মেয়েটি তার মায়ের সহযোগিতায় বিভিন্নভাবে হয়রানি করতে থাকে। এভাবে কয়েকদিন পার হওয়ার পর শামীম হৃদিকে প্রাইভেট পড়ানো বন্ধ করে দেয়। তখন হৃদি ও তার মা শামীমের ওপর ক্ষিপ্ত হয়।’

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, গত ১৯ জানুয়ারি বিকালে হৃদি শামীমকে ফোন করে বলে তার বিয়ে ঠিক হয়েছে। তাকে বিয়ে থেকে রক্ষা করার জন্য শামীমকে অনুরোধ করে, না হয় সে আত্মহত্যা করবে বলে হুমকি দেয়। এসব ঘটনা হৃদির মা বিলকিস বেগম, মামা আমিনুল ইসলাম ও খালাতো ভাই হৃদয়ের সাজানো বলে সংবাদ সম্মেলনে দাবি করা হয়।

শামসুন্নাহার আরও বলেন, ‘আমার ছেলে শামীমকে কৌশলে রাঙামাটি নিয়ে আটকে রাখে জাকিয়া সুলতানা হৃদি। অপরদিকে, তার পরিবার অভিযোগ করে হৃদিকে অপহরণ করা হয়েছে। পরে তারা আমার ছেলেকে রাঙামাটি থেকে পুলিশের মাধ্যমে কদমতলী থানায় নিয়ে আসে এবং ১০ লাখ টাকা চায় তার মুক্তির জন্য। এই টাকা না দিলে ছেলেকে সারা জীবন জেলে থাকতে হবে বলেও হুমকি দেওয়া হয়। ওই দিনই কদমতলী থানার এসআই শামিউল হকের মাধ্যমে মেয়েকে ১০ লাখ টাকা কাবিনে বিয়ে করতে চাপ দিতে থাকে। টাকা দিতে না চাইলে তারা আমার ছেলেকে অপহরণ মামলা দিয়ে জেলে পাঠিয়ে দেয়।’

সংবাদ সম্মেলনে ছেলেকে উদ্ধারে প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সহযোগিতা কামনা করেন ভুক্তভোগী মা শামসুন্নাহার।

শামীমের মায়ের দাবি, এভাবে বিভিন্ন মানুষকে আটক করে তারা লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। তাদের বিরুদ্ধে রাজধানীর কদমতলী ও রায়েরবাগ থানায় নারী নির্যাতন ও অপহরণসহ একাধিক মামলা রয়েছে।

/এআরআর/আইএ/এমওএফ/

লাইভ

টপ
X