২৪ ঘণ্টায় দেশে ফিরেছেন ২৮৩ জন

Send
চৌধুরী আকবর হোসেন
প্রকাশিত : ২০:৫৮, মার্চ ২৪, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ২১:৪৬, মার্চ ২৪, ২০২০

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে দেশের অভ্যন্তরে আকাশপথে যোগাযোগ বন্ধ হলেও বন্ধ হয়নি আন্তর্জাতিক ফ্লাইট। মঙ্গলবার বিকাল পর্যন্ত দুটি আন্তর্জাতিক ফ্লাইট ঢাকায় এসেছে। গত ২৪ ঘণ্টায় আকাশপথে দেশে এসেছেন ২৮৩ জন। ইংল্যান্ড, চীন, হংকং ও ব্যাংককের সঙ্গে বাংলাদেশের আকাশপথে যোগাযোগ চালু রয়েছে। এদিকে থাইএয়ার ২৫ মার্চ থেকে ২৬ মে পর্যন্ত বাংলাদেশে ফ্লাইট পরিচালনা বন্ধ করেছে।

বিমানবন্দর সূত্রে জান গেছে, মঙ্গলবার দুপুর পর্যন্ত বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের লন্ডন থেকে একটি ফ্লাইটে ৫৬ যাত্রী ঢাকায় আসে। থাইল্যান্ড থেকে থাই এয়ারওয়েজের একটি ফ্লাইট ৩২ জন যাত্রী নিয়ে ঢাকায় আসে। সোমবার ৪টি আন্তর্জাতিক ফ্লাইট শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে। এরমধ্যে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ১টি ফ্লাইট ৬০ জন যাত্রী নিয়ে আসে লন্ডন থেকে। ম্যানচেস্টার থেকে ৪০ জন যাত্রী নিয়ে বিমানের আরেকটি ফ্লাইট ঢাকায় আসে। চীন থেকে ৩০ জন যাত্রী নিয়ে আসে চায়না সাউদার্ন এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইট। হংকং থেকে ৭০ জন যাত্রী ড্রাগন এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটি ঢাকায় আসেন।
বিমানবন্দরের স্বাস্থ্য বিভাগ জানিয়েছে, এখনও যারা বিদেশ থেকে দেশে আসছেন তাদের থার্মাল স্ক্যানারের মাধ্যমে তাপমাত্রা পরীক্ষা করা হচ্ছে। মঙ্গলবার দুটি ফ্লাইট এলেও যাত্রী কম ছিল। করোনাভাইরাসের কোনও উপসর্গ আছে, এমন কাউকে পাওয়া যায়নি। যারা এসেছেন তাদের হোম কোয়ারেন্টিনে থাকতে বলা হয়েছে।
যাত্রী কমার কারণে বিমানবন্দর প্রায় ফাঁকা। বিমানবন্দরে বিভিন্ন সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানের কর্মীদের ব্যস্ততা কমেছে। যদিও করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি নিয়ে উদ্বিগ্ন তারা। অনেক সংস্থার সদস্যরা পার্সোনাল প্রটেকশন ইকুইপমেন্ট (পিপিই)ব্যবহার করছেন। শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের পরিচালক গ্রুপ ক্যাপ্টেন এএইচএম তৌহিদ-উল আহসান বলেন, আন্তর্জাতিক ফ্লাইট চালু থাকলেও যাত্রী সংখ্যা খুবই কম।
প্রসঙ্গত, মঙ্গলবার সকালে সড়ক, নৌ ও ট্রেন যোগাযোগ বন্ধ করে দেয় সরকার। বিকেলে দেশের অভ্যন্তরীণ রুটে বিমান চলাচল বন্ধ করে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়। মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মহিবুল হক বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, দেশের সব অভ্যন্তরীণ বিমানবন্দর বন্ধ থাকবে রাত থেকে। পরবর্তী ঘোষণা না দেওয়া পর্যন্ত এ সিদ্ধান্ত কার্যকর থাকবে।
২১ মার্চ রাত থেকে ১০ দেশের সঙ্গে বিমান যোগাযোগ বন্ধ করে বাংলাদেশ। ৩১ মার্চ পর্যন্ত ১০টি দেশের সঙ্গে আকাশপথে যোগাযোগ বন্ধ থাকবে। দেশগুলো হচ্ছে, কাতার, বাহরাইন, কুয়েত, সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত, তুরস্ক, মালয়েশিয়া, ওমান, সিঙ্গাপুর ও ভারত।
বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স বর্তমানে লন্ডনে শুক্র, শনি, রবি ও বুধবার একটি করে ফ্লাইট পরিচালনা করছে। ম্যানচেস্টারে বৃহস্পতি, রবি ও মঙ্গলবারে ৩টি ফ্লাইট পরিচালনা করছে। চীনে ফ্লাইট পরিচালনা করেছ চায়না সাউদার্ন ও ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স। সপ্তাহে রবি, বুধ ও শুক্রবারে তিনটি ফ্লাইট পরিচালনা করছে ইউএস-বাংলা। ইউএস-বাংলার মহাব্যবস্থাপক কামরুল ইসলাম বলেন, যাওয়ার সময় পুরো উড়োজাহাজে যাত্রী থাকলেও চীন থেকে ফেরার সময় ৩০-৪০ জনের বেশি যাত্রী আসেন না। বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী বলেন, অভ্যন্তরীণ ফ্লাইট বন্ধ করা হয়েছে, আন্তর্জাতিক কয়েকটি ফ্লাইট চালু আছে। এখানে কূটনৈতিক কিছু বিষয় আছে, আমরা সরকারের উচ্চপর্যায়ে পরিস্থিতি জানিয়েছি।

/সিএ/এমআর/এমওএফ/

লাইভ

টপ