এক লাখ অসহায় পরিবারকে ১৫ কোটি টাকা নগদ সহায়তা ব্র্যাকের

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৮:৩৫, এপ্রিল ০২, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৮:৫৭, এপ্রিল ০৩, ২০২০

সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখছেন ব্র্যাকের নির্বাহী পরিচালক আসিফ সালেহকরোনাভাইরাসের কারণে বিপর্যস্ত হয়ে পড়া এক লাখ অসহায় পরিবারকে ১৫ কোটি টাকা নগদ সহায়তা দেবে ব্র্যাক। এই অর্থ সহায়তা তাদের সংসারে দুই সপ্তাহ বাজার খরচের কষ্ট কিছুটা লাঘব করবে বলে মনে করছে ব্র্যাক। প্রতিটি পরিবারকে দেওয়া হবে ১৫০০ টাকা। বৃহস্পতিবার (২ এপ্রিল) ব্র্যাকের নির্বাহী পরিচালক আসিফ সালেহ এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান।

আসিফ সালেহ বলেন, ‘ছিন্নমূল, অতিদরিদ্র, দিনমজুর যারা আছেন— এরকম এক লাখ পরিবারকে আমরা চিহ্নিত করেছি। তাদেরকে আগামী দুই সপ্তাহ জরুরি ভিত্তিতে নগদ অর্থ সহায়তা দেবো। এটা দিয়ে দুই সপ্তাহ তাদের খাদ্য নিরাপত্তার যে ঝুঁকি তৈরি হয়েছে, সেটা থেকে তারা মুক্ত হতে পারবে। আমরা হিসাব করে দেখেছি যে, বাজার যেহেতু এখনও খোলা আছে, নগদ টাকা দেওয়া সবচেয়ে বেশি সহজ এবং সেটা তারা তাদের মতো করে খরচ করতে পারবে। সেক্ষেত্রে একটি চার সদস্যের পরিবারের খুব বেসিক কিছু খাবারের জন্য ৭৫০ টাকা খরচ হয়। সেই হিসাবে আমরা দুই সপ্তাহের জন্য ১৫০০ টাকা করে এক লাখ পরিবারকে দিচ্ছি।’

তিনি আরও বলেন, ‘এদের মধ্যে মূলত প্রাধান্য পাচ্ছে শহরের মানুষ, যারা বিভিন্ন বস্তিতে বসবাস করেন। পাশপাশি আমরা আহ্বান জানাচ্ছি, আরও  সামাজিক সংগঠন, বেসরকারি সংস্থা, স্বেচ্ছাসেবক সংগঠনগুলো আমাদের এই উদ্যোগের সঙ্গে যেন জড়িত হন। কারণ, আমরা এক লাখ পরিবারকে ১৫ কোটি টাকার একটি সহায়তা দিচ্ছি। প্রয়োজন কিন্তু আরও  অনেক বেশি। সেক্ষেত্রে সরকারের পাশপাশি যারা কাজ করছেন তারা যদি আরেকটু সমন্বিত পদ্ধতিতে কাজ করি, তাহলে মনে হয় আমরা সবার কাছেই পৌঁছাতে পারবো। এই উদ্যোগ সরকারের উদ্যোগের সঙ্গে যাতে  মিলে না যায়, সেজন্য তালিকা করতে জেলা প্রশাসন ও মেয়ররা আমাদের সহায়তা করছেন।’

এসময় ব্র্যাকের কয়েকটি উদ্যোগের কথা তুলে ধরে আসিফ সালেহ বলেন, ‘আমরা দুই-এক দিনের মধ্যে আরেকটি উদ্যোগ নিতে যাচ্ছি। বিভিন্ন সংগঠনের মাধ্যমে যে উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে, সেগুলোর মধ্যে যাতে একটি সমন্বয় আসে। সেটা আমরা এক-দুই দিনের মধ্যে চালু করতে যাচ্ছি। কারণ, এখানে দেখা যাচ্ছে যে, কিছু কিছু বস্তিতে অনেক বেশি সহায়তা যাচ্ছে, আবার কিছু জায়গাতে একদমই যাচ্ছে না। অনেকেই আছেন যারা একদমই সহায়তা পাচ্ছে না। আমরা চেষ্টা করছি, একটি প্ল্যাটফর্ম হিসেবে ব্র্যাক সেই কাজটি করে দিতে পারে কিনা। আশা করি, আগামী দিনগুলোতে বাকিরা ব্যাপকভাবে সাড়া দেবেন। আমরা সব সংস্থাকে এক জায়গায় করেছি করোনাভাইরাস মোকাবিলায়। আমরা মাঠে আছি, আমাদের মাঠকর্মীরা কেউ ছুটি নেননি, তারা মাঠে কাজ করছেন। আমরা খুবই কৃতজ্ঞ তাদের কাছে।’

 

/এসও/এপিএইচ/

লাইভ

টপ