ডিএনসিসির মশক নিধন অভিযানে ৮০ হাজার টাকা জরিমানা

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৭:৩০, মে ১৯, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৭:৩৪, মে ১৯, ২০২০

ডিএনসিসির অভিযানডেঙ্গু থেকে নগরবাসীকে সুরক্ষা দিতে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের চলমান চিরুনি অভিযানের ৪র্থ দিনে পৃথক সাতটি মামলায় ৮০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। মঙ্গলবার (১৯ মে) ডিএনসিসির পাঁচটি ওয়ার্ডে পরিচালিত অভিযানে এ জরিমানা করা হয়।

অভিযানে ডিএনসিসির পাঁচটি অঞ্চলের দুই হাজার ৪৩৯টির অধিক বাড়ি, স্থাপনা, নির্মাণাধীন ভবন পরিদর্শন করা হয়। এসময়ে বিভিন্ন বাড়ি, প্রতিষ্ঠান, স্থাপনায় ও পরিত্যক্ত জায়গায় এডিসের লার্ভা পাওয়া যাওয়ায় সাতটি মামলায় ৮০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

অঞ্চল-১ (উত্তরা) এর আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা জুলকার নায়ন ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আনোয়ারুল হালিমের নেতৃত্বে উত্তরা ৭ নম্বর সেক্টরে ৯৯৪টি বাসাবাড়ি, নির্মাণাধীন ভবন ও প্রতিষ্ঠানে অভিযান চালানো হয়। এসময় প্রায় ৭৪৬টি স্পটে এডিস মশার প্রজনন উপযোগী পরিবেশ পাওয়া যায়। এরমধ্যে ৪০টি স্পটে এডিস মশার লার্ভা পাওয়া যাওয়ায় সেসব স্থানে কীটনাশক স্প্রে করা হয়। পাশাপাশি বাড়ি মালিকদের সতর্ক করা হয়েছে। এসময়ে দুটি মামলায় ৬ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

অঞ্চল-২ (মিরপুর-২) এর আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এএসএম শফিউল আজমের নেতৃত্বে মিরপুর এলাকার ৪৫৯টি বাড়ি ও স্থাপনায় ডিএনসিসির চলমান চিরুনি অভিযান পরিচালিত হয়। এসময় দুটি নির্মাণাধীন ভবনে এডিস মশার লার্ভা পাওয়া যাওয়ায় দুটি মামলায় দুই জনকে ৬০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

ডিএনসিসির অভিযানঅঞ্চল-৩ (মহাখালী) এর আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মীর নাহিদ আহসানের নেতৃত্বে ১৮ নম্বর ওয়ার্ডের বারিধারা কে ব্লকএলাকায় ১৪৪টি বাড়ি, স্থাপনা ও নির্মাণাধীন ভবনে চিরুনি অভিযান পরিচালিত হয়। এসময় ৮টি স্থানে এডিস মশার লার্ভা পাওয়া যাওয়ায় তাদের সতর্ক করা হয়। তিনটি মামলায় তিন জনকে ১৪ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

অঞ্চল-৪ (মিরপুর-১০) এর ১২ নম্বর ওয়ার্ডের ১৯৬টি বাসাবাড়ি, নির্মাণাধীন ভবন ও স্থাপনায় চিরুনি অভিযান চালানো হয়। এসময় তিনটি বাড়িতে এডিস মশার লার্ভা ও প্রায় ১০৪টি বাড়িতে এডিস মশার প্রজনন উপযোগী পরিবেশ পাওয়া গেলে তাদের সতর্ক করে সেসব স্থানে কীটনাশক স্প্রে করা হয়। তবে কোনও জরিমানা করা হয়নি।

অঞ্চল-৫ (কারওয়ান বাজার) এর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট বেলায়েত হোসেনের নেতৃত্বে মোহাম্মদপুরে চিরুনি অভিযান পরিচালিত হয়। এসময়ে ১৮৭টি বাড়ি ও স্থাপনা পরিদর্শন করে এডিস মশার প্রজননস্থলগুলো ধ্বংস করে কীটনাশক প্রয়োগ করা হয়। তবে কাউকে জরিমানা করা হয়নি।

 

/এসএস/টিটি/

লাইভ

টপ