ঈদের দ্বিতীয় দিনেও ঘরের বাইরে অনেকেই

Send
হাসনাত নাঈম
প্রকাশিত : ২০:৫৬, মে ২৬, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ২১:৪৭, মে ২৬, ২০২০

ঈদের দ্বিতীয় দিনে হাতিরঝিলমহামারি করোনাভাইরাসের মধ্যেই পালিত হচ্ছে মুসলমানদের ধর্মীয় উৎসব ঈদুল ফিতর। বরাবর আনন্দঘন পরিবেশের মধ্য দিয়ে এই উৎসব উদযাপন করলেও এবছর সেটা সম্ভব হয়নি করোনাভাইরাসের কারণে। তারপরও কিছু মানুষ ঈদের দিন রাজধানীতে বের হয়েছিল বিনোদনের খোঁজে। তবে ঈদের দিনের চেয়ে ঈদের পরের দিন মঙ্গলবার (২৬ মে) বাইরে বের হওয়া মানুষের সংখ্যা কিছুটা কম দেখা গেছে।
এদিন বিকেলে ধানমন্ডি লেকে কিছু সংখ্যক মানুষের আনাগোনা দেখা যায়। রবীন্দ্র সরোবর ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি এলাকায়ও দেখা যায় একই চিত্র। এদিকে রমনা পার্কের ফটক বন্ধ থাকায় ভিতরে কাউকেই দেখা যায়নি। কিন্তু হাতিরঝিলে মানুষের আনাগোনা দেখে গেছে কিছুটা বেশি। অনেকেই ব্যক্তিগত গাড়িতে এখানে এসেছেন। অনেকে এসেছেন পায়ে হেটে।
অনেকক্ষেত্রে সামাজিক দূরত্ব মানা এবং স্বাস্থ্যবিধি মানার বিষয়টি দেখা যায়নি। কেন সামাজিক দূরত্ব মানছেন না প্রশ্ন করে বিভিন্নজন বিভিন্ন অজুহাত দেখাচ্ছেন।


হাতিরঝিলে ছোট্ট শিশু এবং স্ত্রীকে নিয়ে সপরিবারে ঘুরতে এসেছেন সামির চৌধুরী। তিনি বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, দীর্ঘ সময় তো করোনাভাইরাসের কারণে ঘরে বন্দি রয়েছি। ঈদের সময়টাতে চেষ্টা করছি সামাজিক দূরত্ব মেনে বাইরে বের হতে। দীর্ঘ সময় ঘরে বসে থাকতে থাকতে মনটা বিষিয়ে গিয়েছে। তাই পরিবার নিয়ে হাতিরঝিলে ঘুরতে এসেছি। স্বাস্থ্যবিধি মানার বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি বলেন, মাস্ক, হ্যান্ডগ্লাভস ও স্যানিটাইজার সবকিছুই আছে গাড়িতে রাখা। আপাতত খুলে রেখেছি।

টিএসসিতে কথা হয় শাওন মাহমুদ নামে এক ঢাবি শিক্ষার্থীরা সঙ্গে। তিনি বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, প্রিয় ক্যাম্পাস দীর্ঘদিন ধরে নিশ্চুপ রয়েছে। তাই খুব একটা আসা হয়না টিএসসি চত্বরে। আজ কিছু বন্ধুদের আসতে বলেছি। ঘরে বসে থাকতে থাকতে বোর হয়ে গিয়েছি।

কর্মজীবী নারী জান্নাতুল ফেরদৌস বাবা মাকে সঙ্গে নিয়ে বের হয়েছেন। তিনি বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, করোনার মহামারীতে দীর্ঘদিন ঘরে বসে থাকতে থাকতে তো প্রায় দমবন্ধ অবস্থা হয়েছে। আজ ব্যক্তিগত গাড়িতে বাবা-মাকে নিয়ে ঘুরতে এসেছি। সামাজিক দূরত্বের বিষয়টি মাথায় রেখে চলাফেরা করছি। যেন আনন্দের খোঁজ করতে এসে পরিবারের ক্ষতি না হয়।

প্রসঙ্গত, করোনাভাইরাসের মহামারিতে সরকার ও স্বাস্থ্য অধিদফতর অনুরোধ করেছে সবাইকে ঘরে অবস্থান করতে। তারপরও সে অনুরোধ উপেক্ষা করেই ঘুরতে বেরিয়েছেন অনেকে। কেউ সামাজিক দূরত্বের বিষয়টি মানছেন আবার কেউ মানছেন না।

/এমআর/

লাইভ

টপ