অক্সিজেনের খালি সিলিন্ডার বিনামূল্যে রিফিল করে দেবে ‘সংযোগ’

Send
সাদ্দিফ অভি
প্রকাশিত : ২০:৩৭, জুন ০৬, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ২০:৪১, জুন ০৬, ২০২০

দেশে করোনা সংক্রমণকালে অক্সিজেনের চাহিদার বিপরীতে সিলিন্ডারের সংকট দেখা দেওয়ায় অভিনব উদ্যোগ নিয়েছে অনলাইন প্ল্যাটফর্ম ‘সংযোগ’। তাদের মতে দেশের বিভিন্ন শিল্পে অব্যবহৃত কিংবা ব্যবহৃত অতিরিক্ত সিলিন্ডার মজুত রয়েছে। এসব ভারী শিল্পের সঙ্গে সংশ্লিষ্টরা যদি সিলিন্ডার কয়েকমাসের জন্য ধার দেন, তাহলে সেগুলোতে বিনামূল্যে (রিফিল চার্জ) অক্সিজেন রিফিল করে সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছে দেবেন তারা। সিলিন্ডারের কার্যকারিতা এবং মেয়াদ পরীক্ষা করার জন্য ইতোমধ্যে নিজেদের টেকনিক্যাল টিম তৈরি করা হয়েছে। সবাই এগিয়ে আসলে করোনা পরিস্থিতির আগের দামে অক্সিজেন সরবরাহ করতে পারবে বলে জানিয়েছে তারা।
অনলাইন প্ল্যাটফর্ম সংযোগের উদ্যোক্তা আহমেদ জাভেদ জামাল। তার সঙ্গে আরও কাজ করছেন বুয়েটসহ নানা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পাস করা প্রকৌশলীরা। আহমেদ জাভেদ জামাল বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, বাংলাদেশে যথেষ্ট পরিমাণ সিলিন্ডার আছে। এখন আমাদের জানা প্রয়োজন অক্সিজেন সিলিন্ডার কোথায় আছে। দেখা গেছে যে সাপ্লাইয়াররা সিলিন্ডার স্টক করে রেখেছে। যেখানে পরিস্থিতি বুঝে ব্যবসায়ীরা নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের দাম বাড়ায়, সেখানে অক্সিজেনের দাম বাড়াবেই। সাড়ে ৩ লিটার অক্সিজেনের সিলিন্ডারের দাম এখন ২০ হাজার টাকা। আগে ছিল ৫-৭ হাজার টাকা। এমন না যে অক্সিজেন সিলিন্ডার কম, আমাদের উৎপাদন কিন্তু পর্যাপ্ত আছে। আমাদের কমপ্লায়েন্স ফ্যাক্টরিগুলোতে মেডিক্যাল স্ট্যান্ডার্ড থাকে। আর সেখানে কিন্তু এক দুইটা না অনেকগুলো অক্সিজেন সিলিন্ডার থাকে। এখন তাদের হয়তো ফ্যাক্টরি খোলা, সেগুলোর প্রয়োজন থাকতে পারে। আমরা বলছি না সব দিয়ে দেন, আপনাদের যদি ১০টা থাকে তাহলে আমাদের একটি কিংবা দুইটা করে ধার দিন। তাতে কিন্তু সমস্যা হওয়ার কথা না। আমাদের ফারমাসিউটিক্যালস কোম্পানিগুলোতে, ক্যামিকেল কোম্পানিতে কিন্তু মেডিক্যাল গ্রেড অক্সিজেন সিলিন্ডার আছে।
তিনি বলেন, অক্সিজেন প্রস্ততকারক কোম্পানির সঙ্গে আমাদের কথা হয়েছে। সিলিন্ডার পেলে তারা রিফিল চার্জ নেবে না। আমাকে যদি খালি সিলিন্ডার দেওয়া হয় , আমরা সেগুলো নিজ ব্যবস্থাপনায় অক্সিজেন ভরে মানুষের কাছে পৌঁছে দেবো। এখন একটি খালি সিলিন্ডার পাওয়া গেলেও তার দাম প্রচুর। ১০-১২ হাজার টাকা সিলিন্ডার প্রতি দাম হাঁকালেও পাওয়া যাচ্ছে না। আমরা যদি আমদানি করতাম বাইরে থেকে তাহলে খরচ পড়তো ৫-৬ হাজার টাকা।
অক্সিজেন সিলিন্ডার সংগ্রহ করে আবার ফেরত দেওয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, আমরা একটা ডাটাবেজ করবো। সেখানে কার কাছে থেকে কত তারিখে কয়টি সিলিন্ডার নেওয়া হয়েছে সব বিস্তারিত থাকবে। তারা আমাদের সিলিন্ডার দিবে, আমরা কাজ শেষে ফেরত দিয়ে দেবো। আমরা আমাদের টেকনিশিয়ান, গাড়িভাড়া এগুলোর জন্য ফান্ড তৈরি করবো। যাদের অক্সিজেন প্রয়োজন তাদের জন্য আমরা একটি চার্জ নির্ধারণ করবো। এখন যদি মার্কেটে ২০ হাজার টাকায় অক্সিজেন পাওয়া যায় তাহলে আমরা করোনা পরিস্থিতির আগের রেটে মানুষকে দেবো। সেটি ৪-৫ হাজার টাকার মধ্যে।
তিনি জানান কেউ যদি সিলিন্ডার দিতে চায় তাহলে আমাদের গুগল ফর্ম আছে। সেখানে সেটি ফিলাপ করে জানালে আমরা সংগ্রহ করার ব্যবস্থা করবো। অথবা আমাকে ফোন দিয়েও জানাতে পারে। এছাড়া আমাদের ফেসবুক গ্রুপ আছে সেখানেও আমাদের জানালে আমরা ব্যবস্থা নিতে পারবো।
গুগল ফর্মের লিংক: https://docs.google.com/forms/d/e/1FAIpQLSd8z6gWJb97Rr1m3aAX8SUgou08dY3hmjvbD4KQBU-_uPUy1A/viewform?fbclid=IwAR0T6FLf8g8n5OzPHrdPv9N7I-SjNo1xwy4_AwtN5bpJp0cjzUatwHIBKOA

 

/এসও/এমআর/

লাইভ

টপ