মুজিববর্ষ উপলক্ষে লাগানো প্রতিটি চারা হবে স্মারক বৃক্ষ: পরিবেশমন্ত্রী

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৮:৪০, জুলাই ১৫, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৮:৪২, জুলাই ১৫, ২০২০

 

পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক মন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন

পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক মন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন  বলেছেন, ‘মুজিববর্ষের আহ্বান, লাগাই গাছ, বাঁচাই বন’ এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে এক কোটি গাছের চারা রোপণ করা হবে। আগামী ১৬ জুলাই থেকে ১৫ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত দেশের ৪৯২টি উপজেলার প্রতিটিতে ২০ হাজার ৩২৫টি করে গাছের চারা রোপণ করা হবে। প্রতিটি চারাকে স্মারক বৃক্ষ হিসেবে রক্ষণাবেক্ষণ করা হবে।’

তিনি জানান, আগামী বৃহস্পতিবার  (১৬ জুলাই) এককোটি গাছের চারা রোপণ কর্মসূচির উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় গণভবনে একটি তেতুল, একটি ছাতিয়ান ও একটি চালতা গাছ রোপণ করার মাধ্যমে এই কমসূচির উদ্বোধন করা হবে।

বুধবার (১৫ জুলাই) এ বিষয়ে অনলাইনে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

সংবাদ সম্মেলনে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী হাবিবুন নাহার, সচিব জিয়াউল হাসান, অতিরিক্ত সচিব আহমদ শামীম আল রাজী, পরিবেশ অধিদফতরের মহাপরিচালক ড. এ কে এম রফিক আহাম্মদ, বন অধিদফতরের প্রধান বন সংরক্ষক আমীর হোসেন চৌধুরীসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এসময় উপস্থিত ছিলেন।

বনমন্ত্রী বলেন, ‘জাতির পিতা এদেশে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি শুরু করেছিলেন। তারই পদাঙ্ক অনুসরণ করে পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় মুজিববর্ষে এই কার্যক্রম বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।’ তিনি বলেন, ‘দেশীয় ফলদ, বনজ ও ঔষধি গাছের চারা রোপণের এ কর্মসূচির পঞ্চাশ শতাংশের বেশি থাকবে ফলজ গাছ।’ মন্ত্রী এ মহতি কর্মসূচি সফল করার জন্য সংসদ সদস্যরাসহ দেশের সব পর্যায়ের জনপ্রতিনিধি এবং সংশ্লিষ্ট সবার সহায়তা কামনা করেন। তিনি প্রতিটি গাছ রোপণের পর নিয়মিত খোঁজখবর রাখা এবং যথাযথভাবে রক্ষণাবেক্ষণের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সংশ্লিষ্টদের নির্দেশনা দেন।

মন্ত্রী বলেন, ‘এবার পরিবেশ দিবস উপলক্ষে ৫ জুন এই গাছের চারা রোপণের কথা থাকলেও করোনাভাইরাসের সংক্রমণের কারণে তা আর করা সম্ভব হয়নি।’ তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী কর্মসূচি উদ্বোধন করার পর পরই প্রতিটি জেলা ও উপজেলায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে কমপক্ষে একটি করে বনজ, ফলজ বা ঔষধি গাছের চারা রোপণ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। প্রতিটি গাছের চারা স্মারক গাছ হিসেবে রক্ষণাবেক্ষণ করতে জেলা ও উপজেলা কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।’

মন্ত্রণালয়ের সচিব জানান, চারা বিতরণের জন্য জেলা, উপজেলা  কর্মকর্তারা এরইমধ্যে তালিকা করেছেন। সেই অনুযায়ী চারা বিতরণ করা হবে। এছাড়া, প্রত্যেক সংসদ সদস্যদের জন্য ৫ হাজার করে গাছের চারার বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। তারা তাদের মতো করে এসব চারা বিতরণ করবেন।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, একটি চারার দাম ৯ টাকা হিসাব করে মোট ৯ কোটি টাকা এই খাতে বরাদ্দ রাখা হয়েছে। এছাড়া ৫ হাজার করে মোট ১৬ লাখ গাছের চারা বরাদ্দ রাখা হয়েছে সংসদ সদস্যদের জন্য।  চলতি বছর নানা কর্মসূচির মাধ্যমে সব মিলিয়ে ৭ কোটি গাছের চারা রোপণের পরিকল্পনা করেছে পরিবেশ মন্ত্রণালয়।

 

/এসএনএস/ এপিএইচ/

লাইভ

টপ