মাস্ক কেলেঙ্কারি: সাত জনের বিরুদ্ধে মামলা

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৭:১৯, সেপ্টেম্বর ২৯, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৭:২৪, সেপ্টেম্বর ২৯, ২০২০

 

এন-৯৫ মাস্কনকল এন-৯৫ মাস্ক সরবরাহ ও বিতরণের ঘটনায় কেন্দ্রীয় ঔষধাগারের (সিএমএসডি) ছয় কর্মকর্তা ও জেএমআই হসপিটাল রিকুইজিট ম্যানুফ্যাকচারিং লিমিটেডের চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে দুদক। মঙ্গলবার (২৯ সেপ্টেম্বর) দুদক প্রধান কার্যালয়ের উপপরিচালক মোহা. নূরুল হুদা বাদী হয়ে দুর্নীতি দমন কমিশনের সমন্বিত জেলা কার্যালয়, ঢাকায় মামলাটি দায়ের করেন।





মামলার আসামিরা হলেন- সিএমএসডির উপরিচালক (বর্তমানে কক্সবাজার জেনারেল হাসপাতারের তত্ত্বাবধায়ক) ডা. মো. জাকির হোসেন খান, সহকারী পরিচালক (স্টোরেজ অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন) বর্তমানে সহকারী পরিচালক (এসএন্ডডি) ডা. মো. শাহজাহান সরকার, চিফ কো-অর্ডিনেটর ও ডেস্ক অফিসার (বর্তমানেস্বাস্থ্য অধিদফতরে সংযুক্ত) ডা. মোহাম্মদ জিয়াউল হক, ডেস্ক অফিসার (ডেস্ক-৮) ও অতিরিক্ত দায়িত্ব (স্টোর) বর্তমানে জামালপুর দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিক্যাল অফিসার ডা. সাব্বির আহমেদ, স্টোর অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) বর্তমানে পিআরএল মো. কবির আহম্মেদ, সিনিয়র স্টোর কিপার মোহাম্মদ ইউসুফ ফকির এবং জেএমআই হসপিটাল রিকুইজিট ম্যানুফ্যাকচারিং লিমিটেডের চেয়ারম্যান মো. আব্দুর রাজ্জাক।
মামলায় নকল মাস্ক সরবরাহ, গ্রহণ ও বিতরণের মাধ্যমে দুর্নীতির অভিযোগ আনা হয়েছে। মামলায় আরও বলা হয়, সিএমএসডির নিয়মানুযায়ী সার্ভে কমিটির মাধ্যমে যাচাই করে পণ্য গ্রহণ করার কথা ছিল। এরপরও সার্ভে কমিটির মাধ্যমে যাচাই না করেই বর্ণিত ব্যক্তিরা পরস্পর যোগসাজশে ক্ষমতার অপব্যবহার করে নিজেরা লাভবান হয়ে কিংবা সরবরাহকারীকে লাভবান করার অসৎ উদ্দেশ্যে উল্লিখিত নকল এন-৯৫ মাস্ক গ্রহণ করেন এবং একই তারিখে অসৎ উদ্দেশ্যে এসব নকল এন-৯৫ মাস্ক ১০টি প্রতিষ্ঠানে বিতরণ করে স্বাস্থ্য সেবায় নিয়োজিত ডাক্তার, নার্স ও অন্যান্যদের মৃত্যুর ঝুঁকির মধ্যে ঠেলে দেন।
এ মামলায় মঙ্গলবার দুপুরে জেএমআই হসপিটাল রিকুইজিট ম্যানুফ্যাকচারিং লিমিটেডের চেয়ারম্যান মো. আব্দুর রাজ্জাককে গ্রেফতার করে রিমান্ডে নিয়েছে দুদক।


আরও পড়ুন- 

মাস্ক কেলেঙ্কারি: জেএমআই চেয়ারম্যান রিমান্ডে  

মাস্ক কেলেঙ্কারি: জেএমআই চেয়ারম্যান গ্রেফতার

/আরজে/এফএস/

লাইভ

টপ
X