উৎসবের সময় বেশি জাল টাকা বাজারে ছাড়ে তারা!

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৪:০৮, অক্টোবর ২৪, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৪:৩৬, অক্টোবর ২৪, ২০২০

জাল টাকাপ্রায় ৫৯ লাখ জাল টাকা, ১১৩টি জাল ডলার ও জাল টাকা তৈরির সরঞ্জামসহ এ চক্রের মাস্টারমাইন্ড কাজী মাসুদ পারভেজকে গ্রেফতার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগ। এ সময় তার ছয় সহযোগীকেও গ্রেফতার করা হয়। শনিবার (২৪ অক্টোবর) ডিবির অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার এ কে এম হাফিজ আক্তার সংবাদ সম্মেলন করে এ তথ্য জানান। যেকোনও বড় উৎসবকে কেন্দ্র করে এই চক্র বাজারে বেশি পরিমাণ জাল টাকা ছাড়ে বলেও জানান তিনি।জাল টাকা

ডিবি প্রধান হাফিজ আক্তার বলেন, ‘চলতি মাসে আমরা জাল টাকা তৈরির তিনটি চক্রের বিরুদ্ধে অভিযান চালিয়েছি। তাদের দেওয়া তথ্য মতে গত ২৩ অক্টোবর রাজধানীর কোতোয়ালি আদাবর থানাসহ বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালনা করে ৫৮ লাখ ৭০ হাজার জাল টাকা, ১১৩টি জাল ডলার ও জাল তৈরির সরঞ্জামাদিসহ ছয় জনকে আটক করা হয়।’

তিনি বলেন, ‘এই পুরো চক্রের মাস্টারমাইন্ড কাজী মাসুদ পারভেজ। মাসুদ পারভেজ ছাড়াও এ চক্রের মোহাম্মদ মামুন, শিমু, রুহুল আলম, সোহেল রানা, নাজমুল হককে গ্রেফতার করা হয়।’জাল ডলার

ডিবি প্রধান বলেন, ‘এই চাক্রের মাস্টারমাইন্ড কাজী মাসুদ পারভেজের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা রয়েছে। সে এর আগেও গ্রেফতার হয়েছে। বারবার গ্রেফতার হয়ে বের হয়ে এসেছে। আমরা তার বিরুদ্ধে স্পেশাল অ্যাক্টে মামলা করবো যেন সে সহজে বের হয়ে আসতে না পারে।’টাকা জাল চক্রের সদস্যরা

হাফিজ আক্তার বলেন, ‘প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃতরা জানায়, তারা পাঁচ-ছয় বছর ধরে পরস্পরের যোগসাজশে জাল নোট প্রস্তুত করে খুচরা ও পাইকারি দরে বিক্রি করছে। তারা বড় কোনও উৎসব, যেমন ঈদ, দুর্গাপূজা ইত্যাদি অনুষ্ঠানকে টার্গেট করে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় তাদের সহযোগীদের মাধ্যমে জাল টাকা সরবরাহ করে এবং বিক্রি করে।’

ডিবি কর্মকর্তা জানান, এক লাখ টাকার জাল নোট তারা ২০ হাজার টাকায় বিক্রি করে।ডিবির সংবাদ সম্মেলন

অভিযানে তাদের কাছে থেকে জাল নোট তৈরির সরঞ্জাম হিসেবে একটি ল্যাপটপ, দুটি স্ক্যানার, একটি লেমিনেটর, দুটি প্রিন্টার, ১২টি ট্রেসিং প্লেট, ৫ রিম জাল টাকা ছাপানোর কাগজ জব্দ করা হয়।

 

/এসএইচ/এফএস/এমএমজে/

লাইভ

টপ