‘আমলাতন্ত্রের কূটকৌশলে সরকার যেন লক্ষ্যচ্যুত না হয়’

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট‌
প্রকাশিত : ২০:২৯, অক্টোবর ২৫, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ০০:০৫, অক্টোবর ২৬, ২০২০

চিকিৎসক, প্রকৌশল ও কৃষি খাতে বিভিন্ন টেকনিক্যাল পদে প্রশাসন ক্যাডারের নন-টেকনিক্যাল কর্মকর্তাদের পদায়ন দেশের জন্য উন্নয়ন পরিপন্থী। আর এর ফলে রাজনৈতিক সরকার ক্ষতিগ্রস্ত হবে বলে দাবি করেছে প্রকৃচি (কৃষিবিদ‌ ‌ইনস্টিটিউশন‌ ‌বাংলাদেশ, ‌ইঞ্জিনিয়ার্স‌ ‌ইনস্টিটিউশন‌ ‌বাংলাদেশ‌ ‌ও‌ ‌ ‌বাংলাদেশ‌ ‌মেডিক্যাল‌ ‌অ্যাসোসিয়েশন‌)। একইসঙ্গে আমলাতন্ত্রের‌ ‌কূটকৌশলে‌ ‌রাজনৈতিক‌ ‌সরকার‌ ‌যেন‌ ‌কোন‌ও ‌অবস্থায়‌ ‌লক্ষ্যচ্যুত‌ ‌না‌ ‌হয় বলেও মন্তব্য করেছে সংগঠনটি।

রবিবার ( ২৫ অক্টোবর) প্রকৌশলী-কৃষিবিদ ও চিকিৎসকদের জাতীয় সংগঠন প্রকৃচি এক মতবিনিময় সভায় এ মন্তব্য করে।

বাংলাদেশ মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশন ( বিএমএ) এর মহাসচিব ও প্রকৃচির কেন্দ্রীয় স্টিয়ারিং কমিটির সদস্য সচিব ডা. মো ইহতেশামুল হক চৌধুরীর সই করা  সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে প্রকৃচি জানিয়েছে, ইদানিং‌ ‌প্রকৌশল, ‌কৃষি‌ ‌ও‌ ‌স্বাস্থ্য খাতের‌ ‌বিভিন্ন‌ ‌টেকনিক্যাল‌ ‌পদে‌ ‌প্রশাসন‌ ‌ক্যাডারের‌ ‌ননটেকনিক্যাল‌ ‌কর্মকর্তাদের‌ ‌পদায়ন‌ ‌আওয়ামী‌ ‌লীগ‌ ‌সরকারের‌ ‌রাজনৈতিক‌ ‌মেনিফেস্টো, যা ‌দেশের‌ ‌জনগণের‌ ‌আশা‌ ‌আকাঙ্ক্ষা‌ ‌ও‌ ‌সরকারের‌ ‌উন্নয়ন‌ ‌রাজনীতির‌ ‌চিন্তা‌ ‌চেতনা‌ ‌বিরোধী।‌ ‌

এসব ‌পদায়নের‌ ‌ব্যাপারে‌ ‌‌সভা‌য়  ‌ক্ষোভ‌ ‌ও‌ ‌উদ্বেগ‌ ‌প্রকাশ‌ ‌করে  ‌তীব্র‌ ‌নিন্দা জানানো হয়েছে উল্লেখ করে বলা হয়, ‌সভা‌ ‌মনে‌ ‌করে,‌ ‌টেকনিক্যাল‌ ‌পদে ‌‌প্রশাসন‌ ‌ক্যাডারের‌ ননটেকনিক্যাল‌ ‌কর্মকর্তাদের‌ ‌পদায়ন‌ ‌দেশের‌ ‌উন্নয়ন‌ ‌পরিপন্থী‌ ‌এবং‌ ‌এর‌ ‌ফলে‌ ‌রাজনৈতিক‌ ‌সরকার‌ ‌ক্ষতিগ্রস্ত ‌হবে।‌ ‌

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়,‘আন্তঃক্যাডার‌ ‌দ্বন্দ্বের‌ ‌সৃষ্টি‌ ‌হয়‌ ‌এমন‌ ‌কোন‌ও ‌কিছু‌ ‌সরকার‌ ‌করবে না’ ‌প্রধানমন্ত্রীর‌ ‌এমন‌ ‌অনুশাসন‌ ‌থাকা‌ ‌সত্ত্বেও‌ ‌প্রশাসনের‌ ‌বর্তমান‌ ‌কার্যকলাপ‌ ‌অব্যাহত‌ ‌থাকলে‌ ‌প্রকৃচি‌ ‌কোন‌ও ‌অবস্থায়ই‌ ‌তা‌ ‌মেনে‌ ‌নেবে‌ ‌না‌ ‌বলে‌ ‌সভায় সিদ্ধান্ত‌ ‌হয়।

এ বিষয়ে ভবিষ্যতে ‌করণীয়‌ ‌নির্ধারণের‌ ‌জন্য‌ ‌আইইবির‌ ‌সভাপতি‌ ‌প্রকৌশলী মো.  ‌নূরুল‌ ‌হুদাকে‌ ‌আহ্বায়ক ‌এবং‌ ‌বিএমএ‌ ‌মহাসচিব‌ ‌ডা.‌ ‌মো.  ‌ইহতেশামুল‌ ‌হক‌ ‌চৌধুরীকে‌ ‌সদস্য‌ ‌সচিব‌ ‌করে‌ ‌প্রকৃচির‌ ‌নতুন‌ ‌স্টিয়ারিং‌ ‌কমিটি‌ ‌গঠন‌ ‌করা‌ ‌হয়েছে। ‌‌বাংলাদেশের‌ ‌প্রতিটি‌ ‌জেলায়‌ ‌প্রকৃচির‌ ‌শাখা‌ ‌কমিটি‌ ‌গঠনের‌ ‌সিদ্ধান্ত‌ ‌গৃহীত‌ ‌হয়।‌ ‌

আমলাতন্ত্রের‌ ‌কূটকৌশলে‌ ‌রাজনৈতিক‌ ‌সরকার‌ ‌যেন‌ ‌কোন‌ও ‌অবস্থায়‌ ‌লক্ষ্যচ্যুত‌ ‌না‌ ‌হয়‌ ‌এবং‌ ‌সব ‌ক্যাডারের‌ ‌সহ‌ ‌ও‌ ‌সুষম‌ ‌অবস্থান‌ ‌নিশ্চিত‌ ‌করে‌ ‌সরকারের‌ ‌গণমুখী‌ ‌কর্মসূচি‌ ‌অব্যাহত‌ ‌রাখার‌ ‌দৃঢ়‌ ‌সংকল্প‌ ‌ব্যক্ত‌ ‌করা‌ ‌হয়।‌ ‌

বাংলাদেশ‌ ‌মেডিক্যাল‌ ‌অ্যাসোসিয়েশন‌ ‌(বিএমএ) এর‌ ‌সভাপতি‌ ‌ডা.‌ ‌মোস্তফা‌ ‌জালাল‌ ‌মহিউদ্দিনের‌ ‌ সভাপতিত্বে‌ ‌সভায়‌ ‌উপস্থিত‌ ‌ছিলেন‌— ‌ইঞ্জিনিয়ার্স‌ ‌ইনস্টিটিউশন‌ ‌বাংলাদেশ‌ ‌(আইইবি)‌ ‌এর‌ ‌সভাপতি‌ ‌প্রকৌশলী‌ ‌মো. ‌নূরুল‌ ‌হুদা, ‌আইইবির‌ ‌সাবেক‌ ‌সভাপতি‌ ‌প্রকৌশলী‌ ‌মো. ‌আব্দুস‌ ‌সবুর, ‌আইইবির‌ ‌ সহসভাপতি‌ ‌প্রকৌশলী‌ ‌এস‌ ‌এম‌ ‌মঞ্জুরুল‌ ‌হক‌ ‌মঞ্জু, ‌কৃষিবিদ‌ ‌ইনস্টিটিউশন‌ ‌বাংলাদেশ‌ ‌(কেআইবি)‌ ‌এর‌ ‌সভাপতি‌ ‌(ভারপ্রাপ্ত)‌ ‌কৃষিবিদ‌ ‌ড.‌ ‌মো. ‌শহীদুর‌ ‌রশীদ‌ ‌ভূইয়া, ‌কেআইবি‌ ‌মহাসচিব‌ ‌কৃষিবিদ‌ ‌মো. ‌খায়রুল‌ ‌

আলম‌ ‌(প্রিন্স), স্বাধীনতা‌ ‌চিকিৎসক‌ ‌পরিষদ‌ ‌(স্বাচিপ)‌ ‌এর‌ ‌সভাপতি‌ ‌ডা.‌ ‌এম‌ ‌ইকবাল‌ ‌আর্সলান, ‌স্বাচিপ‌ ‌মহাসচিব‌ ‌ডা.‌ ‌এম‌ ‌এ‌ ‌আজিজ, ‌পেশাজীবী‌ ‌সমন্বয়‌ ‌পরিষদের‌ ‌মহাসচিব‌ ‌ডা.‌ ‌কামরুল‌ ‌হাসান‌ ‌খানসহ অন্যরা। সভা‌ ‌পরিচালনা‌ ‌করেন‌ ‌বিএমএ‌ ‌মহাসচিব‌ ‌ডা.‌ ‌মো. ‌ইহতেশামুল‌ ‌হক‌ ‌চৌধুরী।‌ ‌ ‌

 

/জেএ/এপিএইচ/

লাইভ

টপ