X
বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪
২ শ্রাবণ ১৪৩১

ফখরুল-কাদের দ্বৈরথে হাজির জামায়াত

বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
০৫ জুন ২০২৪, ১৪:৪৪আপডেট : ০৫ জুন ২০২৪, ১৭:১৯

সাবেক সেনাপ্রধান আজিজ আহমেদকে যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা এবং সাবেক আইজিপি বেনজীর আহমেদের সারা দেশে ছড়িয়ে থাকা সম্পত্তি ও তার বিরুদ্ধে দুদকের তদন্তকে কেন্দ্র করে সরব রাজনৈতিক অঙ্গন। রাজনীতির এই সরব আলোচনায় মুখ্য চরিত্রে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের ও বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। চলতি জুন মাসের শুরু থেকেই দুজনেই দুজনের প্রতি ছুড়ে দিয়েছেন প্রশ্ন। জবাবে আবার ছুড়েছেন পাল্টা অভিযোগের তীরও। রাজনীতির প্রধান দুই দলের দ্বৈরথে হাজির হয়েছে জামায়াত। দলটির সেক্রেটারি জেনারেল মিয়া গোলাম পরওয়ার বিবৃতি দিয়েছেন। তবে এবার বিএনপি মহাসচিবের বক্তব্যের সমালোচনা না করলেও আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদকের বক্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়েছেন তিনি।

রবিবার (৩ জুন) জাতীয় প্রেস ক্লাবে একটি অনুষ্ঠানে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘এখনকার তরুণ প্রজন্ম পড়াশোনা করে না। আমি জামায়াতে ইসলামীর রাজনীতি সমর্থন করি না। কিন্তু তাদের রাজনীতির যে কৌশল, তা অত্যন্ত বিজ্ঞানসম্মত। ঠিক কমিউনিস্ট পার্টির মতো। তাদের ছাত্রশিবিরের স্টাডি সেল আছে। তাদের প্রত্যেককে লেখাপড়া করতে হয়। নিজেরা বই-পত্রিকা প্রকাশ করে। জ্ঞানের চর্চা ছাড়া সফল হতে পারবেন না।’

এই বক্তব্যের পরদিন সোমবার (৪ জুন) আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বিবৃতি দেন। প্রতিবাদ জানিয়ে তিনি মন্তব্য করেন, ‘স্বাধীনতাবিরোধী, উগ্র সাম্প্রদায়িক অপশক্তি জামায়াতে ইসলামী সম্পর্কে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের বক্তব্যে এসব কথা আবারও প্রমাণিত হয়েছে যে তারা যেখানেই যে অবস্থাতেই থাকুক না কেন, স্বাধীনতাবিরোধী জামায়াতসহ সাম্প্রদায়িক অপশক্তির সঙ্গে বিএনপির গভীর বন্ধন রয়েছে।’

বিএনপির সঙ্গে জামায়াতের সম্পর্কের সূত্রপাত ১৯৯১ সালে সরকার গঠনের সময়। ওই সময় জামাায়াতের সমর্থন নিয়ে খালেদা জিয়া সরকার গঠন করেন। পরবর্তী কয়েক বছর পর মুক্তিযুদ্ধের সরাসরি বিরোধী এই দলটির সঙ্গে জোটবদ্ধ আন্দোলন করে বিএনপি। ২০০১ সালে চারদলীয় জোট সরকার বিজয়ী হলেও সরকার গঠিত হয় কেবল ‘বিএনপি-জামায়াতের’। এরপর থেকেই রাজনৈতিকভাবে ‘বিএনপি-জামায়াত’ একসঙ্গে ফ্রেমবন্দি হয়।

২০১৮ সালে একাদশ জাতীয় নির্বাচনের আগে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠনের মধ্য দিয়ে বিএনপি ২০ দলীয় জোটের অবসান ঘটানোর মধ্য দিয়ে জামায়াতের সঙ্গে জোটগত সম্পর্কের সমাপ্তি ঘটায়। যদিও দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে সরকার পতনের আন্দোলনের লক্ষ্যে যুগপৎ আন্দোলনে যুক্ত হয় জামায়াত। নির্বাচনের পর জামায়াত ও বিএনপির শীর্ষ নেতাদের একাধিকবার যোগাযোগ হয়েছে।

সোমবার ওবায়দুল কাদের বিএনপি মহাসচিবের সমালোচনা করে উল্লেখ করেন, ‘জামায়াত নিয়ে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের বক্তব্যে যে বিষয়টি উঠে এসেছে, তা সুস্পষ্টভাবে অবৈজ্ঞানিক ও অযৌক্তিক। জামায়াতের রাজনীতি বাংলাদেশের মূল চেতনা, মহান মুক্তিযুদ্ধের আদর্শ ও স্বাধীনতার মূল্যবোধ পরিপন্থি। রাজনীতির এই ধারা বারবার দেশবিরোধী হিসেবে প্রমাণিত হয়েছে। একজন দেশপ্রেমিক নাগরিক কখনোই ৩০ লাখ শহীদের রক্তে রচিত সংবিধান ও রাষ্ট্রের মৌলিক চেতনাবিরোধী রাজনীতিকে কোনোভাবেই স্বীকৃতি দিতে পারে না। যাদের রাজনীতি দেশের ভিত্তিমূলে আঘাত হানে, তাদের কৌশল কখনও বিজ্ঞানসম্মত বা যৌক্তিক হতে পারে না।’

ওবায়দুল কাদেরের এই বক্তব্যের পর মির্জা ফখরুল মঙ্গলবার (৪ জুন) চট্টগ্রামে বক্তব্য দিলেও এ প্রসঙ্গে কথা বলেননি। এদিন রাত ৮টার কিছু আগে ওবায়দুল কাদেরের বক্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়ে সামনে এসেছেন জামায়াতের সেক্রেটারি জেনারেল মিয়া গোলাম পরওয়ার। তিনি ক্ষমতাসীন দলের সাধারণ সম্পাদকের বক্তব্যকে ‘প্রতিহিংসামূলক, অযৌক্তিক ও অসৌজন্যমূলক’ বলে মনে করেন।

পরওয়ার আরও বলেন, ‘স্বাধীনতাবিরোধী ও সাম্প্রদায়িক শক্তি হিসেবে অভিহিত করে জনাব ওবায়দুল কাদের জামায়াতে ইসলামী সম্পর্কে যে অবান্তর বক্তব্য দিয়েছেন, তা অসত্য এবং রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত।’

উল্লেখ্য, মুক্তিযুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধের কারণে এরইমধ্যে জামায়াতের সাবেক আমির মতিউর রহমান নিজামী, সাবেক সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদ, সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল কাদের মোল্লা ও মুহাম্মদ কামারুজ্জামান, জামায়াতের নির্বাহী পরিষদের সদস্য মীর কাশেম আলীর ফাঁসি কার্যকর হয়েছে। সাজা ভোগ করা অবস্থায় মারা গেছেন সাবেক আমির গোলাম আযম ও নায়েবে আমির দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদী।

বিবৃতিতে জামায়াত সেক্রেটারি জানান, বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক আন্দোলনের সহযাত্রী হিসেবে বিএনপি ও জামায়াতে ইসলামীর রাজনৈতিক সম্পর্ক বিদ্যমান। তিনি বলেন, ‘১৯৮৩ সালে স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলন থেকে শুরু করে ২০২৪ সাল পর্যন্ত জামায়াত বাংলাদেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার আন্দোলনে জোরালো ভূমিকা পালন করছে। জনাব ওবায়দুল কাদেরের মনে থাকার কথা, স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনে ১৫ দল, ৭ দল ও জামায়াতে ইসলামীর ঘোষিত কর্মসূচি জনগণ স্বতঃস্ফূর্তভাবে পালন করেছে। সে সময় একই ইস্যুতে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি আন্দোলন করেছে।’

আওয়ামী লীগের সঙ্গে জামায়াতের একসঙ্গে আন্দোলন, আলোচনা, বৈঠকের বিষয়টি বিএনপির শীর্ষ পর্যায় থেকেও উঠে এসেছে একাধিকবার। ২০১৭ সালের ৯ এপ্রিল রাজধানীর গুলশানে একটি অনুষ্ঠানে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ‘আওয়ামী লীগের সঙ্গে জামায়াতের সম্পর্ক প্রমাণে এরশাদের শাসনামলে ১৯৮৬ সালে প্রথম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দল দুটির অংশগ্রহণের’ তথ্য তুলে ধরেন। সেখানে তিনি বলেন, এরশাদের সঙ্গে আঁতাত করে আওয়ামী লীগ ’৮৬ সালে নির্বাচনে গিয়েছিল। আমরা যাইনি। তারা (আওয়ামী লীগ) তখন সঙ্গী খুঁজে পায় না। একলা গেলে খারাপ দেখায়, সেজন্য জামায়াতে ইসলামীকে সঙ্গে নিয়ে নির্বাচনে গেলো।’

এর আগে ২০১৪ সালের ২৪ অক্টোবর বিডিনিউজটোয়েন্টিফোরডটকমে প্রকাশিত একটি সংবাদে বলা হয়, টাইমস অব ইন্ডিয়াকে এক সাক্ষাৎকারে খালেদা জিয়া বলেছেন, ‘জামায়াত-আওয়ামী লীগ সম্পর্ক ঐতিহাসিক’। মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতাকারী জামায়াতে ইসলামীসহ অন্য ‘উগ্র ধর্মীয় সংগঠনের' সঙ্গে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের ‘ঘনিষ্ঠ সম্পর্কের দীর্ঘ ইতিহাস’ রয়েছে।’ তৎকালীন জোট সম্পর্কে বিএনপি নেত্রীর ভাষ্য ছিল, ‘জামায়াতের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক শুধু একটি নির্বাচনি সমঝোতা। এখানে আদর্শের কোনও ব্যাপার নেই। বিএনপি সবসময়ই ‘নিজস্ব নীতিতেই’ চলবে।’

বিএনপি চেয়ারপারসনের মতো বিগত বেশ কয়েক বছর ধরে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মির্জা আব্বাস, ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু, ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদুর বক্তব্যে জামায়াত সম্পর্কে নানা বিষয় উঠে আসে।

বিশেষ করে ২০১৮ সালে ২০ দলীয় জোট অবলুপ্তির পর থেকেই উভয়পক্ষের মধ্যে শীতলতা আসে। মির্জা ফখরুল ইসলাম ও ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকুর বক্তব্যের প্রতিবাদে বিবৃতি দিয়ে প্রতিবাদ করেছিল জামায়াত।

২০২২ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর ‘আওয়ামী লীগের সঙ্গে জামায়াতের পরকীয়া চলছে কিনা’—এ প্রশ্নও তোলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু। তার এই বক্তব্যের পরদিন ২৭ সেপ্টেম্বর প্রতিবাদ জানায় জামায়াত। মুক্তিযুদ্ধবিরোধী এই দলটির সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল আবদুল হালিম বিবৃতিতে উল্লেখ করেন, ‘ইকবাল হাসান মাহমুদ জামায়াতে ইসলামী সম্পর্কে রাজনৈতিক শিষ্টাচারবহির্ভূত যে অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ বক্তব্য প্রদান করেছেন, তা দেশবাসীকে বিস্মিত করেছে।’

২০২৩ সালের ৩০ জুন ঈদের সময় বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ঠাকুরগাঁওয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেছিলেন, ‘সরকারের সঙ্গে যোগাযোগ তো স্পষ্ট হয়ে গেছে। সরকারের লোকেরাই বলছে, অন্যরাও বলছে। আমাদের সঙ্গে সব রাজনৈতিক দলের কমবেশি সম্পর্ক থাকবেই। কারণ আমরা তো মানুষের, জনগণের অধিকার নিয়ে আন্দোলন করছি।’

মির্জা ফখরুলের এই বক্তব্যের পরদিন ১ জুলাই জামায়াতের ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারি জেনারেল মাওলানা এটিএম মা’ছুম বলেন, ‘জামায়াতে ইসলামী কোনও ফ্যাসিস্ট, স্বৈরাচার ও জালেমের সঙ্গে আঁতাত, সমঝোতা বা যোগাযোগ করে কখনও রাজনীতি করে না। করার প্রশ্নই আসে না।’ পরে এ বিষয়ে মির্জা ফখরুল বাংলা ট্রিবিউনকে বলেছেন, ‘পুরো বিষয়টিতেই মিস আন্ডারস্ট্যান্ডিং হয়েছে। আমার  বক্তব্য গণমাধ্যমে সঠিকভাবে উদ্ধৃত করা হয়নি।’

যদিও গত বছরের শেষ দিকে এসে বিএনপি ও জামায়াতের নেতাদের এই বিরোধ রূপ নেয় ভিন্নমাত্রায়। এবার জামায়াতকে আশ্বস্ত করতে দলের নেতাদের বিরুদ্ধেই বিবৃতি ইস্যু করে বিএনপি। ওই বছরের ৭ নভেম্বর ভারতীয় ইংরেজি দৈনিক ‘দ্য হিন্দু’তে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীকে নিয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু বলেন, ‘বিএনপি একটি ধর্মনিরপেক্ষ রাজনৈতিক দল, যারা “ইসলামের রাজনৈতিক ব্যবহারের” বিরোধিতা করে। বিএনপি একটি উদার গণতান্ত্রিক দল। ভারতের মতো গণতান্ত্রিক দেশে রাজনৈতিক জোট যেভাবে হয়, ঠিক সেভাবে জামায়াতের সঙ্গে আমাদের জোট ছিল। সেটা এখন অতীত। প্রশ্নটা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার। কেন তিনি জামায়াতকে নিষিদ্ধ করেননি, তার জবাব দেওয়া উচিত।’

ইকবাল হাসানের এই বক্তব্যের পর ক্ষুব্ধ হয় জামায়াত ও বিএনপির দক্ষিণপন্থি অংশের নেতারা। তাদের চাপে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নির্দেশে বিবৃতি ইস্যু করেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী। তিনি বিবৃতিতে লিখেন, “ভারতীয় একটি ইংরেজি দৈনিক ‘দ্য হিন্দু’তে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে দলের জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু সেক্যুলারিজম, পলিটিক্যাল ইসলাম সম্পর্কে যে বক্তব্য দিয়েছেন তা এবং বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী সম্পর্কিত যে মতামত দিয়েছে, সেসব বক্তব্য এবং মতামত একান্তই তার নিজস্ব, এর সঙ্গে দলের কোনও সম্পৃক্ততা নেই।”

/এসটিএস/ইউএস/
সম্পর্কিত
‘কাশ্মির-সমস্যা সমাধানে’ ইরানের নতুন প্রেসিডেন্টের ভূমিকা চায় জামায়াত
আদালতে হাজিরা দিয়ে ফেরার পথে বিএনপি-জামায়াতের দুই নেতার মৃত্যু
শিবিরকে মসজিদমুখী তৎপরতা চালাতে জামায়াত সেক্রেটারির নির্দেশ
সর্বশেষ খবর
বৃহস্পতিবার সাধারণদের জন্য মার্কিন দূতাবাস বন্ধ থাকবে
কোটা আন্দোলনবৃহস্পতিবার সাধারণদের জন্য মার্কিন দূতাবাস বন্ধ থাকবে
‘কমপ্লিট শাটডাউনে’ বাম জোটের সমর্থন
‘কমপ্লিট শাটডাউনে’ বাম জোটের সমর্থন
‘কমপ্লিট শাটডাউনে’ সমর্থন দিলো যেসব দল
‘কমপ্লিট শাটডাউনে’ সমর্থন দিলো যেসব দল
শিক্ষার্থীদের ধন্যবাদ জানিয়েছে ঢাবি কর্তৃপক্ষ
শিক্ষার্থীদের ধন্যবাদ জানিয়েছে ঢাবি কর্তৃপক্ষ
সর্বাধিক পঠিত
আমার প্রাণের বাংলাদেশ এভাবে রক্তাক্ত হতে পারে না: শাকিব খান
আমার প্রাণের বাংলাদেশ এভাবে রক্তাক্ত হতে পারে না: শাকিব খান
সারা দেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ ঘোষণা আন্দোলনকারীদের
সারা দেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ ঘোষণা আন্দোলনকারীদের
ঢাবি ছাত্রলীগের সভাপতি-সম্পাদকের রুমে ভাঙচুর
ঢাবি ছাত্রলীগের সভাপতি-সম্পাদকের রুমে ভাঙচুর
থমথমে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস 
থমথমে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস 
অস্তিত্বে হামলা এসেছে, ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে প্রস্তুত হয়ে যান: ওবায়দুল কাদের
অস্তিত্বে হামলা এসেছে, ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে প্রস্তুত হয়ে যান: ওবায়দুল কাদের