জনগণ হরতাল প্রত্যাখ্যান করেছে: আ.লীগ

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৪:২৬, ফেব্রুয়ারি ০২, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৫:২৮, ফেব্রুয়ারি ০২, ২০২০

জাহাঙ্গীর কবির নানকঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচনের ফল প্রত্যাখ্যান করে বিএনপির ডাকা হরতাল জনগণ ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করেছে বলে দাবি করেছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ।

রবিবার (২ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর ধানমন্ডিতে দলের সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এই দাবি করেন দলটির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক।

নানক বলেন, ‘বিএনপির হরতাল জনগণ ঘৃণাভ‌রে প্রত্যাখ্যান ক‌রে‌ছে। একটি সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার পরও তাদের ফল প্রত্যাখ্যান ও হরতাল আহ্বান দেশবাসীকে হতাশ-বিক্ষুব্ধ করেছে। জনগণ নির্বাচনে বিএনপিকে যেভাবে প্রত্যাখ্যান করেছে, আজ বিএনপির হরতালও একইভাবে বর্জন করেছে। এরপরও যদি বিএনপি নেতিবাচক রাজনীতি পরিহার না করে, তাহলে তাদের দল জনগণ থেকে আরও বিচ্ছিন্ন হবে এবং প্রত্যাখ্যাত হয়ে নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে।’

তিনি বলেন, ‘হরতাল কালচার বাংলার জনগণ বর্জন করেছে। রাস্তাঘাটে যানবাহন সবকিছুই স্বাভাবিক। এর মাধ্যমে প্রমাণ হলো—বিএনপি যে ভুলের রাজনীতি করে, জনগণ সেই রাজনীতি প্রত্যাখ্যান করেছে। এই ভুলের রাজনীতির কারণে মানুষ ভোটকেন্দ্রে আসার প্রবণতা কমিয়ে দিয়েছে।’

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর অন্যতম এই সদস্য আরও বলেন, ‘ভোট পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে না পারায়, জনগণের রায় বর্জনের মধ্য দিয়ে বিএনপি পক্ষান্তরে গণতন্ত্রকে বর্জন করেছে। অতীতের মতো কোথাও কোনও জাল ভোট দেওয়া কিংবা কেন্দ্র দখল, ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ার ঘটনা ঘটেনি। তারপরও বিএনপি বিরোধিতার খাতিরে বিরোধিতা করে মিথ্যা অভিযোগে ফল বর্জনের নাটক করে, নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করার অপতৎপরতা চালাচ্ছে।’

নির্বাচনে কম ভোটার উপস্থিতির বিষয়ে কথা বলতে গিয়ে জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, ‘এর কারণ বিএনপি নির্বাচনবিরোধী চরিত্র। নির্বাচনি প্রচারণার শুরু থেকে বিএনপির নেতারা ও তাদের প্রার্থীরা ভোটারদের মধ্যে ভীতি সঞ্চার হয় এমন ধরনের বক্তব্য দিয়ে আসছেন। বিএনপির আচরণ দেখে মনে হয়েছে, তারা জয়ের জন্য নয় বরং নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করা এবং নির্বাচন সম্পর্কে জনগণের মধ্যে ভীতি সঞ্চারের জন্য নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছে।’

ভবিষ্যতে ইভিএম সম্পর্কে জনগণকে অবহিত করার জন্য আরও প্রচার-প্রচারণা চালানো প্রয়োজন উল্লেখ করেন তিনি। একইসঙ্গে ভবিষ্যতে স্থানীয় সরকার নির্বাচনের সময় গণপরিবহন বন্ধের সিদ্ধান্তটিও পুনর্বিবেচনা করা যায় কিনা, সে বিষয়ে আলোচনার আহ্বান জানান নানক।

বিজয় মিছিল বা উৎসব না করতে দলীয় প্রধান শেখ হাসিনার নির্দেশনা জানিয়ে জনগণের সেবায় প্রার্থী ও নেতাকর্মীদের আত্মনিয়োগ করার আহ্বান জানান জাহাঙ্গীর কবির নানক।

সংবাদ সম্মেলনে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, বিএম মোজাম্মেল হক, অ্যাডভোকেট আফজাল হোসেন, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ, দফতর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, শিক্ষা ও মানবসম্পদ সম্পাদক শামসুন্নাহার চাপা, উপ-দফতর সম্পাদক সায়েম খান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

/এমএইচবি/এপিএইচ/এমএমজে/

লাইভ

টপ