‘ঘরে বসে জুম মিটিংয়ে, টেলিভিশনে উঁকি দেয় বিএনপি’

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৭:৪০, আগস্ট ০৮, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৭:৪৭, আগস্ট ০৮, ২০২০

তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ (ছবি: ফোকাস বাংলা)আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, ‘বিএনপি ঘরে বসে জুম মিটিংয়ে, টেলিভিশনে উঁকি দেয়। তারা (বিএনপি) ঘর থেকে বের হয় না। যারা ঘরের মধ্যে বসে উঁকি দেয়, সরকারের সমালোচনা করেন তাদেরকে বলবো, ঘরে বসে উঁকি দিয়ে সরকারের সমালোচনা করবেন না। জনগণের পাশে দাঁড়ান।’

শনিবার (৮ আগস্ট) দুপুরে বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের ৯০তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে কৃষক লীগে আয়োজিত আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলের প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এই কথা বলেন। রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ের আওয়ামী লীগের দলীয় প্রধান কার্যালয়ে আলোচনা সভাটি অনুষ্ঠিত হয়।

বিএনপিকে কৃষক লীগ থেকে শেখার আহ্বান জানিয়ে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আপনারা কৃষক লীগ থেকে শিখুন। ধান কাটার সময় কৃষক লীগ ধান কেটেছে। বিএনপিকে দেখা যায়নি। শুধু কেটেছে তা নয়, মাথায় নিয়ে সেই ধান বাড়িতে দিয়ে এসেছে। এই কাজটি তো বিএনপি করে নাই। আজকে প্রধানমন্ত্রী একটি দিনও ঘরে বসে নেই। তিনি সরকারের বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা করছেন। দলের কার্যক্রম পরিচালনা করছেন। তার সঠিক নেতৃত্বে কারণে সরকার আল্লাহর রহমতে করোনাভাইরাসকে নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়েছে। আমরা সঠিকভাবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চললে ভবিষ্যতে পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণ করতে পারবো। আসুন এক সঙ্গে দেশটাকে গড়ে তুলি। আমরা আপনাদেরকেও আহ্বান জানাই।’

বক্তব্যের শুরুতে ১৫ আগস্টে নিহত সকলের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানান তথ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সংসার পেতে ছিলেন কিন্তু সংসার করেননি। তিনি সংসার হিসেবে বেছে নিয়েছিলেন এই পুরো জাতিকে। বাঙালি জাতি ছিল তার সংসার। আর সেই সংসারকে ধরে রেখেছিলেন বঙ্গমাতা শেখ ফজিল্লাতুন্নেসা। শুধু সংসার ধরে রেখেছিলেন তা নয়, বঙ্গমাতা শেখ ফজিল্লাতুন্নেসা বঙ্গবন্ধু যখন জেলে থাকতেন তখন দলটাকে ধরে রেখেছেন। বঙ্গবন্ধুর জীবনে গুরুত্বপূর্ণ মুহূর্তে গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ এসেছে বঙ্গমাতা শেখ ফজিল্লাতুন নেসার কাছ থেকে।’

হাছান মাহমুদ আরও বলেন, ‘গত কয়েক দশকে আমাদের অনেক নেতা শেখ হাসিনার কাছ থেকে দূরে সরে গেছেন। এটা বঙ্গবন্ধুর সময় হয়েছিল। তখন বঙ্গমাতা সঠিক পরামর্শ দিয়েছেন। বাংলার ইতিহাস লিখতে গেলে যেমন বঙ্গবন্ধুর ইতিহাস লেখা হয়ে যায়। তেমনি বঙ্গবন্ধুর জীবন লিখতে হলে, অবদান লিখতে হলে চলে আসে বঙ্গমাতা শেখ ফজিল্লাতুন্নেসা।’

কৃষক লীগের সভাপতি সমীর চন্দের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে আরও বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী। আলোচনা সভা পরিচালনা করেন কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক উম্মে কুলছুম স্মৃতি। আলোচনা সভা শেষে এক দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। তারপর প্রধান অতিথি আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ সকল আমন্ত্রিত অতিথিকে সঙ্গে নিয়ে কেক কেটে জন্মদিন উদযাপন করেন।

/এমএইচবি/এনএস/

লাইভ

টপ