জমকালো আয়োজনে উৎসব মুখর ইডেন

Send
রবিউল ইসলাম, কলকাতা থেকে
প্রকাশিত : ২৩:৩৬, নভেম্বর ২২, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ২৩:৪৭, নভেম্বর ২২, ২০১৯

বিশেষ স্মারক হাতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গোলাপি বলেও পুরনো অভ্যাস বদলাতে পারলো না বাংলাদেশ! ইন্দোরের মতো কলকাতাতেও দেখা মিললো ব্যাটিং ব্যর্থতার। গত কয়েকটা দিন গোলাপি রঙের আভা ছিল ইডেনে, সেই আভা গায়ে মেখেই দিবা-রাত্রির টেস্টে মাঠে নেমেছিল বাংলাদেশ।

সবার প্রত্যাশা ছিল নতুন বলে হয়তো ভাগ্য বদলাবে। তা আর হয়নি। গোলাপি বলের রোমাঞ্চ প্রথম সেশনের প্রথম ঘণ্টা যেতেই মিলিয়ে গেছে। তবে বাংলাদেশের ব্যাটিংটা বাদে দিনের পুরো সময় উপভোগ করেছেন গ্যালারিতে বসা সমর্থকরা। কারণ সারাদিনই জমকালো আয়োজনে উৎসব মুখর ছিল ইডেন গার্ডেনস। ‍

বেলা ১টায় ক্রিকেটারদের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির পরিচিতি পর্ব দিয়ে শুরু হয়েছিল গোলাপি বলের উৎসব। শেষটা হয়েছে জিৎ গাঙ্গুলীর গানে।

এসময় তাদের সঙ্গে ছিলেন বিসিসিআই সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলী, বিসিবি প্রধান নাজমুল হাসান, শচীন টেন্ডুলকার, বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী একে আব্দুল মোমেনসহ অন্যরা। মাঠে তাদের সঙ্গী ছিলেন ২০০০ সালে বাংলাদেশের অভিষেক টেস্টের সদস্যরা। আনুষ্ঠানিকতা শেষে এরপরই ইডেনের বিখ্যাত ঘণ্টা বাজিয়ে ঐতিহাসিক গোলাপি বলের টেস্টের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। 

আয়োজনের এখানেই শেষ ছিল না। চা বিরতির পর   ‘ল্যাপ অব অনার’ দেওয়া হয় ভারতের কিংবদন্তি ক্রিকেটারদের। সেখানে শচীন টেন্ডুলকার থেকে শুরু করে সাবেক অধিনায়ক মোহাম্মদ আজহারউদ্দিন, রাহুল দ্রাবিড়, কপিল দেব, অনিল কুম্বলে, কৃষ্ণমাচারি শ্রীকান্ত ও দিলীপ ভেংসরকারও ছিলেন।

প্রথম টেস্টের প্রথম দিন শেষেই মূলত মূল আকর্ষণ ছিল স্টেডিয়ামে। শুরুতে জনপ্রিয় সঙ্গীত শিল্পী রুনা লায়লা সঙ্গীত পরিবেশন করেন। এরপর ২০০০ সালে অভিষেক টেস্ট খেলা ক্রিকেটারদের সংবর্ধনা দেওয়া হয় মাঠে। সেখানে বাদ যায়নি ভারতের কিংবদন্ততি সাবেক ক্রিকেটাররাও। বাংলাদেশের বর্তমান দল ও ভারতের বর্তমান দলকেও সম্মাননা দেওয়া হয় তখন। বাংলাদেশ দল পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীর কাছ থেকে সম্মাননা গ্রহণ করেন। অন্যদিকে ভারতীয় ক্রিকেটারদের হাতে সম্মাননা তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রীর হাতেও দেওয়া হয় বিশেষ সম্মাননা স্মারক।

এই পর্ব শেষ হতেই  একে একে সৌরভ গাঙ্গুলী, শচীন টেন্ডুলকার, মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বক্তব্য রাখেন। সর্বশেষ জিৎ গাঙ্গুলীর দুটি গানের মাধ্যমে জমকালো উৎসবের ইতি ঘটে।

/এফআইআর/

লাইভ

টপ