‘বারবারই মনে হচ্ছে, আমি খেললে সোনা জেতার সম্ভাবনা তৈরি হতো’

Send
তানজীম আহমেদ
প্রকাশিত : ২২:০২, ডিসেম্বর ০৫, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ২২:০৫, ডিসেম্বর ০৫, ২০১৯

দলীয় ইভেন্টে চোট পেয়ে প্রিয়াকে যেতে হয়েছিল হাসপাতালেএখনও আফসোস যাচ্ছে না মারজান আক্তার প্রিয়ার। একটু সাহস করে এগোলেই ফাইনালে লড়াই করতে পারতেন। তাতে অন্তত আরও একটি সোনার পদক জেতার সম্ভাবনা তৈরি হতো বাংলাদেশের। কিন্তু ইনজুরি তা হতে দেয়নি। মেয়েদের কারাতের ৫৫ কেজি এককে প্রিয়া সোনা জিতলেও দলীয় বিভাগে পারেননি। ফাইনালে লড়াইয়ের আগে শ্রীলঙ্কান প্রতিযোগীর আঘাতে হাসপাতালে যেতে হয়েছিল তাকে, সেখানেই শুনেছেন রুপা জয়ের খবর।

বুধবার বিকেলে হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র পান প্রিয়া। আর আজ (বৃহস্পতিবার) সন্ধ্যায় তিনি সহ কারাতে দল দেশে ফিরেছে। প্রাপ্তির খাতায় বড় অর্জন যোগ হলেও দেশে ফিরে আরেকটি সোনা না জেতার আক্ষেপ যাচ্ছে না তার। বাংলা ট্রিবিউনকে প্রিয়া বলেছেন, ‘দেশের হয়ে এককে সোনা জিতে অনেক খুশি। চেয়েছিলাম দলীয় ইভেন্টেও সোনা জিতবো। কিন্তু ইনজুরির কারণে হয়নি। আমি ফাইনালে থাকতে পারলে হয়তো সোনার পদক জেতার সুযোগ থাকতো। কিন্তু তা হলো না। এখন এটা ভেবে অনেক খারাপ লাগছে। বারবারই মনে হচ্ছে, আমি খেললে সোনা জেতার সম্ভাবনা তৈরি হতো।’

বুধবার শ্রীলঙ্কান প্রতিযোগীর আঘাতে কাঠমান্ডুর হাসপাতালে ভর্তি হলেও প্রিয়া চেয়েছিলেন খেলা চালিয়ে যেতে। যে করেই হোক দেশকে আরও একটি সোনার পদক এনে দেওয়ার লক্ষ্য ছিল তার। কিন্তু ডাক্তারের পরামর্শে আর ম্যাটেই ফেরা হয়নি তার। সেই মুহূর্তের বর্ণনা দিলেন প্রিয়া এভাবে, ‘আমার কাছে মনে হয়েছে, ইনজুরির অবস্থা ভয়াবহ ছিল না। কিন্তু ডাক্তারের পরামর্শে আর খেলতে পারিনি। যদিও আমি খেলতে চেয়েছিলাম।’

এখন পর্যন্ত নেপালের এসএ গেমসে বাংলাদেশের জেতা চারটি সোনার মধ্যে তিনটি এসেছে কারাতে থেকে। এবার কাঠমান্ডু যাওয়ার আগে এই ডিসিপ্লিনের সবাই পণ করেছিলেন, দেশকে সোনা এনে দেওয়ার। প্রিয়ার ভাষায়, ‘আমরা সবাই আত্মবিশ্বাসী ছিলাম, কাঠমান্ডুতে সোনা জিতবো। আমরা তিনজন তো সোনা জিতেছি। বাকি সবাইও চেষ্টা করেছে। হয়তো একটু ভুলের কারণে হয়ে ওঠেনি। আসলে দেশের জন্য কিছু করতে পেরে আমাদের সবারই ভালো লাগছে।’

সাড়ে তিন বছরের কারাতে ক্যারিয়ারে এসএ গেমসের পদকটি প্রিয়ার জন্য বিশেষ কিছু, ‘এমনিতে আমি ছোটবেলা থেকে সব রকমের খেলাধুলা করেছি। একপর্যায়ে কারাতের সঙ্গে যুক্ত হই। তখন থেকেই স্বপ্ন দেখেছি আন্তর্জাতিক অঙ্গনে সাফল্য পেতে হবে। এসএ গেমসে এসে সোনা জেতার মাধ্যমে সেই স্বপ্ন পূরণ হয়েছে।’

/কেআর/

লাইভ

টপ