অলরাউন্ড নৈপুণ্যে সিরিজে সমতা ক্যারিবীয়দের

Send
স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত : ১৩:০০, জানুয়ারি ২০, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৩:৫৭, জানুয়ারি ২০, ২০২০

ম্যাচসেরা ইনিংস খেলেছেন সিমন্স।দ্বিতীয় ম্যাচ ভেসে গিয়েছিল বৃষ্টিতে। কাইরন পোলার্ড ক্যারিয়ার সেরা বোলিং করলেও বৃথা গেছে তা। তবে তৃতীয় ও শেষ টি-টোয়েন্টিতে অলরাউন্ড নৈপুণ্যে আয়ারল্যান্ডকে ৯ উইকেটে হারিয়ে তিন ম্যাচের সিরিজ ১-১ সমতায় শেষ করেছে স্বাগতিকরা।

সেন্ট কিটসে রবিবারও বৃষ্টি ঝরেছে সারা দিন। আইরিশদের ইনিংসের শুরুতেও ব্যাঘাত ঘটিয়েছিল বৃষ্টি। ভাগ্যভালো যে আগেই থেমে গেছে তা। নাহলে প্রথম ম্যাচ আইরিশরা জিতে যাওয়ায় সিরিজ হারের স্বাদ পেতে হতো ক্যারিবীয়দের।

টস জিতে এই ম্যাচেও আইরিশদের ব্যাটিংয়ে পাঠিয়েছিলেন পোলার্ড। শুরুতে মনে হচ্ছিল ক্যারিবীয় অধিনায়কের বোলিংয়ের সিদ্ধান্তটি সঠিক ছিল না। কেভিন ও’ ব্রায়েন ও পল স্টার্লিংয়ের উড়ন্ত সূচনায় আভাসও ছিল তেমন। চার ওভারেই এই জুটিতে আসে ৫০ রান। একটা সময়তো প্রথম ম্যাচের বিধ্বংসী সূচনারই আভাস মিলতে থাকে। কিন্তু ৩৬ রানে ব্যাট করতে থাকা ও’ব্রায়েনকে তালুবন্দী করিয়ে বিপজ্জনক জুটি ভেঙেছেন পোলার্ড। ও’ব্রায়েন ফিরেছেন ১৮ বলে ৩৬ রান করে। যার ইনিংসে ছিল ৬টি চার ও ১টি ছয়।

এর পর বৃষ্টির কারণে খেলা বন্ধ থাকে ৪৫ মিনিট। এই বৃষ্টিই মোমেন্টাম পাল্টে দেয় আইরিশদের। খেলা শুরুর পর পঞ্চম ওভারে ডোয়াইন ব্রাভোর বলে ফিরে যান পল স্টার্লিংও (১১)। অ্যান্ড্রু বালবার্নি (২৮) ও গ্যারেথ ডেলানি (৬) ১৯ রানের জুটিতে সম্ভাবনা জাগান বিপদ কাটানোর। পোলার্ড আবারও আক্রমণ হানলে ধস নামে সফরকারীদের ইনিংসে। ৬ ওভারে ৩৪ রানে বাকি ৬ উইকেট হারায় আয়ারল্যান্ড। ১৯.১ ওভারে সবকটি উইকেট হারিয়ে করতে পারে ১৩৮ রান।  

আগের ম্যাচে ২৫ রানে ৪ উইকেট নেওয়া পোলার্ড এদিনও দারুণ বোলিং করেছেন। ১৭ রানের বিনিময়ে নিয়েছেন ৩ উইকেট। ১৯ রানে ৩টি নিয়েছেন ডোয়াইন ব্রাভো। একটি করে নিয়েছেন রোমারিও শেফার্ড ও শেফানে রাদারফোর্ড।

জয়ের লক্ষ্যে খেলতে নেমে আইরিশদের ওপর আগ্রাসন চালিয়ে খেলেছেন দুই ওপেনার লিন্ডল সিমন্স ও এভিন লুইস। আইরিশ বোলারদের পাত্তা না দিয়ে ওপেনিং জুটিতে উঠে আসে ১৩৩ রান। ১১তম ওভারে লুইস ২৫ বলে ৪৬ রান করে ফিরলেও একই ওভারে জয় নিশ্চিত করে ক্যারিবীয়রা। লুইসের ইনিংসে ছিল ৪টি চার ও ৩টি ছয়।

অপরপ্রান্তে সবচেয়ে বেশি বিধ্বংসী ছিলেন সিমন্স। ৪০ বলে ৯১ রানে অপরাজিত থেকেছেন। ৫টি চারের সঙ্গে তার ইনিংসে ছিল ১০টি ছয়! ৫৪ বল হাতে রেখে জয় নিশ্চিত করেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ম্যাচসেরা হয়েছেন লেন্ডল সিমন্স, আর সিরিজসেরা কাইরন পোলার্ড।

/এফআইআর/

লাইভ

টপ