বিজ্ঞাপনের ভাষাতেই আকুতিটা বুঝিয়েছেন সাকিব

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৯:৫১, জানুয়ারি ২২, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৯:৫৬, জানুয়ারি ২২, ২০২০

কথা বলছেন সাকিব আল হাসান‘আমি সাকিব আল হাসান, এই ২২ গজই আমার ঠিকানা। কঠিন সময় যাচ্ছে, কিন্তু ফিরবো আরও কঠিন হয়ে। চেষ্টা করে চলেছি, রাত-দিন অবিরাম। লাল-সবুজ গায়ে মাঠে ফিরতে। আর এই কয়দিন এগারো জনের দলে না থাকলেও আছি টাইগারদের সঙ্গে, সবচেয়ে বড় সমর্থক হয়ে। মনে একটাই স্লোগান খেলবে টাইগার, জিতবে টাইগার। সাথে আছেন তো? -এটি  লাইফবয়ের নতুন বিজ্ঞাপনচিত্রে সাকিবের সংলাপ। যেখানে স্পষ্টভাবেইে এই সময়ের সাকিবের ভাবনা ফুটে উঠেছে।  

একের পর এক সিরিজ খেলছে বাংলাদেশ, কিন্তু সেখানে নেই বাংলাদেশের সেরা ক্রিকেটার! প্রথমবারের মতো ভারতের বিপক্ষে খেলে আসা বাংলাদেশের পূর্ণাঙ্গ সিরিজেও ছিলেন না সাকিব। দীর্ঘদিন পর পাকিস্তানে খেলতে যাচ্ছে বাংলাদেশ, সেখানেও নেই সাকিব। স্পট ফিক্সিংয়ের প্রস্তাব গোপন করায় এক বছরের নিষেধাজ্ঞা পাওয়া সাকিব ইতিমধ্যে তিন মাস কাটিয়ে ফেলেছেন। সবকিছু ঠিক থাকলে আগামী অক্টোবরে নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ শেষে মাঠে ফিরবেন।  বিশ্বকাপে ব্যাটে-বলে আলোর ঝলকানি দেওয়া সাকিব কি পারবেন, আবারো শক্তভাবে ফিরে আসতে?

বিজ্ঞাপন চিত্রে শক্তভাবে ফিরে আসার কথা বললেও সাংবাদিকদের প্রশ্নে সময়ের হাতেই নিজের ফিরে আসার বিষয়টি ছেড়ে দিয়েছেন, ‘এর জন্য আপনাদের অপেক্ষা করতে হবে আমি ফিরে আসা পর্যন্ত। এখন হয়তো বললাম, আমি অনেক কিছু করছি। কিন্তু শেষ পর্যন্ত ভালো হলো না, তখন কারো কাছেই সেটা গ্রহণযোগ্য হবে না। অপেক্ষা করেন, সব ঠিকঠাক থাকলে উত্তর সময়ই দেবে।’

ক্রিকেটার হলে সবাই ক্রিকেটের মধ্যেই থাকতে চাইবেন। কিন্তু সাকিব, যিনি বাংলাদেশের সেরা খেলোয়াড়, সব সংস্করণেই দীর্ঘসময়ের জন্য কয়েকবারের বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার, অনেকদিন ক্রিকেটে নেই। ক্রিকেটটাকে কতটা মিস করছেন, এমন প্রশ্নের জবাবে সাকিবের উত্তর বেশ নির্লিপ্ত, ‘একটা জিনিসের সঙ্গে যদি আপনার সম্পৃক্ততা থাকে সেটা আপনার পছন্দের হোক বা না হোক আপনি সেটাকে মিস করবেন এটা খুবই স্বাভাবিক। আমার ক্ষেত্রেও ভিন্ন কিছু না।’

ক্রিকেটে নিষিদ্ধ থাকায় ক্রিকেটেরে বাইরের জীবনযাপন নিয়ে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন সাকিব। বিভিন্ন কোম্পানির সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হওয়ার পাশাপাশি নিজের মতো করে সময় কাটাচ্ছেন। স্বাভাবিকভাবেই উঠলো সাকিবের ক্রিকেটের বাইরের জীবন কাটানো প্রসঙ্গ, ‘সবকিছু বাদ দিয়ে যেহেতু একটা কাজের সঙ্গে জড়িত ছিলাম, এখন যেহেতু কাজটা নেই, অন্য সব কাজ করার সুযোগ হচ্ছে।  এর বাইরে অন্য কিছু আমি খুব একটা শেয়ার করতে চাই না। যদি ওরকম কোনও পরিস্থিতি আসে তখন যদি মনে হয় শেয়ার করবো। নয়তো এসব ব্যাপারে আমি স্বচ্ছন্দবোধ করব না।’

সাকিব নিষিদ্ধ হওয়ার পরও তার প্রতি ভক্তদের ভালোবাসা বিন্দুমাত্র কমেনি। সাকিব বলেছেন, এমন ভালোবাসাই সাকিবকে দায়বদ্ধ করেছে, ‘বাংলাদেশে একটি কথা প্রচলিতও আছে জীবিত থাকতে মর্মটা বোঝা যায় না। আমার ক্ষেত্রে যেটা হয়েছে আমি জীবিত থাকতে মর্মটা বুঝতে পারছি। আমি খুশি, যেহেতু সবার ভালোবাসা পাচ্ছি। এখানে আমার দায়িত্বটা বেড়ে যায় স্বাভাবিকভাবে। আমি চেষ্টা করব এই দায়িত্বটা পালন করতে।’

খেলার বাইরে থাকলেও টিমমেট থেকে শুরু করে কোচদের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ আছে সাকিবের, ‘অনেকের সঙ্গেই আমার নিয়মিত কথা হয়। প্রধান কোচের সঙ্গে কথা তো হয়ই। সব সময় কোচিং স্টাফের সঙ্গে কথা হলে যে খেলা নিয়েই হবে এমন না, কিন্তু অনেকের সঙ্গেই যোগাযোগ আছে।’

/আরআই/পিকে/

লাইভ

টপ