ব্রড-উড ঝড়ের পর বিপদে দক্ষিণ আফ্রিকা

Send
স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত : ২৩:০৬, জানুয়ারি ২৫, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ২৩:০৬, জানুয়ারি ২৫, ২০২০

দক্ষিণ আফ্রিকার আরেকটি উইকেটের পতন, ইংল্যান্ডের খেলোয়াড়দের উল্লাসব্যাট করছেন শেষ দুই ব্যাটসম্যান। প্রতিপক্ষের তখন চেপে ধরার কথা, ব্যাটসম্যানের চারপাশে থাকার কথা এক ঝাঁক ফিল্ডার। কিন্তু ওয়ান্ডারার্স স্টেডিয়ামে দেখা গেলো বিরল দৃশ্য। স্টুয়ার্ট ব্রড আর মার্ক উডের ব্যাটের আঘাতে দক্ষিণ আফ্রিকার আট ফিল্ডার সীমানার কাছাকাছি!

জোহানেসবার্গে শেষ টেস্টে এই দৃশ্যই যেন দুই দলের পার্থক্যের প্রতিচ্ছবি। টেলএন্ডারদের আক্রমণাত্মক ব্যাটিংয়ে প্রথম ইনিংসে ইংল্যান্ডের সংগ্রহ ৪০০ রান। জবাব দিতে নেমে যথারীতি বিপদে দক্ষিণ আফ্রিকা। দ্বিতীয় দিন শেষে প্রোটিয়াদের রান ৬ উইকেটে ৮৮। ২-১ ব্যবধানে এগিয়ে থাকা সফরকারীরা সিরিজ জয়ের আশা করতেই পারে।

বৃষ্টি আজও হানা দিয়েছিল ওয়ান্ডারার্সে, তবে ৪৫ মিনিটের বেশি অপেক্ষায় রাখতে পারেনি দর্শকদের। আগের দিন শেষে দুই অপরাজিত জো রুট আর ওলি পোপ ফিফটির পর বেশিদূর যেতে পারেননি। জস বাটলার করেছেন ২০ রান, স্যাম কারেন তো প্রথম বলেই আউট। বেশ স্বস্তিতেই ছিল স্বাগতিকরা।

কিন্তু শেষ দুই ব্যাটসম্যান যে এমন তাণ্ডব চালাবেন, কে জানতো? সিরিজে প্রথম খেলতে নামা ক্রিস ওকস ৩২ রান করে যখন ফিরলেন, স্কোর তখন ৩১৮/৯। তারপর শুরু ব্রড আর উডের ‘ঝড়’। বোলার-ফিল্ডারদের নাভিশ্বাস তুলে ৮২ রানের জুটি গড়েছেন দুজনে। ওয়ান্ডারার্সে এটাই রেকর্ড দশম উইকেট জুটি। মাত্র ২৮ বলে দুটি চার এবং চারটি ছক্কায় ব্রডের অবদান ৪৩ রান। ৩৯ বলে ৩৫ রানে অপরাজিত উড মেরেছেন তিনটি ছক্কা। টেস্ট ক্যারিয়ারের প্রথম ৫ উইকেট শিকার করলেও আইনরিখ নর্কিয়ার খরচ ১১০ রান।

ইংল্যান্ডের ইনিংসের ঠিক বিপরীত চেহারা দক্ষিণ আফ্রিকার। মন্থর ব্যাটিংয়ে টিকে থাকার চেষ্টা করলেও পতন ঠেকাতে পারছে না। প্রায় ১৯ ওভারের উদ্বোধনী জুটি ২৯ রানে ভেঙে যাওয়ার পর ব্যাটসম্যানদের আসা-যাওয়া শুরু।

দুই ওপেনার ডিন এলগার (২৬) আর পিটার মালান (১৫) তাও দুই অঙ্কের ঘরে যেতে পেরেছেন। অধিনায়ক ফাফ ডু প্লেসি (৩) আর টেম্বা বাভুমা (৬) সেটাও পারেননি। রাসি ফন ডার ডুসেন তো ফিরেছেন শূন্য হাতে। নর্কিয়াকে (৬) ‘নাইটওয়াচম্যান’ নামিয়ে লাভ হয়নি। কুইন্টন ডি কক অপরাজিত আছেন ৩২ রানে। ব্যাটিংয়ের পর বল হাতেও জ্বলে উঠে পেসার উডের শিকার ৩ উইকেট। 

সংক্ষিপ্ত স্কোর: দ্বিতীয় দিন শেষে

ইংল্যান্ড: প্রথম ইনিংস ৪০০ (ক্রলি ৬৬, সিবলি ৪৪, ডেনলি ২৭, রুট ৫৯, স্টোকস ২, পোপ ৫৬, বাটলার ২০, কারেন ০, ওকস ৩২, উড ৩৫*, ব্রড ৪৩; নর্কিয়া ৫/১১০, ফিল্যান্ডার ২/৫০, প্যাটারসন ২/৮৬, হেনড্রিক্স ১/১১১)

দক্ষিণ আফ্রিকা: প্রথম ইনিংস ৮৮/৬ (এলগার ২৬, মালান ১৫, ফন ডার ডুসেন ০, ডু প্লেসি ৩, ডি কক ৩২*, বাভুমা ৬, নর্কিয়া ৬; উড ৩/২১, কারেন ১/১১, ওকস ১/১৬, স্টোকস ১/২৭)

/এএআর/

লাইভ

টপ