ছোটদের বিশ্বজয় আমাদের অনুপ্রাণিত করবে: জাহানারা

Send
রবিউল ইসলাম
প্রকাশিত : ২২:১০, ফেব্রুয়ারি ২০, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ২২:১৩, ফেব্রুয়ারি ২০, ২০২০

জাহানারা আলম। আগামী ২৪ ফেব্রুয়ারি পার্থের ওয়াকায় ভারতের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে মুখোমুখি। এরপর একে একে অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড ও শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে খেলবে বাংলাদেশ নারী দল। আগের বিশ্বকাপগুলোতে প্রত্যাশা পূরণ করতে না পারলেও অস্ট্রেলিয়ায় ভিন্ন বাংলাদেশকে দেখা যাবে বলে প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন পেসার জাহানারা আলম। ভারতকে হারিয়ে অনূর্ধ্ব-১৯ দলের বিশ্বকাপ জয় জাহানারাদের অনুপ্রাণিত করছে। বৃহস্পতিবার ২২ রান খরচায় ৪ উইকেট নেওয়া জাহানারা  আলম বাংলা ট্রিবিউনকে জানালেন নিজেদের প্রস্তুতির কথা।

বাংলা ট্রিবিউন: প্রস্তুতি ম্যাচ জয় দিয়ে শেষ হলো, সব মিলিয়ে প্রস্তুতি কেমন মনে হচ্ছে?

জাহানারা আলম: প্রস্তুতি ম্যাচটি যেহেতু জিতেছি, মনে হচ্ছে প্রস্তুতি ভালোই হয়েছে। আমরা দশ দিন কন্ডিশনিং ক্যাম্প করলাম। প্রতিটি দলই আগেভাগে এলেও কেউই বৃষ্টির কারণে প্রস্তুতিটা ভালোভাবে করতে পারেনি। আমরা রোদ-বৃষ্টি মিলিয়ে যতখানি করেছি মনে হচ্ছে কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে নিতে পেরেছি। আজকে প্রস্তুতি ম্যাচটাই তার প্রমাণ। কেউ ব্যাটিং, কেউ ফিল্ডিংয়ে, কেউ বোলিংয়ে, ভালো যে যার জায়গা থেকে ভালো করার চেষ্টা করেছে।

বাংলা ট্রিবিউন: কন্ডিশনের সঙ্গে খাপ খাইয়ে নেওয়ার ব্যাপারটাই সবচেয়ে জরুরি ছিলো, আজ দুর্দান্ত বোলিংও করলেন। কী বলবেন?

জাহানারা: অস্ট্রেলিয়ার উইকেট বাউন্সি ও পেস সহায়ক। কিন্তু এখানে আমরা চার ভেন্যুতে খেলবো। অনুশীলন ম্যাচ খেলেছি ব্রিসবেনে, শুক্রবার চলে যাবো পার্থে। ওখানে একটা ম্যাচ খেলে যাবো ক্যানবেরায়। শেষ দুটি ম্যাচ মেলবোর্নে। চার ভেন্যুতে উইকেট কেমন হবে, আমরা জানি না।  বিভিন্ন ভেন্যুতে সময়ের পার্থক্যও আছে। কন্ডিশনিং ক্যাম্পের মাধ্যমে যতখানি পেরেছি কন্ডিশন সম্পর্কে ধারণা নেওয়ার চেষ্টা করেছি। 

বাংলা ট্রিবিউন: প্রতিপক্ষ সবগুলো দলই তো শক্তিশালী, এটা কতটা চ্যালেঞ্জের?

জাহানারা: আমাদের সব প্রতিপক্ষই শক্তিশালী। অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড ও ভারত আছে। তবে আমরা সবাই মোটামুটি ভালো প্রস্তুতি নিয়েছি। স্কিলের দিক থেকে আমরা হয়তো তাদের চেয়ে কিছুটা পিছিয়ে, কিন্তু জয়-পরাজয় তো নির্দিষ্ট দিনেই ঠিক হবে। যারা ম্যাচে কম ভুল করবে, তারাই শেষ পর্যন্ত জিতবে।  আগে থেকে বলতে পারি না যে আমরা সব ম্যাচ জিতবো;  ওটা করবো, সেটা করবো…। আমরা এটুকু বলতে পারি, বিগত যত টুর্নামেন্ট গেছে তার চেয়ে আমরা ভালো ক্রিকেট খেলবো।

বাংলা ট্রিবিউন: আপনি নিজে কতটা রোমাঞ্চিত এমন কন্ডিশনে বোলিং করতে পেরে..

জাহানারা: যে উইকেটে আজ খেলেছি, তা থেকে যতটা সহায়তা পাওয়ার কথা ততটা পাইনি। এখানকার সেন্টার উইকেটে দুইদিন অনুশীলন করার সুযোগ পেয়েছি। অন্য দলও অনুশীলন করেছে। ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও ভারতের খেলা হয়েছে একই উইকেটে। পাকিস্তানের সঙ্গে ম্যাচও হয়েছে এই উইকেটে। ৫-৬ টা সেশন একটা উইকেটে খেলা হয়েছে।  সব মিলিয়ে উইকেট কিছুটা ড্যাম ছিল। এ কারণেই উইকেট থেকে প্রত্যাশিত সাহায্য পাইনি। তবে অস্ট্রেলিয়ান উইকেট বলে পেস-সুইং ঠিকই পেয়েছি। যদি বোলিং উপভোগ করেন, সে আপনি পেসার হন বা স্পিনার, সাফল্য পাওয়া কঠিন  নয়। যেমন আমাদের খাদিজা-তুল-কোবরা আজকে ভালো বোলিং করেছে, সালমা আপাও ভালো করেছে। এটা নির্ভর করছে বোলারের ওপর যে নিজে কীভাবে উইকেটের সুবিধা কাজে লাগাচ্ছে। ২৪ তারিখে আমাদের প্রথম ম্যাচ। আশা করি তরতাজা উইকেটে আমরা খেলতে পারবো। 

বাংলা ট্রিবিউন: শুরুতে ভারতের বিপক্ষে ম্যাচ বলে একটু কি চাপ অনুভব করছেন?

জাহানারা: না। মাঠে যখন নেমেছি কোনও চাপ নেই। চাপ নিয়ে মাঠে নামলে শুরুতেই ব্যাকফুটে চলে যেতে হবে। আমাদের দলের ১৫ জনই অনেক আত্মবিশ্বাসী। কেউই সহজে কোনও প্রতিপক্ষকে ছেড়ে দেবো না, শেষ পর্যন্ত লড়াই করবো। যেভাবে প্রস্তুতি নিয়েছি, আমরা যদি আমাদের খেলা খেলতে পারি, তাহলে কোনও প্রতিপক্ষই কঠিন নয়। 

বাংলা ট্রিবিউন: ভারতকে হারিয়ে আকবরদের বিশ্বকাপ জয় আপনাদের কতটা অনুপ্রাণিত করছে?

জাহানারা: এটা অনেক বেশি উৎসাহ দিচ্ছে আমাদের। আমাদের বিশ্বকাপ শুরুর আগে ছোট ভাইরা যে অর্জন করে এসেছে, সেটা আমাদের ক্রিকেটের জন্য বিশাল অর্জন। আমরা আসলেই অনুপ্রাণিত। আমি এ কথা বলবো না যে আমরা বিশ্বকাপ জিতে ফেলবো কিংবা ফাইনাল খেলবো। ভাগ্যে কী আছে, কেউই বলতে পারে না। আমরা একটি একটি ম্যাচ ধরে এগিয়ে যেতে চাই, সামনে কে আছে এটা নিয়ে আমাদের ভাবনা নেই। আমরা আমাদের প্রক্রিয়া অনুযায়ী খেলতে চাই। আমরা যে লক্ষ্য নিয়ে এসেছি, সেটা পূরণে আপ্রাণ চেষ্টা করব। ছোটদের বিশ্বকাপ জয় আমাদের মাঠে উজ্জীবিত করবে, হয়তো এই অনুপ্রেরণা নিয়ে আমরা এমন কিছু করবো যা কেউই ভাবেনি!

বাংলা ট্রিবিউন:  বাস্তব অর্থে বাংলাদেশের লক্ষ্য আসলে কী?

জাহানারা: দেশ ছাড়ার আগে বলে এসেছিলাম, এটা আমাদের ভবিষ্যৎ নির্ধারণী টুর্নামেন্ট। আমরা আর কোয়ালিফায়ার রাউন্ড খেলতে চাই না। আমরা সারা বছর আইসিসির ক্যালেন্ডারে খেলতে চাই। আমাদের আত্মবিশ্বাস আছে, প্রস্তুতি আছে। এখন সঠিক সময়ে তা বাস্তবায়নের অপেক্ষা। ইনশাআল্লাহ আমরা সবাই মিলে সেটা পারবো।

বাংলা ট্রিবিউন: যেহেতু আমাদের পাওয়ার হিটার নেই, ব্যাটিংটা কি আমাদের চিন্তার কারণ নয়?

জাহানারা: পাওয়ার হিটিংয়ে আমরা পিছিয়ে ছিলাম। তবে এখন অনেক উন্নতি হয়েছে। আপনারা টিভিতে খেলা দেখতে পারবেন। আমার বিশ্বাস আপনারা আমাদের সবার ব্যাটিং উপভোগ করবেন। আজকে যেটা হয়েছে উইকেটটা ড্যাম ছিল, এখানে বল থেমে থেমে আসছিল। ব্যাটসম্যানরা স্বচ্ছন্দে ব্যাটিং করতে পারেনি।  পাকিস্তানের বোলাররাও স্লো বোলিং করেছে, ফলে পাওয়ার ব্যাটিংটা করা কঠিন ছিল। কিছু কিছু ক্ষেত্রে আমাদের সিঙ্গেলের ওপর নির্ভর করতে হবে। আজকে যেমন সেভাবেই খেলেছি। আমরা পাওয়ার হিটিং অনেক অনুশীলন করেছি। আমার বিশ্বাস, আপনারা আমাদের ব্যাটিং উপভোগ করতে পারবেন। 

/আরআই/পিকে/

লাইভ

টপ