জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে আবারও রেকর্ড সংগ্রহ বাংলাদেশের

Send
স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত : ১৬:৩৮, মার্চ ০৩, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৬:৫৭, মার্চ ০৩, ২০২০

১২তম সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন তামিম। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে এক ম্যাচ হাতে রেখে সিরিজ জয়ের মঞ্চটা তৈরি করে রাখলো বাংলাদেশ। সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডেতেও হলো বিশাল স্কোর। এবার অবশ্য আগের স্কোরটিকেও ছাড়িয়েছে স্বাগতিকরা। ৮ উইকেটে করেছে ৩২২ রান। ওয়ানডেতে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে এটি-ই সর্বোচ্চ সংগ্রহ বাংলাদেশের। আগের ম্যাচে তুলেছিল ৬ উইকেটে ৩২১ রান।

আগের ম্যাচে তামিম ইকবালের শ্লথ গতির ব্যাটিং নিয়ে সমালোচনা হয়েছে খুব। তার ওপর বড় ইনিংসের দেখা পাচ্ছিলেন না অনেক দিন ধরে। সর্বশেষ ইনিংসগুলোতে স্কোর-৮,০,১৯,২,২৪। তামিম সেই সমালোচনার জবাব দিতে বেছে নিয়েছিলেন এই ম্যাচটি-ই। দ্বিতীয় ওয়ানডেতে এক সেঞ্চুরিতে সব কিছুর উত্তর দিয়ে দিয়েছেন। তামিমের ১২তম সেঞ্চুরিটি ছিল ২৩ ইনিংস পর!

অবশ্য উদ্বোধনী জুটিটা বড় হয়নি লিটনের দুর্ভাগ্যের কারণে।৬.৩ ওভারে নন স্ট্রাইকিং প্রান্তে ক্রিজ ছেড়ে বেরিয়ে এসেছিলেন। তখন তামিমের খেলা শটই বিপদ ডেকে আনে তার! বলটি বোলার মাম্বার হাতে লেগে আঘাত হানে স্টাম্পে। লিটন ফিরেছেন ৯ রান করে। তবে অপরপ্রান্তে আগ্রাসী মনোভাবে খেলে গেছেন তামিম। আক্রমণাত্মক ব্যাটিংয়ে প্রথম পাওয়ার প্লেতে ১ উইকেটে এসেছে ৬৫ রান।

রান আউটে দ্রুত পতন ঘটে দ্বিতীয় উইকেটের। অবশ্য এই আউটে ছিল ভুল বোঝাবুঝি। স্ট্রাইকে থাকা নাজমুল হোসেন রান নিতে চাননি শুরুতে। তামিম দৌড় দিলে নাজমুল হোসেন দ্বিধা-দ্বন্দ্বে বিলম্ব করে ফেলেন। রান আউটে নাজমুল ফেরেন ৬ রানে।

এই দুই রান আউটে তখন অস্বস্তি বিরাজ করছিল বাংলাদেশ দলে। তামিম সেই পরিস্থিতি সামলেছেন মুশফিকুর রহিমের সঙ্গে ৮৭ রানের জুটি গড়ে। মুশফিক তুলে নিয়েছেন ৩৮তম হাফসেঞ্চুরি। জুটি আরও বড় হওয়ার আগে সফট ডিসমিসালে ক্যাচ দিয়ে তিনি সাজঘরে ফিরেছেন ৫৫ রানে। মুশফিকের ৫০ বলের ইনিংসে ছিল ৬টি চার।

সঙ্গী ছাড়া হলেও তামিম আবার জুটি গড়েন মাহমুদউল্লাহর সঙ্গে। এই জুটিটি ছিল সবচেয়ে বড়। ৪১ রানে মাহমুদউল্লাহ ক্যাচ দিয়ে ফিরলে ভাঙে ১০৬ রানের বড় জুটি। কিছুক্ষণ পর ওয়ানডে ক্যারিয়ারের সর্বোচ্চ স্কোর করে বিদায় নেন তামিমও। ১৫৮ রানে ফিরেছেন। তার ১৩৬ বলের ইনিংসে ছিল ২০টি চার ও ৩টি ছয়। তখন স্কোর ছিল ৫ উইকেটে ২৯২ রান। 

সেট ব্যাটসম্যানদের বিদায়ের পর শেষ দিকে উইকেট পড়েছে দ্রুত। ফিরে গেছেন মেহেদী মিরাজ (৫), মাশরাফি বিন মুর্তজা (১), তাইজুল ইসলাম (০)। তবে মিঠুন ঝড়ো গতিতে খেলে স্কোরবোর্ড আরও সমৃদ্ধ করেছেন। ১৮ বলে অপরাজিত থাকেন ৩২ রানে। ৩টি চারের সঙ্গে মারেন একটি ছয়।  
জিম্বাবুয়ের হয়ে দুটি করে উইকেট নিয়েছেন কার্ল মাম্বা ও ডোনাল্ড টিরিপানো।একটি করে নিয়েছেন টিশুমা ও ম্যাডেভেরে। 

/এফআইআর/

লাইভ

টপ