অধিনায়ক মাশরাফির জন্য সতীর্থদের ভালোবাসা

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৫:১০, মার্চ ০৭, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৫:১৫, মার্চ ০৭, ২০২০

জিম্বাবুয়ের শেষ উইকেটের পতন হতেই সতীর্থরা ছুটে গেলেন মাশরাফির কাছে। তার সঙ্গে হাত মেলানো শেষ হতেই তামিম কাঁধে তুলে নেন অধিনায়ক হিসেবে জয়ের ‘ফিফটি’ করা মাশরাফিকে। তামিমের কাঁধে চড়েই মাঠ থেকে শেষবার বেরিয়ে এলেন অধিনায়ক মাশরাফি। চমকের তখনও বাকি, একটু পরই সতীর্থদের সবাই ‘থ্যাঙ্ক ইউ ক্যাপ্টেন’ লেখা ‘২’ নম্বর জার্সি পরে মাঠে নামেন। মাশরাফিকে ঘিরে বয়ে যায় আবেগের জোয়ার।

মাঠে অনেকেই মেতেছিলেন অধিনায়ক মাশরাফি-বন্দনায়। যার মধ্যে ছিলেন তামিম-মুশফিক-মাহমুদউল্লাহ। এরপরও হয়তো মনের কথা পুরোটা বলা হয়নি তাদের। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিদায়ী অধিনায়ককে ভিজিয়েছেন ভালোবাসার বৃষ্টিতে। তাদের মতো লম্বা সময় মাশরাফির সঙ্গে খেলা এবং তার নেতৃত্বে আন্তর্জাতিক আঙিনায় নিজেদের আরও ভালোভাবে মেলে ধরা সতীর্থরা শ্রদ্ধা-ভালোবাসায় জানিয়ে রাখলেন, তারা কখনও ভুলবেন না অধিনায়ক মাশরাফিকে।

মাশরাফির বিদায়ী ম্যাচে স্কোয়াডে ছিলেন সৌম্য সরকার। মাশরাফিকে ধন্যবাদ দিয়ে তিনি লিখেছেন, ‘ধন্যবাদ অধিনায়ক। আমার ক্যারিয়ারের শুরুটা আপনার হাত ধরে, আপনি শুধুমাত্র একজন অধিনায়ক নন, একজন বড় ভাই, একজন মেন্টর। মাঠে অধিনায়ক মাশরাফির শূন্যতা হয়তো কখনও পূরণ হবে না। আমার ক্যাপ্টেন হয়ে সবসময় পাশে থাকবেন ভাইয়ের মতো।’

২০১৬ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে তাসকিন আহমেদ যখন অবৈধ বোলিং অ্যাকশনে নিষিদ্ধ হলেন, সংবাদ সম্মেলনে তাসকিনের জন্য কেঁদে ওঠেন মাশরাফি। সেই তিনি অধিনায়ক হিসেবে শেষচিহ্ন এঁকে নেওয়ায় আবেগপ্রবণ তাসকিন, ‘তিনি সর্বদা মাঠে সহায়তা করেন। তার অধিনায়কত্বে খেলা সবসময়ই আনন্দিত করে। মাঠের ভালো সব স্মৃতির জন্য আপনাকে ধন্যবাদ জানাই। আমরা আপনাকে মিস করব! ধন্যবাদ ক্যাপ্টেন।’

তামিমের কাঁধে চড়েই অধিনায়ক মাশরাফি বিদায় নিয়েছেন। নিজের ফেসবুকে সেই ছবি পোস্ট করে তিনি লিখেছেন, ‘ধন্যবাদ ক্যাপ্টেন।’

সতীর্থ মাহমুদউল্লাহ সম্ভবত সবচেয়ে আবেগঘন পোস্টটি করেছেন, ‘আমার ভাই, আমার বন্ধু এবং আমার ক্যাপ্টেন। আপনার অধীনে খেলতে পারা আমার জন্য দারুণ ব্যাপার। আমি মুহূর্তগুলো লালন করব। আপনার সঙ্গে মাঠে এবং বাইরের মুহূর্তগুলো আমাকে বিশেষ অনুভূতি দেবে। আপনার সাপোর্টের জন্য অভিনন্দন ও ধন্যবাদ। আপনি আমার অধিনায়ক। আপনার প্রতি অনেক শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা।’

শুক্রবার রেকর্ডবুক ওলট-পালট করে লিটন দাস বাংলাদেশের ওয়ানডে ইতিহাসের সর্বোচ্চ ইনিংসের রেকর্ড গড়েছেন। এশিয়া কাপে মাশরাফির প্রেরণাতেই পেয়েছিলেন প্রথম সেঞ্চুরি। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে পেলেন আরও দুটি। শুক্রবার ম্যাচ শেষ পুরো দলের ছবি পোস্ট করে হ্যাশট্যাগ দিয়ে লিটন লিখেছেন, ‘ধন্যবাদ ক্যাপ্টেন।’

মাশরাফির বিদায়ী ম্যাচে দলের বাইরে ছিলেন মুশফিক। মাশরাফিকে কাঁধে নিয়ে তামিম যখন ঘুরছিলেন, পাশে ছিলেন তিনি। নিজের ফেসবুক পেজে মুশফিক লিখেছেন, ‘মাঠে যোদ্ধা এবং মাঠের বাইরে থাকা একজন ভাই... আমার এবং আমাদের দলের জন্য তিনি অনেক বড় অনুপ্রেরণার নাম। কিংবদন্তি নেতা, আপনার নেতৃত্বে খেলে নিজেকে ভাগ্যবান মনে করছি। আপনার নেতৃত্ব খুব মিস করব।’

মাশরাফির সঙ্গে তোলা ছবি পোস্ট করে মোস্তাফিজুর রহমান লিখেছেন, ‘প্রিয় অধিনায়ক, আমরা আপনাকে মিস করব।’

দলের বাইরে থাকা এনামুল হকও আবেগাপ্লুত, ‘আপনার মতো কিংবদন্তি পাওয়া অবিশ্বাস্য। আপনি সবার কাছে অনুকরণীয়। আপনার কাছ থেকে পাওয়া সবচেয়ে বড় শিক্ষা নিঃশর্তভাবে দেশকে ভালোবাসা। আমি আপনার সাহসী চিন্তা চালিয়ে যাব। স্যালুট বস!’

মেহেদী হাসান মিরাজ তার ফেসবুকে লিখেছেন, ‘আপনি আমাদের জন্য অনেক বড় অনুপ্রেরণা। আমরা আপনাকে পেয়ে খুব ভাগ্যবান। আমরা আপনাকে মিস করব, ক্যাপ্টেন মাশরাফি ভাই। আপনার নাম আজীবন বাংলাদেশ ক্রিকেটে লেখা থাকবে।’

একসময়কার বাংলাদেশ দলের নির্ভরযোগ্য ব্যাটসম্যান অলক কাপালি মাশরাফির নেতৃত্বে জাতীয় দলে খেলেননি। তবু মাশরাফির নেতৃত্বে মুগ্ধতা তার, ‘নেতা হিসেবে বাংলাদেশের ক্রিকেটকে অসাধারণ নেতৃত্ব দিয়েছেন, ধন্যবাদ মাশরাফি।’

/আরআই/কেআর/

লাইভ

টপ