বার্কোসের চার গোলে বসুন্ধরার বড় জয়

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৯:১১, মার্চ ১১, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৯:১৯, মার্চ ১১, ২০২০

Photo 9একজন দক্ষ স্ট্রাইকার খুঁজছিল বসুন্ধরা কিংস। যিনি বক্সের মধ্যে থাকবেন অপ্রতিরোধ্য। এএফসি কাপে বুঝি তেমন একজনকে পেলো অস্কার ব্রুজনের দল। এমনিতেই আর্জেন্টাইন স্ট্রাইকার হার্নান বার্কোসের অতীত সমৃদ্ধ। ঢাকায় তার অভিষেক ম্যাচটিকে রাঙিয়েও রাখলেন ৩৫ বছর বয়সী স্ট্রাইকার। তার হ্যাটট্রিকে এএফসি কাপে বসুন্ধরা কিংসের অভিষেকও হয়েছে স্মরণীয়।

বুধবার মালদ্বীপের টিসি স্পোর্টসকে তারা উড়িয়ে দিয়েছে ৫-১ গোলে! চার গোল করেছেন বার্কোস, বাকি গোলটি ২০১৮ রাশিয়া বিশ্বকাপে খেলা কোস্টারিকান তারকা কলিনদ্রেসের।

ম্যাচের চার গোলের দুটি হয়েছে পেনাল্টি থেকে। বঙ্গবন্ধু  স্টেডিয়ামে বুধবার ৪-৪-২ ছকে ফরোয়ার্ড হিসেবে খেলেছেন কলিনদ্রেস ও বার্কোস। দুজনের রসায়ন ভালোই জমেছে। মালদ্বীপের টিসি স্পোর্টস ৪-২-৩-১ ফর্মেশনে তাদের ‘নাম্বার নাইন’ আলী আশফাক।

‘ই’ গ্রুপের ম্যাচে প্রথমার্ধে স্বাগতিকেরা আক্রমণে ছিল অনেক এগিয়ে। ম্যাচের ১০ মিনিটে কলিনদ্রেস একক প্রচেষ্টায় বক্সে ঢুকে লক্ষ্যে শট না নিয়ে ব্যাকপাস দেন বার্কোসকে, আর্জেন্টাইন স্ট্রাইকারের শট এক ডিফেন্ডারের গায়ে লেগে নষ্ট হয়।

১৮ মিনিটে বসুন্ধরা এগিয়ে যায়। বার্কোসের পাসে বিপলুর জোরালো শট গোলকিপার ফিরিয়ে দেন, ফিরতি বলে দুইশবেকভ হয়ে কলিনদ্রেসের বাঁ প্রান্তের ক্রসে বার্কোস হেডে ১-০ করেন।

এক গোলে পিছিয়ে থেকে টিসি স্পোর্টস সমতা আনতে চেষ্টা করে। ২০ মিনিটে গোলের দেখাও পায় তারা। ডিফেন্ডার ইয়াসিন খান বক্সের মধ্যে ফেলে দেন আলী আশফাককে। পেনাল্টি থেকে ইসা ইসমাইলের শট গোলকিপার জিকো ফিরিয়ে দেন, ফিরতি বলে ভলিতে গোল করেন এই মিডফিল্ডার (১-১)।

২৩ মিনিটে বার্কোসের পাস থেকে কলিনদ্রেস বক্সে ঢুকে শট নিলেও তা পোষ্ট ঘেঁষে যায়। তিন মিনিট পর বসুন্ধরা এগিয়ে যায়। বিপলুর লবে বার্কোস দুর্দান্ত হেডে বলের গতিটাই শুধু বদলে দেন (২-১)।

বিরতির পর প্রতিপক্ষকে আরও চেপে ধরে বসুন্ধরা। এই অর্ধে আরও তিনটি গোল আদায় করে নেয়।

যদিও ৫০ মিনিটে পেনাল্টি থেকে ম্যাচে আবারও সমতা আনার সুযোগ হারিয়েছে টিসি স্পোর্টস। ফ্রি-কিক থেকে স্বাগতিকদের দেলমন্তে হেড করতে লাফিয়ে ওঠার সময় টিসি স্পোর্টসের একজনও ভারসাম্য রাখতে পারেননি। অস্ট্রেলিয়ান রেফারি শন ইভান্স পেনাল্টির বাঁশি দেন।  ইসা ইসমাইলের শট বাঁ দিকে ঝাঁপিয়ে ফিরিয়ে দেন বসুন্ধরা গোলকিপার জিকো।

৫৮ মিনিটে কলিনদ্রেসের জোরালো শট গোলকিপারের শরীরে লেগে প্রতিহত হয়। ৬৬ মিনিটে কলিনদ্রেসকে ফাউল করেন অধিনায়ক আহমেদ ফারাহ।। পেনাল্টিতে পাকিস্তানি গোলকিপারকে পরাস্ত করে হ্যাটট্রিক পূর্ণ করেন বার্কোস।

৭৬ মিনিটে টিসিকে ম্যাচ থেকে প্রায় ছিটকে দেয় ব্রুজনের ছাত্ররা। বিশ্বনাথের ডান প্রান্তের ক্রসে কলিনদ্রেস দুর্দান্ত হেডে ৪-১ করেন।

যোগ করা সময়ে গোলকিপার এগিয়ে এলে তার মাথার ওপর দিয়ে লক্ষ্যভেদ করেন বার্কোস।

আগামী ১৪ এপ্রিল মালদ্বীপের মাঝিয়া অ্যান্ড রিক্রিয়েশন ক্লাবের বিপক্ষে লড়বে বসুন্ধরা। ম্যাচটি হবে মালেতে।

বসুন্ধরা কিংস:

জিকো, ফয়সাল , ইয়াসিন(আলমগীর রানা), তপু , বিপলু(রবিউল), বিশ্বনাথ, মোহাম্মদ ইব্রাহিম, দুইশবেকভ, কলিনদ্রেস, বার্কোস ও দেলমন্তে।

/টিএ/পিকে/

লাইভ

টপ