করোনায় ক্লাব ফুটবলের ক্ষতি ১৪০০ কোটি ডলার

Send
স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত : ২২:৪১, সেপ্টেম্বর ১৬, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ২২:৪৪, সেপ্টেম্বর ১৬, ২০২০

করোনানভাইরাস মহামারিতে ক্রীড়াঙ্গন পক্ষাঘাতগ্রস্ত। সবচেয়ে জনপ্রিয় খেলা ফুটবল চলছে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে। বিশাল আর্থিক ক্ষতি হয়ে গেছে খেলাটির। কাগজে-কলমে কাঁটায় কাঁটায় হিসেব করা সম্ভব নয়, তবে ক্ষতিটা বিলিয়ন বিলিয়ন ডলার অবশ্যই। ফিফার উচ্চপদস্থ একজন কর্মকর্তা, যিনি সংশ্লিষ্ট কমিটির প্রধান, সেই ওলি রেনের অনুমান, করোনার কারণে বিশ্বব্যাপী ক্লাব ফুটবলের ক্ষতি হয়েছে ১৪ বিলিয়ন অর্থাৎ ১৪০০ কোটি মার্কিন ডলার।

বিভিন্ন আর্থিক পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে কাজের ভিত্তিতে ফিফার প্রাক্কলন অনুযায়ী এ বছর ক্লাব ফুটবলের বাজারমূল্য  ৪০- ৪৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। সুতরাং ১৪ বিলিয়ন ডলার আর্থিক ক্ষতি হওয়া মানে প্রায় এক তৃতীয়াংশ রাজস্বই নেই। রেন সংবাদ সংস্থা রয়টার্সকে বলেছেন, এই ১৪ বিলিয়নের হিসেবটা ধরা হয়েছে বর্তমান পরিস্থিতির আলোকে, যেখানে তিনমাস ‘নির্বাসনের’ পর আস্তে আস্তে ফুটবল মাঠে নেমেছে। কিন্তু এই মহামারি যদি সামনের দিনগুলোতেও সরে না দাঁড়ায় তাহলে পরিস্থিতি হবে অন্যরকম।

রেন ইউরোপীয় ইউনিয়নের একজন সাবেক কমিশনার, বর্তমানে ফিনল্যান্ডের কেন্দ্রীয় ব্যাংক ব্যাংক অব ফিনল্যান্ডের গভর্নর, তার মূল্যায়নের আলাদা গুরুত্ব আছে। ‘করোনাভাইরাস মহামারিতে ফুটবলের মারাত্মক ক্ষতি হয়েছে। বিভিন্ন পর্যায়ে এটি ওলট-পালট করে দিয়েছে, অনেক পেশাদার ক্লাব মারাত্মক আর্থিক সমস্যায় পড়েছে। যুব একাডেমি এবং নিচের সারির ক্লাবগুলোর জন্যও এটি উদ্বেগ বাড়িয়েছে’-বলেছেন রেন।

সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয়েছে দক্ষিণ আমেরিকার ক্লাব ফুটবলে। তবে এশিয়া ও আফ্রিকার ক্লাব ফুটবলে যে উন্নয়নের ধারা সূচিত হয়েছিল, তাও করোনায় ধাক্কা খাবে বলে মনে করেন রেন, ‘এশিয়া ও আফ্রিকায় ফুটবলের যে উন্নয়ন হয়েছিল, তা নষ্ট হয়ে যাওয়ার একটা আশঙ্কা আছে। সুতরাং এটা নিয়ে আমাদের কাজ করতে হবে যাতে ‍উন্নয়নের ধারাটা ধরে রাখা যায়।’

করোনাভাইরাসের ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে ফিফা বিশ্বব্যাপী ১.৫ বিলিয়ন, ১৫০০ কোটি ডলার বরাদ্দ করেছে। ২১১ সদস্য অ্যাসোসিয়েশনের ১৫০টিই এই সাহায্যের জন্য আবেদন করেছে বলে জানিয়েছেন ফিফার এই কর্মকর্তা। তার দাবি, ফুটবল ধীরে ধীরে জেগে উঠছে ঠিকই, কিন্তু আবারও যে সংকটে পড়বে না তা বলা যায় না।  তার কাছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো করোনা প্রতিরোধের জন্য সঠিক ভ্যাকসিন পাওয়া, ‘সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো ভ্যাকসিন পাওয়া যাবে কি যাবে না। চিকিৎসা বিজ্ঞান বা অন্য কোনও উপায়ে এই মহামারিকে ঠেকানো যাবে কি না সেটি অনিশ্চিত। এটা যদি আগামী বছর পর্যন্ত চলতে থাকে, তখন হবে অন্য খেলা। আমরা এখন বর্তমান পরিস্থিতি দেখেই কাজ করছি।’

/পিকে/

লাইভ

টপ