জাককানইবিতে শিক্ষার্থীদের সংঘর্ষ থামাতে গিয়ে প্রক্টর ও প্রভোস্ট আহত

Send
বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ২০:৪৫, ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০১৮ | সর্বশেষ আপডেট : ২০:৪৯, ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০১৮

শিক্ষার্থীদের সংঘর্ষময়মনসিংহের ত্রিশালে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (জাককানইবি) শিক্ষার্থীদের সংঘর্ষ থামাতে গিয়ে ঢিলের আঘাতে আহত হয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ও হল প্রভোস্ট। এছাড়া, সংঘর্ষে তিন শিক্ষার্থীও আহত হন। মঙ্গলবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে ক্রিকেট খেলাকে কেন্দ্র করে এ ঘটনা ঘটে।

আন্তঃবিভাগ ক্রিকেট টুর্নামেন্টে হিউম্যান রিসোর্স ম্যানেজমেন্ট বিভাগের পক্ষে কে কে খেলবে, এ নিয়ে ফেসবুকে বিতর্কে জড়িয়ে পড়েন বিভাগটির শিক্ষার্থী এ.এ.যুব ও অভি বসাক। এ বিতর্ক থেকে এদিন দুপুর পৌনে ১টার দিকে অগ্নিবীণা হলের নিচে বিভাগটির বিভিন্ন বর্ষের শিক্ষার্থীরা সংঘর্ষে জড়ান।

সংঘর্ষে আহত একজনকে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছেখবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে যান বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী প্রক্টর মাসুম হাওলাদার ও হল প্রভোস্ট সিদ্ধার্থ সিধু। এ সময় শিক্ষার্থীদের ছোড়া ঢিলে তারা হাত ও পায়ে আঘাত পান। সেখান থেকে তাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের চিকিৎসাকেন্দ্রে নিয়ে চিকিৎসা দেওয়া হয়।

পরে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি নজরুল ইসলাম বাবু ও সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল হাসান রাকিব ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।

এসময় বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আপেল মাহমুদের সমর্থকরা হঠাৎ এসে ঢিল ছুড়ে হলের জানালার কাচ ভাংচুর করে। তখন বর্তমান সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের কর্মীরা তাদের ধাওয়া দেয়। এসময় তিন শিক্ষার্থী আহত হন।

সংঘর্ষের পর ক্যাম্পাসে পুলিশ মোতায়েন করা হয়এ.এ.যুব বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি নজরুল ইসলাম বাবুর সঙ্গে রাজনীতি করেন। অন্যদিকে অভি বসাক আগে আপেল মাহমুদের রাজনীতি করলেও এখন সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল হাসানের সঙ্গে রয়েছেন বলে জানা গেছে।

এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ক্যাম্পাসে উত্তেজনা বিরাজ করছে। ক্যাম্পাসে বিপুলসংখ্যক পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এ বিষয়ে প্রক্টর ড. মো. জাহিদুল কবীর বলেন, তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে যারা বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশ নষ্ট করার চেষ্টা করছে তাদের বিরুদ্ধে প্রশাসন ব্যবস্থা নেবে। নিরাপত্তার স্বার্থে ক্যাম্পাসে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের পুলিশ ফাঁড়ির দায়িত্বরত কর্মকর্তা কামরুল হাসান বলেন, ঘটনায় জড়িতদের আইনের আওতায় আনা হবে। বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক দাবি করেন, সংঘর্ষে জড়িতরা ছাত্রলীগের কেউ নয়। এই ঘটনায় ছাত্রলীগ সম্পৃক্ত নয়।

/এএম/

লাইভ

টপ