মেয়র প্রার্থীর নাম প্রস্তাব: ফের সময় নিলেন শামীম ওসমান

Send
নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ২৩:০৭, মার্চ ২৬, ২০১৬ | সর্বশেষ আপডেট : ২৩:৩৮, মার্চ ২৬, ২০১৬

শামীম ওসমাননারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের আগামী নির্বাচনে মেয়র প্রার্থীর নাম প্রস্তাবনায় আবারও সময় নিয়েছেন নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের এমপি শামীম ওসমান। শনিবার বিকেলে শহরের বঙ্গবন্ধু সড়কে মহানগর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে স্বাধীনতা দিবসের জনসভায় উপস্থিত বক্তারা শামীম ওসমানকে মেয়র প্রার্থী নিয়ে সিদ্ধান্ত দিতে অনুরোধ করলে তিনি তাৎক্ষণিক কিছু না বলে আরও সময় চান।  
শামীম ওসমান বলেন,  আজকের এ ছোট সমাবেশে সিটি করপোরেশন নির্বাচনে প্রার্থী নিয়ে আমি কিছু বলব না। আমরা দলের নেতাকর্মীদের সঙ্গে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছি। ভবিষ্যতে বিশাল এমন সমাবেশ করে মেয়র প্রার্থীর ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। সেখানেই জয়-পরাজয় নির্ধারণ করা হবে। ওই সভার সিদ্ধান্ত আমরা নেত্রীকে জানাব, নেত্রীই প্রার্থী ঘোষণা করবেন।
শামীম ওসমান বলেন, প্রধানমন্ত্রীর কাছে আমরা এমন একজন প্রার্থীর ব্যাপারে সুপারিশ করব, যিনি আওয়ামী লীগের সঙ্গে কখনও বেঈমানি করেননি। যিনি দুর্নীতি করেননি, ড. কামাল হোসেন আর মাহামুদুর রহমান মান্নার সঙ্গে মিটিং করেননি। এমন প্রার্থীর নাম বলব, যিনি সকালে আওয়ামী লীগ, দুপুরে বিএনপি আর রাতে জামায়াত করবেন না। তবে যারা এমন করেছেন তারা যদি ক্ষমা চান তাহলে বিবেচনা করব।

উল্লেখ্য যে, গত ১৬ ফেব্রুয়ারি সমাবেশ করে শামীম ওসমান বলেছিলেন, ১৬ মার্চ নারায়ণগঞ্জ সিটি  করপোরেশনর ভবনের সামনে বিশাল জনসভার মাধ্যমে ওইদিন আগামী সিটি নির্বাচনে প্রার্থীর নাম প্রস্তাবনা করা হবে। ২৬ তারিখে যে রায় দেব, আমরা ডিক্লেয়ার দিলাম, পারলে ট্রাই করেন কোনও লাভ হবে না।

কিন্তু গত ৭ মার্চ শামীম ওসমানের মা নাগিনা জোহার ইন্তেকালের পর ১৬ মার্চের সমাবেশ স্থগিত করা হয়। এরপর ২৬ মার্চের সমাবেশকে ঘিরেই ছিল সবার কৌতূহল।

শনিবার সমাবেশে শামীম ওসমান আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন প্রসঙ্গে বলেন, ‘নৌকার সঙ্গে যারা বেঈমানি করবেন, তাদের অবস্থান আর আগের মতো ফিরে পাওয়া যাবে না। বেঈমানদের কোনও ধরনের ছাড় দেওয়া হবে না। নৌকা প্রতীকের প্রার্থীদেরই জয়ী করতে হবে। যারা চিন্তা করছেন, কালো টাকা ছড়িয়ে, কূটকৌশল করে জয়ী হবেন তারা সেই চিন্তা বাদ দিন। কোনও ধরনের শক্তিকে আর ছাড় দেওয়া হবে না।

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সমালোচনা করে শামীম ওসমান বলেন, জিয়াউর রহমান মুখোশধারী ঘাতক ছিলেন। তার স্ত্রী খালেদা জিয়া হলেন এখনকার নাগিনী। তার দংশনে বিষাক্ত হচ্ছে দেশের মানুষ। তিনি এখন বলেছেন আগামী দিনে হাসিনাবিহীন নির্বাচন হবে। এ ধরনের বক্তব্য ৭৫ এ বঙ্গবন্ধু হত্যার আগেও দেওয়া হয়েছিল। একুশে আগস্ট গ্রেনেড হামলার আগেও একই বক্তব্য ছিল। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার ষড়যন্ত্র চলছে। কিন্তু যতই ষড়যন্ত্র হোক,  যতই হুমকি দেওয়া হোক, শেখ হাসিনাকে রক্ষার মালিক হলেন আল্লাহ। তিনিই আমাদের নেত্রীকে রক্ষা করবেন।

/এমএনএইচ/

লাইভ

টপ