Vision  ad on bangla Tribune

ঐশ্বরিয়ার সঙ্গে হঠাৎ রাস্তায় ২ মিনিট!

জনি হক, কান (ফ্রান্স) থেকে০২:০৩, মে ১৯, ২০১৭

 

 

গাড়িতে উঠার আগমুহূর্তে ঐশ্বরিয়াবৃহস্পতিবার (১৮ মে) গুরুত্বপূর্ণ সংবাদ সম্মেলন ছিল মোটে একটা। সকাল ১১টায় (বাংলাদেশ সময় বিকাল ৩টা) হয়ে গেছে সেটা। কয়েকটা প্রতিবেদন লেখা শেষে বের হলাম পালে দো ফেস্টিভাল ভবন থেকে। উদ্দেশ্য ভিলেজ ইন্টারন্যাশনালের দিকে যাবো।

ততক্ষণে সামনের সড়ক বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে লাল গালিচার তারকাদের আসার জন্য। বাধ্য হয়ে অনেকটা পথ হেঁটে যেতে হচ্ছে সাধারণ মানুষকে। এগোলাম ওই পথ ধরে। ৫ মিনিট হাঁটার পর সড়ক পেরিয়ে যাওয়ার অনুমতি দিয়ে রেখেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। 

সড়ক পেরোতেই এক সুন্দরীকে দেখে চোখ আটকে গেলো! হেঁটে হেঁটে তিনি এগোচ্ছেন সড়কে দাঁড়ানো ঝকঝকে দামি গাড়ির দিকে। তার হাত ধরে থাকা শিশুকে দেখেই চিনে ফেললাম। আরে এ তো দেখি আরাধ্য! তার মা আমাদের চিরচেনা ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চন! হতবাক হয়ে গেলাম। পলকই যেন পড়ছিল না। 

গাড়িতে উঠার আগমুহূর্তে ঐশ্বরিয়া‘হ্যালো অ্যাশ’ বলে তার পাশ দিয়ে যেতে থাকলাম। শুনে একবার তাকিয়ে ছড়িয়ে দিলেন ভুবন ভোলানো হাসি। ব্লেজারের পকেটে হাত দিয়ে মোবাইল নিয়ে ক্যামেরা চালু করে সেলফি অপশনে যেতে যেতে বচ্চন-বধূ চলে গেছেন গাড়ির কাছে। আরাধ্যকে গাড়িতে তোলায় মনোযোগী হলেন। তাই ‘হ্যালো অ্যাশ’ বলে আবার ডাকলেও সাড়া দিলেন না সাবেক বিশ্বসুন্দরী। উঠে গেলেন গাড়িতে।

তবে তার আগে সেলফি ঠিকই তুললাম। ঐশ্বরিয়ার দুধে আলতা মুখখানি ধরা পড়লো তাতে। গত দু’বার কানের লালগালিচায় তাকে দেখেছিলাম দূর থেকে। এবার সামনেই পেয়ে গেলাম। 

বৃহস্পতিবার (১৮ মে) সকালে সাগরপাড়ের শহরে এসে পৌঁছেছেন অ্যাশ। সৌন্দর্য প্রসাধনী প্রতিষ্ঠান লরিয়াল প্যারিসের দূতিয়ালি করতেই তার আসা। এখানে আসতেই ফুলের শুভেচ্ছায় সিক্ত হন ৪৩ বছর বয়সী এই তারকা। সঙ্গে আছে পাঁচ বছরের মেয়ে। 

প্রতিবেদকের সেলফিতে ঐশ্বরিয়া (গাড়িতে উঠছেন)এ নিয়ে ১৬ বার কানে এলেন ঐশ্বরিয়া। এখানে তিনি প্রথম এসেছিলেন ২০০২ সালে। ওই বছর ‘দেবদাস’-এর প্রচারণা করেন রূপালি পর্দার পারু। এবারও সঞ্জয়লীলা বানসালি পরিচালিত ছবিটিকে উপস্থাপন করতে এসেছেন তিনি। এর ফাঁকে লরিয়াল প্যারিসের পক্ষে লালগালিচায় পা মাড়াবেন শুক্রবার ও শনিবার (২০ মে)।

ছবি: আহামেদ ফরিদ

/জেএইচ/এমএম/

samsung ad on Bangla Tribune

লাইভ

টপ