Vision  ad on bangla Tribune

বিয়ের ১৫ মাস পর গায়ে হলুদ!

বিনোদন রিপোর্ট১১:০৫, মার্চ ২৭, ২০১৬

গায়ে হলুদ হলো বিয়ের আগাম আনুষ্ঠানিকতা। অথচ অভিনেতা-মডেল নিরবের বেলায় সেটাই ঘটলো বিয়ের পর! সংসার জীবনের টানা ১৫ মাস পর করে বেশ ধুম-ধাম করে ২৬ মার্চ রাতে গুলশান-২ এর একটি রেস্তোরাঁয় অনুষ্ঠিত হলো নিরব-ঋদ্ধির গায়ে হলুদ অনুষ্ঠান।

গায়ে হলুদ অনুষ্ঠানে বর-কনে সাজে নিরব-ঋদ্ধি।এখানেই থামছেন না নিরব। বিবাহোত্তর সংবর্ধনাও করছেন। জানান, হলুদের আনুষ্ঠানিকতার কারণেই এতদিন বৌভাতের আয়োজন করতে পারেননি তারা। তার ভাষায়, ‘হলুদ হয়ে গেছে। এবার সংবর্ধনার বিষয়ে কোনও বাধা রইলো না। তাই ২৮ মার্চ সেনাকুঞ্জে সবার নিমন্ত্রণ থাকলো।’

বৌ ভাতের জন্য গায়ে হলুদের আনুষ্ঠানিকতা! নিরব এবার একটু খুলে বললেন বিষয়টি। বলেন, ‘আমরা বিয়ে করেছি প্রায় দেড় বছর হতে চললো। বিয়েটি ছিলো ঘর পালানো। তাই গায়ে হলুদের সুযোগই পাইনি। এ নিয়ে আমার বউ-এর আক্ষেপের কোনও শেষ ছিলো না। মনে হলো তার সুখের জীবনে একটাই অপূর্ণতা, সেটা হলো গায়ে হলুদের আনুষ্ঠানিকতা।’

বর-কনের সঙ্গে আরফিন রুমির পরিবার।নিরব আরও বলেন, ‘পালিয়ে বিয়ের পর যখন সব স্বাভাবিক হলো, তখন ধুমধাম করে বৌভাতের আয়োজন করতে চেয়েছি। কিন্তু ঋদ্ধির একটাই আপত্তি, গায়ে হলুদের আগে এসব করা যাবে না! সব মিলিয়ে আইডিয়াটাও কিন্তু মন্দ না। আগে বিয়ে পরে হলুদ!’   

বিয়ের প্রায় দেড় বছরের মাথায় আয়োজিত শনিবার সন্ধ্যার এ গায়ে হলুদ অনুষ্ঠানে অংশ নেন দুই পরিবারের আত্মীয়স্বজন ও নিরব-ঋদ্ধি দম্পতির কাছের বন্ধুরা। এসেছিলেন অভিনেতা ইমন, সংগীতশিল্পী বিপ্লব, আরফিন রুমি, নির্মাতা সাইফ চন্দন সহ আরও অনেকে। সোমবার (২৮ মার্চ) সেনাকুঞ্জে হবে বিবাহোত্তর সংবর্ধনা কিংবা বৌভাত অনুষ্ঠান।
প্রসঙ্গত, ২০১৪ সালের ফেব্রুয়ারিতে নিরব-ঋদ্ধির পরিচয়। নর্থসাউথ ইউনিভার্সিটির ছাত্রী দিনাজপুরের মেয়ে ঋদ্ধি সেদিন অটোগ্রাফ নিতে এসেছিলেন। ১০ ফেব্রুয়ারি তাদের প্রথম ফোনে কথা হয়। আর একুশে ফেব্রুয়ারি রাজধানীর উত্তরায় প্রথম দেখা করেন তারা। ধীরে ধীরে তাদের যোগাযোগ রূপ নেয় প্রেমে। একই বছর ২৬ ডিসেম্বর পালিয়ে বিয়ে করেছিলেন দুজনে। ঋদ্ধির পরিবার থেকে নিরবের নামে অপহরণ মামলাও করা হয় সে সময়। এজন্য তারা বেশ কিছুদিন ফেরারি জীবন বেছে নিয়েছেন।

গায়ে হলুদ অনুষ্ঠানে বর-কনে সাজে নিরব-ঋদ্ধি।/এমএম/

লাইভ

টপ