ইন্ডিয়া টুডে’র ‘বুথফেরত জরিপ’ নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বী চ্যানেলগুলোর ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ২২:০৮, মে ১৭, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ২২:১৫, মে ১৭, ২০১৯

ইন্ডিয়া টুডে’র ‘ফাঁস’ হওয়া বুথফেরত জরিপ নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বী চ্যানেলগুলো থেকে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া এসেছে। টাইমস নাউ-এর প্রধান সম্পাদক রাহুল শিবশঙ্কর ও রিপাবলিক চ্যানেলের অর্ণব গোস্বামী এ ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

শুক্রবার ইন্ডিয়া টুডে’র সঞ্চালক রাহুল কানওয়াল দর্শকদের বলছিলেন আগামী ১৯ মে শেষ দফার ভোটগ্রহণের পর বুথফেরত জরিপ প্রকাশের প্রস্তুতি প্রসঙ্গে। তিনি ঘোষণা দিচ্ছিলেন, ১৯ মে শেষ দফার ভোট গ্রহণের পর সন্ধ্যায় ওই জরিপের ফলাফল প্রকাশ করা হবে। সে সময় হঠাৎ করেই ক্যামেরা ঘুরে যায় তার পেছন দিকে থাকা এক কম্পিউটার স্ক্রিনে। ওই স্ক্রিনে ভেসে ওঠে বুথফেরত জরিপের ফলাফল। ফাঁস হওয়া জরিপের ফলাফলে পরিষ্কারভাবে ফুটে উঠেছে, গতবারের থেকে ১৭৭টি আসন কমছে এনডিএ জোটের। তারা পেতে চলেছে ১৭৭টি আসন। আর গতবারের তুলনায় ৭৬টি আসন বেড়ে কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন ইউপিএ জোট পেতে পারে ১৪১টি আসন। উল্লেখযোগ্যভাবে, অন্যান্য দলগুলি ২২৪টি আসন পেতে চলেছে।

টাইমস নাউ-এর প্রধান সম্পাদক রাহুল শিবশঙ্করের প্রশ্ন, ‘এটা সত্য?’ তার সহকর্মী মাধবদাস জি লিখেছেন, ‘রাহুলকানওয়াল কি আমাদেরকে তাদের বুথফেরত জরিপের আভাসের এক ঝলক দেখিয়েছেন? এনডিএ ১৭৭টি আসন পাচ্ছে?’  

সরাসরি চ্যানেলের নাম উল্লেখ না করেই ইন্ডিয়া টুডে’র তিরস্কার করেছেন রিপাবলিক চ্যানেলের অর্ণব গোস্বামী। এক ঘণ্টা ধরে বিজেপিকে নিয়ে তার প্রতিদ্বন্দ্বী চ্যানেলের বিপর্যয়পূর্ণ আভাস নিয়ে কথা বলেছেন তিনি। একে ‘লুটিয়েনের বুথফেরত জরিপ’ আখ্যা দিয়েছেন অর্ণব।

অর্ণব বলেন, ‘বুথফেরত জরিপের আগে এবং ৫৯ টি আসনে লোকসভা নির্বাচনের ভোট বাকি থাকতেই সংঘবদ্ধ মিডিয়া চক্রের অংশ হিসেবে ইন্ডিয়া টুডে ফল ঘোষণা করেছে। লুটিয়েনরা যে দুইটি ভুয়া বুথফেরত জরিপ করেছে, তার একটি পুরোপুরি নিষিদ্ধ ও অবৈধ এবং অন্যটি হলো ওই নেটওয়ার্কটি নিজেরাই বিচ্যুত হওয়ার চেষ্টা করছে। সংঘবদ্ধ মিডিয়া চক্র ঘোষণা করেছে যে ভারত একটি ঝুলন্ত পার্লামেন্ট পাবে। ভুয়া চ্যানেলে এসব ভুয়া খবর, ভুয়া জরিপ ছড়ানো হচ্ছে?’

পর্দায় দেখানো তথ্য অনুযায়ী, ২০১৯ সালে এনডিএ জোট ১৭৭টি আসন পাবে বলে আভাস দিয়ে বলা হয়েছে ২০১৪ সালের তুলনায় তা ১৭৭টি কম। সেই হিসেবে ২০১৪ সালে এনডিএ’র  আসন দাঁড়ায় ৩৫৪টি। অথচ সত্যিকার অর্থে ২০১৪ সালে এনডিএ পেয়েছিল ৩৩৬টি আসন। একইভাবে ইউপিএ’র জন্য যে আসন সংখ্যার কথা উল্লেখ করা হয়েছে তাও হিসাবের সঙ্গে মেলে না।

ইন্ডিয়া টুডের এক টুইটে দাবি করা হয়েছে, ‘আমরা এই ক্লিপ নিয়ে আপনাদের উৎসাহ বুঝি। আপনাতের হতাশ করায় আমরা দুঃখিত। আমরাও এই তথ্যের জন্য উদ্বিগ্ন। প্রকাশিত ভিডিওটি ডামি তথ্যের ওপর নির্মিত একটি প্রোমো  যা ইলেকশন নিউজট্র্যাক অনুষ্ঠানে সম্প্রচার করা হয়।’

লোকসভা নির্বাচনের প্রথম ধাপের ভোট ১১ এপ্রিল শুরু হয়েছে। ১৯ মে ৭ম তথা শেষ দফার ভোট গ্রহণ হবে। ফল ঘোষণা হবে ২৩ মে। ভারতীয় জনপ্রতিনিধিত্ব আইনের ১২৬ নং ধারা অনুযায়ী, জাতীয় নির্বাচনের ক্ষেত্রে প্রথম ধাপের নির্বাচন শুরুর সময় থেকে সব রাজ্য ও কেন্দ্র-শাসিত অঞ্চলের ভোটগ্রহণ শেষ হওয়ার আধঘণ্টা পর পর্যন্ত এই ফলাফল প্রকাশের কোনও সুযোগ নেই। তবে শুক্রবার ইন্ডিয়া টুডের টেলিভিশন স্ক্রিনে বুথ ফেরত জরিপের ফলাফল ভেসে উঠতে দেখা গেছে।

/এফইউ/বিএ/

লাইভ

টপ