ভোটগ্রহণের শেষ দিনেও পাঞ্জাব ও পশ্চিমবঙ্গে সংঘর্ষ

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ০২:৪৪, মে ২০, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ০২:৫৩, মে ২০, ২০১৯

লোকসভা নির্বাচনে ভোটগ্রহণের শেষ ধাপেও পাঞ্জাব ও পশ্চিমবঙ্গে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। সেসময় গুলি ও বোমা নিক্ষেপের ঘটনাও ঘটে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশও ব্যাবস্থা নেয়। পুলিশের লাঠিচার্জে আহত হয়েছেন কর্মীরাও।

২০১৯ সালের ১১ এপ্রিল শুরু হয়েছিল ভারতের এবারের লোকসভা নির্বাচন। ইতোমধ্যে ছয় দফার ভোটগ্রহণ শেষ হয়েছে। শেষ দফায় মোদি ছাড়াও অন্য হেভিওয়েট প্রার্থীদের মধ্যে রয়েছেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী মনোজ সিনহা, রবিশঙ্কর প্রসাদ, এইচ কে বাদল এবং হরদীপ সিং পুরি। এছাড়া ভাগ্য নির্ধারণ হবে কিরণ খের, সানি দেওল, রবি কিষাণের মতো বিজেপি’র তারকা প্রার্থীদের।

পশ্চিমবঙ্গে ভাটারায় বিজেপি নেতা অর্জুন সিংয়ের বাড়ির সামনে গুলি চলেছে। ২৫ রাউন্ডের উপর গুলি চলে বলে অভিযোগ। এলোপাতাড়ি গুলি চালানো হয়। পুলিশের জবাবে আহত হয়েছেন এক সিআইএসএফ কর্মীও।  মদন মিত্রের গাড়ি লক্ষ্য করেও বোমা ছোঁড়ার অভিযোগ ওঠে।

অন্যদিকে বিহারের পাটলিপুত্র লোকসভা কেন্দ্রের অন্তর্গত পালিগঞ্জের এ দিন দুপুরে দুই গোষ্ঠীর সংঘর্ষ বাধে। সরকুনা গ্রামের ১০১ ও ১০২ নম্বর বুথে সাময়িক ভাবে ভোটগ্রহণ স্থগিত করে দেওয়া হয়।

পাঞ্জাবের ভাটিন্ডায় তলবন্ডী সাবোতে ১২২ নম্বর বুথের বাইরে এ দিন দুপুরে দুই গোষ্ঠীর মধ্যে সংঘর্ষ বাঁধে। পুলিশ জানিয়েছে, সংঘর্ষ চলাকালীন এক শূন্যে গুলি ছোড়ে। সংঘর্ষের ঘটনায় এক জন আহত হয়েছেন। সাময়িক ভাবে ওই বুথে ভোটগ্রহণ স্থগিত থাকলেও ফের সেখানে ভোটদান শুরু হয়।

একদিন আগে সন্ধ্যায় আর্যসভা মোড়ে তাণ্ডব চালায় কর্মীরা। দুপুর থেকে উত্তপ্ত পরিস্থিত তৈরি হয়েছিল ভাটপাড়ায়। তৃণমূল-বিজেপি দুপক্ষই দাবি করে আসছে, ভোটের আগে বহিরাগতদের আনা হয়েছে।

 

/এমএইচ/

লাইভ

টপ