মালয়েশিয়ায় দ্বিতীয়বারের মতো জাকির নায়েকের জবানবন্দি রেকর্ড

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ০০:২৯, আগস্ট ২০, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ০০:২৯, আগস্ট ২০, ২০১৯

মালয়েশিয়ার পুলিশ সদর দফতরে হাজির হয়ে দ্বিতীয়বারের মতো জবানবন্দি দিয়েছেন বিতর্কিত ইসলামি বক্তা জাকির নায়েক। দেশটির পুলিশের সিআইডি পরিচালক হুজির মোহাম্মদ জানিয়েছেন সোমবার স্থানীয় সময় বেলা তিনটায় হাজির হলে তার জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়। দেশটির সরকারি বার্তা সংস্থা বার্নামা জানিয়েছে গত ১৬ আগস্ট (শুক্রবার) প্রথমবারের মতো এই ভারতীয় নাগরিকের জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়।সোমবার মালয়েশিয়ার পুলিশ সদর দফতরে হাজির হন জাকির নায়েক

ভারতের নাগরিক জাকির নায়েক মালয়েশিয়ায় স্থায়ী আবাসিকতার অনুমতি পেয়ে বর্তমানে সেখানে অবস্থান করছেন। ভারতের আদালতে অর্থপাচার ও ধর্মীয় বিদ্বেষ ছড়ানোর মধ্য দিয়ে জিহাদি কার্যক্রম উদ্বুদ্ধ করার অভিযোগ রয়েছে জাকিরের বিরুদ্ধে। দিল্লির পক্ষ থেকে তাকে ফেরত পাঠানোর আনুষ্ঠানিক আবেদন করা হলে ২০১৮ সালে মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ এ ব্যাপারে অনিচ্ছা প্রকাশ করেছিলেন। সম্প্রতি জাকির নায়েকের বিরুদ্ধে বর্ণবাদের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় তদন্ত করছে পুলিশের তদন্ত কমিটি। এখন এই তদন্তের ফলাফলের জন্য অপেক্ষা করছে সরকার। তদন্তে সত্যতা পেলে তার মালয়েশিয়ায় বসবাসের অনুমতি বাতিল করা হবে বলে জানা গেছে।

তদন্তের অংশ হিসেবে সোমবার জাকির নায়েকের জবানবন্দি রেকর্ড করে মালয়েশিয়ার পুলিশ। সিআইডি পরিচালক হুজির মোহাম্মদ বলেন, শান্তি ভঙ্গের উদ্দেশে ইচ্ছাকৃত অপমানের অভিযোগে পেনাল কোডের ৫০৪ ধারা অনুযায়ী জবানবন্দি দিয়েছেন জাকির নায়েক। গত ৩ ও ৮ আগস্ট পৃথক দুটি আলোচনা অনুষ্ঠানে মালয়েশিয়ার হিন্দু ও নৃতাত্ত্বিক চীনা জনগোষ্ঠীকে নিয়ে মন্তব্য করেন তিনি। ওই বক্তব্যকে কেন্দ্র করে তার বিরুদ্ধে বর্ণবাদের অভিযোগ ওঠার পর তা খতিয়ে দেখছে পুলিশ।

গত ৩ আগস্ট কোতা বারুতে এক আলোচনায় জাকির নায়েক মন্তব্য করেন,ভারতের সংখ্যালঘু মুসলমানদের চেয়ে মালয়েশিয়ায় থাকা সংখ্যালঘু হিন্দুরা শতগুণ বেশি অধিকার ভোগ করছেন। মালয়েশিয়ায় বসবাসকারী হিন্দুরা দেশটির চেয়ে ভারতের প্রধানমন্ত্রীকে সমর্থন করেন বেশি। এই মন্তব্যের জেরে তাকে মালয়েশিয়া থেকে বের করে দেওয়ার প্রসঙ্গ সামনে আসার পর তিনি জাতিগত সংখ্যালঘুদের লক্ষ্যবস্তু বানান। গত ৮ আগস্ট কেলানতান প্রদেশে এক আলোচনায় তিনি বলেন,প্রথমে জাতিগত সংখ্যালঘুদের চলে যেতে হবে কারণ তারা মালয়েশিয়ার অতিথি। তিনি বলেন,আপনারা জানেন কেউ কেউ আমাকে অতিথি বলে। সুতরাং আমি বলি আমার আগে চীনারা এখানকার অতিথি। নতুন অতিথিকে আপনি যদি চলে যেতে বলেন,তাহলে পুরনো অতিথিদেরও ফিরে যেতে বলুন। জাকির বলেন,‘চীনারা এখানে জন্ম নেয়নি,তাদের বেশিরভাগই। তারা নতুন প্রজন্ম হতে পারে অবশ্যই’।

তবে জাকির দাবি করেছেন,তার বক্তব্য সংবাদমাধ্যমে ভুলভাবে তুলে ধরা হয়েছে। তার দাবি,রাজনৈতিক ফায়দা নিতে মালয়েশিয়ার সরকারের প্রতি তার প্রসংশাসূচক বক্তব্যকে ভুলভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে।

 

/জেজে/

লাইভ

টপ