এখনও জাকির নায়েককে ভারতে পাঠানোর কথা ভাবছেন না মাহাথির

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ০৯:০৯, আগস্ট ২৩, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১০:৪৯, আগস্ট ২৩, ২০১৯

বিতর্কিত ইসলামি বক্তা জাকির নায়েককে এখনই নিজ দেশ ভারতে ফেরত পাঠানো হবে না বলে ঘোষণা দিয়েছেন মালয়েশীয় প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ। বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, এখন পর্যন্ত আমি আমার অবস্থান পাল্টাইনি। সিঙ্গাপুরভিত্তিক সংবাদমাধ্যম দ্য স্ট্রেইট টাইমসের এক প্রতিবেদন থেকে এই তথ্য জানা যায়। 

মালয়েশিয়ায় ধর্ম ও জাতিগত ইস্যুকে স্পর্শকাতর বিবেচনা করা হয়। দেশটির ৬০ শতাংশ মানুষ মুসলমান আর বাকিরা চীন ও ভারতের নৃতাত্ত্বিক জনগোষ্ঠী। এদের বেশিরভাগই সনাতন ধর্মাবলম্বী। সম্প্রতি জাকির মন্তব্য করেছেন, ভারতের সংখ্যালঘু মুসলমানদের চেয়ে মালয়েশিয়ায় থাকা সংখ্যালঘু হিন্দুরা শতগুণ বেশি অধিকার ভোগ করছে। তিনি আরও বলেন, মালয়েশিয়ায় বসবাসকারী হিন্দুরা মাহাথিরের নয়,ভারতের প্রধানমন্ত্রীর সমর্থক। এই মন্তব্যের জেরে জাকির নায়েককে মালয়েশিয়া থেকে বের করে দেওয়ার প্রসঙ্গটি আলোচনায় আসে। এ ঘটনায় পুলিশি তদন্ত চলছে। এ বিষয়ে দুইবার পুলিশের জেরার মুখেও পড়তে হয়েছে তাকে।

সংবাদ সম্মেলনে জাকির নায়েককে নিয়ে চলা বিতর্কে তাকে ফেরত পাঠানো হবে কি না সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে নিজের অবস্থানের পরিবর্তন হয়নি উল্লেখ করে মাহাথির বলেন, আমি এখনও তাকে ফেরত পাঠানোর পক্ষে নই। আমি আগের সিদ্ধান্তেই অটল রয়েছি। 

ভারতের আদালতে অর্থপাচার ও ধর্মীয় বিদ্বেষ ছড়ানোর মধ্য দিয়ে জিহাদি কার্যক্রম উদ্বুদ্ধ করার অভিযোগ রয়েছে জাকিরের বিরুদ্ধে। দিল্লির পক্ষ থেকে তাকে ফেরত পাঠানোর আনুষ্ঠানিক আবেদন করা হলে ২০১৮ সালে মাহাথির এ ব্যাপারে অনিচ্ছা প্রকাশ করেছিলেন।

চলতি বছর জুনের দ্বিতীয় সপ্তাহেও মাহাথির বলেছিলেন, ন্যায়বিচার ক্ষুণ্ন হওয়ার আশঙ্কা থাকলে জাকির নায়েককে ভারতে ফেরত পাঠানো হবে না। এরপর গত জুলাইয়ে টিআরটি ওয়ার্ল্ডের সঙ্গে আলাপকালে ৯৪ বছর বয়সী মাহাথির বলেছিলেন, ‘আমাদের দেশ মালয়েশিয়ায় ভিন্ন ভিন্ন বর্ণের ও ভিন্ন ভিন্ন ধর্মের মানুষ আছে। আমরা এমন কাউকে চাই না যাদের বর্ণগত সম্পর্ক ও অন্য ধর্ম সম্পর্কে কট্টর চিন্তাভাবনা রয়েছে। তবে জাকির নায়েককে আবার অন্য কোথাও পাঠানো কঠিন। কারণ, অনেক দেশই তাকে রাখতে চায় না।’

/এমএইচ/

লাইভ

টপ