ভুল পথে চলবেন না: ভারত ও পাকিস্তানের প্রতি ওবামা

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ১৮:১১, এপ্রিল ০৩, ২০১৬ | সর্বশেষ আপডেট : ১৮:১১, এপ্রিল ০৩, ২০১৬

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা ভারত ও পাকিস্তানের প্রতি ভুল পথে চালিত না হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। চতুর্থ ও শেষ পারমাণবিক নিরাপত্তা সম্মেলনের শেষ বেলায় তিনি এই আহ্বান জানান। পাকিস্তানভিত্তিক সংবাদমাধ্যম ডন খবরটি নিশ্চিত করেছে। তবে তারা জানিয়েছে, ভারত ও পাকিস্তানের প্রতি এই আহ্বান জানানো হলেও যুক্তরাষ্ট্র মূলত পাকিস্তানকেই এসব কথা বলতে চেয়েছে।
সম্মেলনে ওবামা বলেন, ‘দুই দিনের এই সম্মেলনে বিশ্বের সকল দিক থেকে রাষ্ট্রপ্রধানরা একত্র হয়েছেন একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে আলোচনা করতে আর তা হচ্ছে বিশ্বের নিরাপত্তা রক্ষায় সন্ত্রাসবাদের উত্থান মোকাবেলা করা।’ পরে সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘সন্ত্রাসবাদ বিষয়ে বিশেষ মনোযোগের দাবিদার যে কয়টি অঞ্চল আছে দক্ষিণ এশিয়া সেই তালিকায় শীর্ষে রয়েছে।’ তিনি বলেন, ‘পাকিস্তান ও ভারতে আরও উন্নয়ন প্রয়োজন। ভারতীয় উপমহাদেশের মধ্যে এই দুই রাষ্ট্র যেভাবে সেনা শক্তি বৃদ্ধি করছে, আশা করছি তারা ভুল পথে চলবে না।’
তবে যুক্তরাষ্ট্রের গণমাধ্যম তার এই মন্তব্যকে পাকিস্তানের প্রতি নির্দেশক বলেই উপস্থাপন করেছে। তাদের দাবি, দুই দিনের সম্মেলনে যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তারা পাকিস্তানকেই ক্ষুদ্র পারমাণবিক অস্ত্রে সমৃদ্ধ বলে চিহ্নিত করেছেন। এ ছাড়াও কিছু কিছু রাষ্ট্র ছোট ছোট পারমাণবিক অস্ত্র বৃদ্ধি করছে বলেও দাবি করেন ওবামা। তবে সেইসব রাষ্ট্রের নাম উল্লেখ করেননি তিনি।

বারাক ওবামা
ওবামা বলেন, ‘পারমাণবিক অস্ত্রের ক্রমাগত বৃদ্ধির কারণে এই সম্মেলন একটি বৈশ্বিক স্থাপত্য নির্মাণের চেষ্টা করেছে যা এই বৃদ্ধির হার কমাতে পারবে। যদিও এই প্ল্যাটফর্মে এটাই বিশ্বনেতাদের শেষ সম্মেলন।’ তিনি আরও বলেন, ‘এই সম্মেলনে একটি পুরো সেশনেই ইসলামিক স্টেট মোকাবেলায় করণীয় সম্পর্কে আলোচনা হয়েছে।’ এ ছাড়াও শনিবারের সাপ্তাহিক ভাষণে তিনি মন্তব্য করেন, ‘ইসলামিক স্টেট যদি পারমাণবিক অস্ত্রের খোঁজ পায়, তারা অবশ্যই তা ব্যবহার করবে। ওবামা বলেন,  ‘ভাগ্যক্রমে আমাদের সম্মিলিত প্রচেষ্টার ফলে এখনও কোন সন্ত্রাসবাদী সংগঠন পারমাণবিক অস্ত্রের খোঁজ পায়নি বা তারা তেজস্ক্রিয় অস্ত্র তৈরি করতে এখনও সক্ষম হয়নি। আমরা জানি আল কায়েদা সেই চেষ্টা করেছে। আইএস ইতোমধ্যে সিরিয়া ও ইরাকে  রাসায়নিক বোমা ব্যবহার করেছে।তারা যদি পারমাণবিক অস্ত্র হাতে পায় অবশ্যই তারা তা ব্যবহার করবে।’

তিনি বলেন, ‘দক্ষিণ আমেরিকাকে ভয়াবহ পদার্থগুলো থেকে মুক্ত করা হয়েছে। এ বছরের শেষে সেন্ট্রাল ইউরোপ ও দক্ষিণপূর্ব এশিয়াকেও মুক্ত করা হবে।’

ওবামা বলেন, ‘এই সম্মেলনে বিশ্বনেতারা এইসব ভয়াবহ পদার্থ নিয়ন্ত্রণে একমত হয়েছেন। এই সংকট মোকাবেলায় গোয়েন্দা তথ্য আদানপ্রদানেও সম্মত হয়েছেন তারা। অনেক রাষ্ট্রই পারমাণবিক বোমা তৈরিতে ব্যবহৃত ইউরেনিয়াম ও প্লুটোনিয়ামের মত তেজস্ক্রিয় পদার্থ বিন্যস্ত করতেও সম্মত হয়।’ তিনি বলেন, ‘পারমাণবিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে ২৬০টি নির্দিষ্ট অঙ্গীকার নেওয়া হয়েছে।শুধু এ বছরের সম্মেলন নয়, বরং আগের সম্মেলনগুলোতেও এবং এই পদক্ষেপগুলোর তিন চতুর্থাংশ ইতোমধ্যে বাস্তবায়িতও করা হয়েছে।’

প্রসঙ্গত, অন্তত ৫০ টি রাষ্ট্রের রাষ্ট্রপ্রধানরা ওয়াশিংটনে অনুষ্ঠিত দুই দিনব্যাপী এই সম্মেলনে অংশ নেন। সূত্র ডন

/ইউআর/বিএ/                

লাইভ

টপ