Vision  ad on bangla Tribune

চলতি শব্দের অভিধান || পর্ব-দুই

মোহাম্মদ মামুন অর রশীদ১২:৪৭, মার্চ ১০, ২০১৬

 পূর্ব প্রকাশের পর

 

খ্যাতা পুড়ি : ক্রি. নিকুচি করি অর্থে ব্যবহৃত হয়। who cares-মনোবৃত্তি বোঝাতে খ্যাতা পুড়ি ব্যবহার করা হয়।
খ্যাপ/খ্যাপ মারা : বি./ক্রি. মূল জীবিকার বাইরে এককালীন বাড়তি আয়ের সুযোগ। পূর্ববঙ্গে অন্য নদীতে মাছ ধরাকে খ্যাপ বলা হত। ভিন্নার্থে, নিজের মূল টিমের বাইরে এককালীন অন্য টিমে খেলাকে খ্যাপ বলা হয়। শওকত আলীর একটি উপন্যাসের নাম উত্তরের খ্যাপ।
খালি/খালি মামা : বি. বিণ. খালি রিকশাওয়ালাকে খালি মামা নামে কলেজ/বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীরা ডেকে থাকে। কখনও ‘এই খালি’ও বলা হয়।
গ্যানজাম/গ্যাঞ্জাম : বি./ক্রি. ঝামেলা, হলাহল, ভিড়। গ্যানজাম, গ্যাঞ্জাম, গেঞ্জাম ব্যবহৃত হয়। এই শব্দটি সাধারণত বিশৃঙ্খলা এবং ভিড় উভয়কেই বুঝিয়ে থাকে। কখনও ঝগড়া অর্থেও ব্যবহৃত হয়ে থাকে। যেমন, ‘গ্যাঞ্জাম করিস না, মিটামাট করে ফেল’।
গলাকাটা পাসপোর্ট : বি. ফটোশপ সফটয়্যারের মাধ্যমে ছবি এডিট করে পাসপোর্ট করার যে রীতি তাকে গলাকাটা পাসপোর্ট বলা হয়। বর্তমানে এমআরপি হওয়ায় পাসপোর্টের সাথে এ শব্দের ব্যবহার কমে এসেছে।
গলা ভাঙা/গলা বসা/গলা ধরা : ক্রি. গলা ভাঙা বলতে কণ্ঠস্বরের অস্বাভাবিক পরিবর্তনকে বোঝায়। কথা বলার অনুপযুক্ত কণ্ঠস্বরকে গলা ভাঙা বা বসা অর্থে প্রকাশ করা হয়। যেমন, ‘ওর ভাঙা গলার গান আমার মনে ধরেছে’। ‘ঠাণ্ডায় আমার গলা বসে গেছে, গান গাইতে পারব না আজ’। ‘সারাদিন বক্তৃতা করতে করতে গলা ধরে এসেছে, আর পারছি না’।
গড়িমসি : ক্রি./বিণ. অবহেলা সমেত কালক্ষেপণ করা। যেমন, ‘সে আমাকে ধারের টাকা ফেরত দিতে গড়িমসি করছে’। ‘বই বিতরণে গড়িমসি শিক্ষককে শোকজ’ সূত্র বাংলানিউজ২৪.কম, ০৭জানুয়ারি ২০১৪
গিরিঙ্গি : ঝামেলা পাকানো, পাঁচকরা, কূটচাল দেয়া। একটি বাংলাদেশি সিনেমার নাম গিরিঙ্গিবাজ।
গেটিজ/গেটিস দেয়া : বি./ক্রি. রেস্টুরেন্টে অতিরিক্ত ঝোল বা সবজি নেয়া। অনুমেয় যে, ইংরেজি gratice মানে কৃতজ্ঞতা থেকে গেটিস উদ্ভব হতে পারে। ভিন্নমতে, কাঠমিস্ত্রীরা গেটিজ বলতে হেলান দেয়া কাঠকে বুঝিয়ে থাকে যা ভার বহন করতে সাহায্য করে। প্রয়োজনের অতিরিক্ত কাঠকেও গেটিজ বলা হয়ে থাকে। কিন্তু সম্প্রতি গেটিজ বলতে খাবারের দোকানে তরকারি প্রথমবার নেয়ার পর দ্বিতীয় বার নেয়া ঝোলকে গেটিজ বলা হয়ে থাকে। ‘গেটিজ দিন’ এর অর্থ আমাকে অতিরিক্ত ঝোল দিন।
গুষ্ঠি কিলাই : বাগ. অবজ্ঞাভরে পরিত্যাগ করা। ‘চাকুরির গুষ্ঠি কিলাই, এই বদলোকের আন্ডারে আমি আর চাকুরি করব না’।
ঘাপটি মেরে থাকা : ক্রি. সুযোগের অন্বেষণ করা, চুপ করে লুকিয়ে থাকা, নিস্তেজ থাকা। যেমন, ‘আমি এখন ঘাপটি মেরে আছি, সময় আসুক সব সুদে আসলে বুঝে নেব’।
ঘাপানো : ক্রি. চাপিয়ে দেওয়া, ঠকিয়ে দেওয়া প্রভৃতি বিভিন্ন অর্থে ঘাপানো ব্যবহৃত হয়। কখনো প্রচুর কাজ করা বা প্রচুর খাওয়া বোঝাতেও ঘাপানো ক্রিয়াপদ ব্যবহার করা হয়। ‘ওরে তো ঘাপাই দিছে, নকল জিনিস বেশি দামে কিনছে’। ‘বাসায় কম খেলেও দাওয়াতে সবাই ঘাপায়’।
ঘুমনী/ঘুগনী : বি. রাস্তায় বিক্রি করা ঝালমুড়িতে ব্যবহৃত এক প্রকার মিশ্র মশলা। কখনো পুরো খাবারের নাম হয় ঘুমনী। মূল শব্দ ঘুগনি : সিদ্ধ মটর, সিদ্ধ আলু থেকে প্রস্তুত খাবার।
চামচ : বি. শিষ্য। চামচা শব্দের ইঙ্গিতবাহী রূপ।
চাম্পু /চাম্পুবাজ/ চাপাবাজ : বি. চাপাতে ওস্তাদ। কথার ফুলঝুড়ি যার এমন ব্যক্তি। আষাঢ়ে গল্প বলতে ওস্তাদ এমন ব্যক্তিকে চাম্পু বলা হয়। কখনও অধিক তৈল মর্দনকারী ব্যক্তিকেও চাম্পু বলা হয়। যেমন, ‘আরে ও তো একটা চাম্পু, সবাইকেই ওস্তাদ বানায়’।
চাফি : বি. শব্দটি চা ও কফির সমবায়ে গঠিত। চাফি মূলত কফিমিশ্রিত চা। যাতে চায়ের চেয়ে অধিক মূল্যে ও কফির চেয়ে কম মূলে লভ্য উভয় স্বাদ মিশ্রিত পানীয়। সাধারণত ছাত্র-ছাত্রীরাই চাফির প্রধান স্বাদগ্রহণকারী। যেমন, ‘বারেক ভাই, কড়া করে একটা চাফি (চা ও কফি একসঙ্গে) দাওতো, সঙ্গে একটা আগুন দিও। শিক্ষার্থীদের এ রকম হাজার কথার কলতানে মুখরিত থাকে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের 'টারজান পয়েন্ট'।’ সূত্র প্রথম আলো প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী সংখ্যা ২০১২
চাপ দেন : ক্রি. ভেতরে যাওয়া, চেপে যাওয়া। বাসের কন্ডাকটর বা হেল্পার যাত্রীদেরকে বাসের ভিতরে দিকে অগ্রসর করার জন্য বা চেপে যাওয়ার জন্য চাপ শব্দটি ব্যবহার করে থাকেন।
চালবাজ : বি. ধূর্ত প্রকৃতির ব্যক্তি, কৌশলে ব্যস্ত ব্যক্তি। সাধারণত দাবা খেলার সময় যে ভাল চাল দিতে পারে তাকে চালবাজ বলা যায়, কিন্তু বিশেষ অর্থে সামাজিক সম্পর্কের মধ্যে কৌশলী বা কৌশল অবলম্বনকারীকে চালবাজ বলা হয়।
চিজ/চীজ : বি. দুর্মূল্য ব্যক্তি। নিন্দার্থে ব্যবহৃত হয়। ‘ওযে কী চীজ, তুমি তা জানো না’। ‘চিনপন্থীরা কী চিজ!’ সূত্র আমারব্লগ.কম
চিটার/চীটার: বি./ ক্রি. ইংরেজি cheat মানে প্রতারণা করা, বিশেষ্য হিশেবে প্রতারক। কিন্তু ড্রাইভার, হেল্পার, টিচার-এর অনুকরণে বিশেষ বোঝাতে- er suffix যোগ করে বাংলায় ভুল প্রয়োগ করে কখনো কখনো চিটার বলা হয়। জনপ্রিয় একটি হিন্দি সিনেমায় বলা হয়েছে ‘রাহুল ইজ এ চিটার’।
চর্বি : বি. চা ও বিড়ি। তরুণরা কোনো ফুটপাতের বা বিশ্ববিদ্যালয়ের চায়ের দোকানে বসে চা ও সিগারেট খাওয়াকে একসঙ্গে চর্বি খাওয়া বলে থাকে।
চুটিয়ে বাঁচা : ক্রি. আনন্দ করে বাঁচা। বিজ্ঞাপনে ব্যবহৃত শব্দ। যেমন, ‘গুটিয়ে নয় চুটিয়ে বাঁচো’।
চালু : বিণ. দ্রুত। চালু নামেন (চালু কোনো জায়গার নাম নয়) অর্থাৎ জলদি নামেন। চালু দোকান (বিশেষ দ্রব্যের নাম নয় যা এখানে পাওয়া যেতে পারে) মানে সচল দোকান।
চোখ টেপা : ক্রি. চোখের ইশারায় ইঙ্গিত করা। কখনও বখাটে ছেলে কর্তৃক কোনো মেয়েকে এক চোখে ইশিরায় ইঙ্গিত করাকে চোখ টেপা বলা হয়ে থাকে।
ছয় ইঞ্চি : বি. একটি বিশেষ মাদকদ্রব্য। মাদকদ্রব্যে আধারের দৈর্ঘ্য অনুযায়ী এর সেবকরা/সংশ্লিষ্টরা ইঙ্গিতের মাধ্যমে শব্দটি ব্যবহার করে থাকে।
সিএনজি : বি. কমপ্রেসড ন্যাচারাল গ্যাস। তবে ঢাকায় সিএনজির মানে সিএনজিচালিত অটোরিকশা।
ছল্লি-বল্লি : ক্রি. বিণ চঞ্চল হওয়া, মনে অস্থিরতা থাকা।
ছ্যাকা খাওয়া : ক্রি. প্রেমে পরাজয়, প্রেমের আকাঙ্ক্ষায় চূড়ান্ত নিবৃত্তি, অপরপক্ষ থেকে সাড়া না পাওয়া। আগুনে গরম লোহার স্পর্শকে ছ্যাকা বলা হয় কিন্তু বর্তমানে সেই অর্থের সম্প্রসারণ ঘটেছে। ছ্যাকা> ছ্যাকামাইসিন : ছ্যাকার ওষুধ।
ছাইয়া ছাইয়া : বি. ছাইয়া বলতে তৃতীয় লিঙ্গ ধারণাকে ইঙ্গিত বা অবজ্ঞার্থে প্রকাশ করা হয়। তবে তৃতীয় লিঙ্গ ধারণায় সহমর্মী ব্যক্তি এই শব্দটি ব্যবহারে সতর্ক থাকেন।
জিগরি : বিণ. ঘনিষ্ঠ। নিকটের বন্ধু। মলয় রায়চৌধুরীর কবিতায় আছে জিগরি শব্দটি। ‘দোষ-নির্দোষের মাঝে আটক আমার জিগরি দোস্ত ফ্যাটুল চিঠিপাধ্যায়/ওর হাঙরহাসি মুখ ভেঙচে বাছুরের চামড়ায় বাঁধানো ভাগবতে/হাত রেখে শপথ করেছিল যে, ফাঁকা চেয়ারগুলোয় যে-অদৃশ্য লোকেরা/বসে থাকে তাদের বলবে : 'সময় ব্যাটাই বন্ধু সেজে ভয় দেখায়’।
জোস : বিণ. ‘অত্যন্ত চমৎকার’- এই অর্থে এই বিশেষণটি ব্যবহার করা হয়। যে কোনও বিশেষ্যের সাথে এই বিশেষণটি ব্যবহার হয় যেমন, জোস খাওয়া, জোস মোবাইল, জোস বান্ধবি, জোস আংকেল, জোস বিল্ডিং, জোস গাড়ি, জোস প্লেস প্রভৃতি।
ঝালফ্রাই : বি. ডিমভাজার এক প্রকার। মরিচ বেশি দিয়ে ডিমের কুসুম না ভেঙে তেলে ভাজার নাম ঝালফ্রাই।
ঝাক্কাস : বি. হি. চমকপ্রদ, অতি উৎকৃষ্ট, অসাধারণ। সাধারণত কোনও রসনাদায়ক খাবার, উজ্জ্বল পোশাক, আলোড়ন সৃষ্টিকারী সিনেমা, নজরকাড়া সুন্দরী মেয়েকে ঝাক্কাস বলে অভিহিত করা হয়। কলকাতার বাংলা সিনেমার একটি গানে এই শব্দটির ব্যবহার দেখা যায়। ‘ওর গালফ্রেন্ড তো ঝাক্কাস’!
জম্পেশ/জম্পেশ আড্ডা : বিণ./ বি. জমিয়ে আড্ডা। ইং. adj displaying pomp, pompous। জমানো বা জমিয়ে থেকে জম্পেশ শব্দটি এসেছে বলে ধারণা করা হয়। সাধারণত নারীরা অধিক পরিমাণে ব্যবহার করে। ‘মা দিবস উপলক্ষে দেওয়া বিশেষ এই সাক্ষাৎকারের জন্য লিন্ডসে লোহান সম্মানী পেয়েছেন ১০ হাজার ডলার। এই সম্মানীর টাকায়ই জম্পেশ একটি পার্টি দিয়েছেন তিনি’। ‘সর্বোচ্চ ৬০০ শব্দের মধ্যে লিখে ফেলুন জম্পেশ একটা গল্প। আর পাঠিয়ে দিন আমাদের ঠিকানায়। সূত্র  প্র. আ.।
টালবাহানা : বি./ক্রি.বিণ. সময় ক্ষেপণ, অজুহাত দেখানো। সাধারণত অভিযোগ বা অনুযোগ প্রকাশে শব্দটি ব্যবহার করা হয়। ‘বিমা দাবি পরিশোধে ইউনিয়ন ইন্সুরেন্সের টালবাহানা’। সূত্র বাংলা নিউজ২৪.কম। ‘বিরোধীদল টালবাহানা করে সংলাপ এড়িয়ে যাচ্ছে'-কচুয়ায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী’ সূত্র সম. ১৬ নভেম্বর ২০১৩।
ট্রিট দেওয়া : ক্রি. ইং উদযাপনমূলক খাবার। ইংরেজি treat থেকে বাংলায় প্রচলিত হয়। পছন্দমত জায়গায় কোনো আনন্দের উপলক্ষে খাবার খাওয়ানো। সাধারণত নতুন চাকরি, পরীক্ষায় ভালো রেজাল্ট, সম্পর্ক, শুভ ঘটনায় আপ্যায়ন করাকে ট্রিট হিসেবে অভিহিত করা হয়।
টিউবলাইট : বি. ধীরে চিন্তার ব্যক্তি। দেরিতে কোনো বিষয় আত্মস্থ করে এমন ব্যক্তি। টিউবলাইট যেমন জ্বলতে সময় নেয় তেমনি অনেক শিক্ষার্থী একটি বিষয় অনুধাবন করতে সময় নেয়, তাদের নিন্দার্থে টিউবলাইট বলা হয়। ‘এখানে যারা টিউবলাইট তারা আমার কথা বুঝতে পারবে না’।
টেক্সট করা : ক্রি. মোবাইলের ক্ষুদ্র বার্তা পাঠানো। আগে যাকে এসএমএস বা ক্ষুদে বার্তাকে টেক্সট করা বোঝানো হয়। আগে টেক্সট বলতে পাঠ্যবই বা নির্বাচিত লেখাকে বোঝালেও বর্তমানে মেইল বা মেসেজের লেখাকে টেক্সট হিসেবে প্রকাশ করা হয়।
টেকি ভাই : বি. টেকনোলজি এক্সপার্ট ভাই। ইংরেজি tech এর সাথে বাংলা ভাষার বৈশিষ্ট্য ই-প্রত্যয় যুক্ত হয়ে এর ইন্টানেট ব্যবহারকারীরা শব্দটির প্রচলন করেছেন। ‘কোনো টেকি ভাইয়ের কাছে আমার ওয়েবসাইটের এ সমস্যাটির সমাধান চাই’
ঠুলা : বি. একটি বিশেষ পেশাজীবীকে ঠুলা নামে অভিহিত করা হয়ে থাকে। ব্যাঙ্গার্থে ঠুলা ব্যবহৃত হয়ে থাকে।
ডালভাত : বিণ. সহজ, তরল। যা সুলভ, সহজ ও সাধারণ। ‘একাজ আমার কাছে ডালভাতের মতো, প্রতিদিনই করতে হয়।’ ‘অংকটা করতে করতে ডাইল-ভাত বানাই ফেলাইসে।’
ডালভাত খাওয়া : ক্রি. বাংলাদেশে নিমন্ত্রণ জানানোর ভদ্রতাপূর্ণ একটি রীতি। কাউকে নিমন্ত্রণ করা হয় এই বলে যে, আমার বাসায় ডালভাত খাবেন। প্রকৃত অর্থে খাদ্য তালিকায় ডাল ও ভাত অতি সুলভ হওয়ায় কৃত্রিম বিনয় প্রকাশে শব্দবন্ধটি ব্যবহার করা হয়। যদিও নিমন্ত্রণের খাদ্যতালিকায় সব ধরণের খাদ্য-উপদানই থাকে। ‘আগামী শুক্রবার এই গরীবের বাড়িতে দুইটা ডালভাত খাইবেন আর কি!’

 

(চলবে)

প্রথম পর্ব পড়তে ক্লিক করুন-

চলতি শব্দের অভিধান || পর্ব-এক

লাইভ

টপ