ইসিতে প্রথম ৫০টি আপিলের ২৫টিই বৈধ

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৭:১৯, ডিসেম্বর ০৬, ২০১৮ | সর্বশেষ আপডেট : ১৭:২২, ডিসেম্বর ০৬, ২০১৮

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মনোনয়নপত্র বাছাইয়ে রিটার্নিং অফিসারদের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে দায়ের করা আপিল আবেদনের শুনানি চলছে। মোট ৫৪৩টি আপিল আবেদনের মধ্যে আজ বৃহস্পতিবার (৬ ডিসেম্বর) শুনানির প্রথম দিনে প্রথম ৫০টি আপিলের মধ্যে ২৫টিকে বৈধ বলে ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। আজ ১৬০টি আপিলের শুনানি সম্পন্ন হবে বলে ইসি নিশ্চিত করেছে।

সকাল ১০টায় নির্বাচন কমিশনের অস্থায়ী এজলাসে এ শুনানি শুরু হয়েছে। প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদার নেতৃত্বে শুনানি চলছে।

প্রার্থিতা ফিরে পাওয়া ব্যাক্তিরা হলেন- মোরশেদ মিল্টন (বগুড়া–৭), তমিজ উদ্দিন (ঢাকা–২০), মো. আফসার উদ্দিন (সাতক্ষীরা–২), মো. আখতারুজ্জামান (কিশোরগঞ্জ–২), মো. গোলাম মাওলা রনি (পটুয়াখালী–৩), মো. আব্দুল মজিদ (ঝিনাইদহ–২), খন্দকার আবু আশফাক (ঢাকা–১), সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলম (দিনাজপুর–৩), মো. ফরিদুল কবির তালুকদার (জামালপুর–৪), মো. সুমন সন্যামত (পটুয়াখালী–১), জহিরুল ইসলাম মিন্টু (মাদারীপুর–১), আব্দুল কাইয়ুম চৌধুরী (সিলেট–৩), মো. ফজলুর রহমান (জয়পুরহাট–১), মো. হাসাদুল ইসলাম (পাবনা–৩), মো. আবিদুর রহমান খান (মানিকগঞ্জ–২), মো. আইনাল হক (সিরাজগঞ্জ–৩), মো. মাহবুব আলম (গাজীপুর–২), মো. জয়নাল আবেদিন (গাজীপুর–২), জেসমিন নূর বেবি (ব্রাক্ষ্মণবাড়িয়া–৬), মোস্তফা সেলিম (রংপুর–৪), এস.এম. শফিকুল আলম (খুলনা-৬), জুবায়ের আহমেদ (হবিগঞ্জ–১), মো. জয়নাল আবেদিন (ময়মনসিংহ–৭), আব্দুল্লাহ আল হেলাল (ব্রাক্ষ্মণবাড়িয়া–৩), মোহাম্মদ আবু বকর সিদ্দিক (ময়মনসিংহ–২)।

মনোনয়নপত্র বাছাইয়ে রিটার্নিং কর্মকর্তাদের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে মোট ৫৪৩ জন প্রার্থী আপিল করেন।  বুধবার (৫ ডিসেম্বর) শেষ দিনে ২২২টি আপিল জমা পড়েছে। এর আগে, সোমবার ৮৪টি ও মঙ্গলবার ২৩৭টি আবেদন পড়ে। বেশিরভাগ আপিলই মনোনয়নপত্র বাতিলের বিরুদ্ধে। তবে, রিটার্নিং অফিসার ঘোষিত বৈধ প্রার্থীদের প্রার্থিতা বাতিল করার আবেদন জানিয়েও কিছু আপিল জমা পড়েছে। এগুলোর বেশিরভাগই আওয়ামী লীগের প্রার্থীদের বিরুদ্ধে।  

নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার থেকে শনিবার পর্যন্ত প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদার নেতৃত্বে পূর্ণাঙ্গ কমিশন আপিলের শুনানি অনুষ্ঠিত হবে। সেখানে কেউ ক্ষুব্ধ হলে উচ্চ আদালতে যেতে পারবেন।

নির্বাচন কমিশনের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, আপিলের প্রথম দিনে ১ থেকে ১৬০, দ্বিতীয় দিনে ১৬১ থেকে ৩১০ এবং শেষ দিন ৩১১ থেকে ৫৪৩ ক্রমিক পর্যন্ত শুনানি হবে।

গত ২ ডিসেম্বর রিটার্নিং অফিসাররা যাচাই-বাছাই শেষে বৈধ-অবৈধ প্রার্থীর তালিকা প্রকাশের পরদিন ৩ ডিসেম্বর (সোমবার) থেকে নির্বাচন কমিশন আপিল গ্রহণ শুরু করে। বুধবার ছিল আপিল গ্রহণের শেষ দিন। ৩০৬৫ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করেন। এগুলো যাচাইয়ের পরে ৭৮৬ জনের প্রার্থিতা বাতিল করেন রিটার্নিং কর্মকর্তারা। ফলে বৈধ প্রার্থীর সংখ্যা দাঁড়ায় ২২৭৯ জনে।

দেশের ৩৯টি নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলের মনোনয়নপত্র জমা দেওয়া দুই হাজার ৫৬৭ জন প্রার্থীর মধ্যে বাতিল হয় ৪০২ জন। স্বতন্ত্র হিসেবে দাখিল করা ৪৯৮ জনের মধ্যে ৩৮৪ জন বাতিল হওয়ার পর বৈধ স্বতন্ত্র প্রার্থী রয়েছে ১১৪ জন।

ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের ২৬৪টি আসনে ২৮১ জন প্রার্থীর মধ্যে নৌকার বৈধ প্রার্থী ২৭৮ জন, বাতিল ৩ জন। বিএনপির ২৯৫টি আসনে ধানের শীষে ৬৯৬ জন প্রার্থীর মধ্যে বৈধ প্রার্থীর সংখ্যা ৫৫৫ জন, বাতিল হয়েছে ১৪১ জন। জাতীয় পার্টির ২১০ আসনে ২৩৩ জন প্রার্থীর মধ্যে লাঙ্গল প্রতীকে বৈধ প্রার্থী ১৯৫ জন, বাতিল হয়েছে ৩৮ জন।

উল্লেখ্য, নির্বাচন কমিশন ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী ২৮ নভেম্বর মনোনয়নপত্র দাখিল ও ২ ডিসেম্বর বাছাই। ৯ ডিসেম্বর প্রত্যাহার এবং ৩০ ডিসেম্বর ভোটগ্রহণের তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে।

/আরজে/এমএ/টিএন/

লাইভ

টপ