‘আসুন, এদের পাশে দাঁড়াই’

Send
এস এম আববাস
প্রকাশিত : ২২:০৩, জুলাই ১৩, ২০১৮ | সর্বশেষ আপডেট : ২২:০৭, জুলাই ১৩, ২০১৮





ব্যানার নিয়ে পথশিশুরাজাতীয় প্রেসক্লাবের সামনের রাস্তায় বেসরকারি শিক্ষকদের লাগাতার অনশন কর্মসূচি চলার সময় কয়েকটি পথশিশুকে নিয়ে সাংবাদিকদের দৃষ্টি আকর্ষণ করার চেষ্টা করছেন এক ব্যক্তি। ছোট ছোট দুটি ব্যানার নিয়ে অনেকক্ষণ চেষ্টা করে নয় শিশুকে লাইনে দাঁড় করিয়েছেন তিনি। সবার দৃষ্টি আকর্ষণ করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন নানাভাবে। দলমত নির্বিশেষে সবার সহায়তা চাইছেন, বলছেন, ‘এসব টোকাই ও এতিমের শিক্ষার ব্যবস্থা করেন। এদের আশ্রয় দিন।’ মন্ত্রী-এমপিদের প্রতিও অনুরোধ জানান তিনি। বলেন, ‘আসুন, এদের পাশে দাঁড়াই।’ গত সোমবার (৯ জুলাই) দুপুরের চিত্র এটি।
টোকাই, ফুল বিক্রেতাসহ নয় পথশিশুকে নিয়ে শিক্ষার জন্য এই আবেদন জানান ফারুক শেখ নামের এক যুবক। দীর্ঘ সময় চেষ্টা করে সবার দৃষ্টি ফেরাতে না পারলেও অনেকেই তার কথা শুনেছেন। কিন্তু কোনও আশ্বাস মেলেনি। প্রায় দেড় ঘণ্টা থাকার পর পথশিশুদের নিয়ে ফিরে যান ফারুক শেখ।
ফারুক শেখ জানান, তিনি কখনও লালবাগে থাকেন, কখনও ঢাকার বাইরে। ছোটখাটো কাজ করে সংসার চলে তার। তাই পথশিশুদের মানববন্ধন আয়োজনের এই সামান্য সাহায়তা করাও তার পক্ষে সম্ভব নয়। তাই সঙ্গে নিয়েছেন শহীদুল ইসলাম শহীদ নামের আরেকজনকে। দুজনেই আবেদন জানান আর ছোট একটা চিরকুট ধরিয়ে দেন পথচারীদের হাতে। তাতে লেখা: ‘বাংলাদেশের সব এমপি-মন্ত্রী মহোদয়ের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।’
ফারুখ শেখ বাংলা ট্রিবিউনকে জানান, দেশের সব শিশুর জন্য বিনামূল্যের পাঠ্যবই থাকলেও এসব শিশুদের জন্য তা দুঃস্বপ্ন। থাকার জায়গা নেই, স্কুলেও যায় না। বই পাবে কীভাবে?
ফারুক বলেন, ‘এসব শিশু বড় হয়ে বোমাবাজি করবে, চাঁদাবাজি করবে, না হয় চুরি-ডাকাতি করবে। তাই এখনই এদের আশ্রয় দিয়ে লেখাপড়া শেখালে এরা মানুষ হয়ে উঠবে। তাই তাদের নিয়ে মানববন্ধন করছি। লেখাপড়া আর আশ্রয়ের জন্য।’
দেশের প্রত্যেক থানায় একটি করে আশ্রয়কেন্দ্রে এই শিশুদের রেখে তাদের লেখা পড়ার ব্যবস্থা করার জন্য সবার প্রতি অনুরোধ জানান তিনি। সব দলের সব বর্তমান ও সাবেক এমপি-মন্ত্রীর প্রতিই তার অনুরোধ— ‘আসুন, এদের পাশে দাঁড়াই’।
ফারুক শেখ বলেন, ‘আমার তো টাকা-পয়সা নেই। তাই এমপি-মন্ত্রীরা যদি সহায়তা করেন তাহলে এরা মানুষ হবে। দেশের উন্নতি হবে। তাই আশ্রয়কেন্দ্রের ব্যবস্থা আর লেখাপড়ার সহায়তার জন্য আজ এসেছি এখানে।’
ফারুক শেখ জানান, শুধু এরাই নয় আরও অনেক শিশু রয়েছে যাদের আশ্রয় নেই। লেখাপড়া করছে না। আজ কয়েকজনকে নিয়ে আসা সম্ভব হয়েছে।
ব্যানার নিয়ে দাঁড়ানো পথশিশুদের মধ্যে টিএসসি এলাকার ফুল বিক্রেতা ১১ বছরের নয়ন জানায়, ‘আমি টোকাই না। অন্যরা টোকাই। আমি টিএসসিতে ফুল বেচি। লেখাপড়া করি না। লেখাপড়া করার টাকা নাই।’

/এইচআই/

লাইভ

টপ