behind the news
Rehab ad on bangla tribune
Vision Refrigerator ad on bangla Tribune

রিজার্ভের অর্থ চুরি: ছায়া তদন্তে র‌্যাব - পুলিশ

আমানুর রহমান রনি০৩:২২, মার্চ ১৩, ২০১৬

হ্যাকারবাংলাদেশ ব্যাংক আনুষ্ঠানিকভাবে এখন পর‌্যন্ত দেশের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সহযোগিতা না চাইলেও রিজার্ভের অর্থ চুরির বিষয়টি নিয়ে পুলিশ ও র‌্যাব ছায়া তদন্ত শুরু করেছে।
শনিবার ‍বিকালে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিএমপি) জনসংযোগ বিভাগের উপকমিশনার মারুফ হোসেন সরদার তার নিজ দফতরে এ বিষয়ে বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘আমার জানামতে বাংলাদেশ ব্যাংক এখনও আমাদের কাছে কোনও অভিযোগ করেনি। তবে তারা অন্য কোনওভাবে অভিযোগ করতে পারে যা আমার জানা নেই। তারা সহযোগিতা চাইলে অবশ্যই এই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টি নিয়ে কাজ করবে পুলিশ।’
বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃপক্ষ এ বিষয়ে কোনও থানায় কোনও অভিযোগ করেছে কিনা? এমন প্রশ্নের জবাবেও তিনি বলেন,‘আমার জানামতে এখন পর‌্যন্ত কোনও অভিযোগ করেনি। তবে তারা অনানুষ্ঠানিক অভিযোগ করতে পারে কারো কাছে, যা হয়তো আমি জানি না।’
এ বিষয়ে শনিবার রাত সাড়ে ১১ টার দিকে দুই দফায় ফোন দিয়েও র‌্যাবের মুখপাত্র মুফতি মাহমুদ খানকে পাওয়া যায়নি। তিনি ফোনটি কেটে দিয়েছেন। তবে তিনি একাধিক সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছে, র‌্যাব ঘটনাটির ছায়াতদন্ত শুরু করেছে। ঘটনার পর র‌্যাব সদস্যরা বাংলাদেশ ব্যাংক কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলেছেন।
প্রসঙ্গত, গত ৫ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশ ব্যাংকের সিস্টেম থেকে অর্থ স্থানান্তরের যে সংকেতলিপি (সুইফট কোড) ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংক অব নিউইয়র্কের কাছে পাঠানো হয়েছিল, তা ছিল বাংলাদেশ ব্যাংকেরই কোড। ওই কোড ব্যবহার করেই ১০১ মিলিয়ন ডলার স্থানান্তরিত হয়ে যায় ফিলিপাইনে। এ কারণে দেশের অভ্যন্তরের কোনও একটি চক্রের সহায়তায় হ্যাকার গ্রুপ বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভের অর্থ পাচার করেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এর সঙ্গে বাংলাদেশ ব্যাংকের শীর্ষ দু-একজন কর্মকর্তাও জড়িত থাকতে পারেন বলে মনে করছে চুরির ঘটনা তদন্তকারী সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো।
তবে, এই ঘটনার সঙ্গে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কোনও কর্মকর্তা জড়িত থাকার খবর এখন পর্যন্ত পাওয়া যায়নি বলে জানিয়েছেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের সহকারী মুখপাত্র আফম আসাদুজ্জামান। তিনি বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কোনও কর্মকর্তার আতঙ্কিত হওয়ার কারণ নেই।এখন পর্যন্ত কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কাউকে দোষী সাব্যস্ত করা হয়নি।
অবশ্য, বাংলাদেশ ব্যাংক কর্মকর্তারা ইতোমধ্যে স্বীকার করেছেন যে, তাদের কম্পিউটার সিস্টেমে দুর্বলতা ছিল এবং এ সমস্যা পুরোপুরি ঠিক করতে দু’বছরের বা তারও বেশি সময় লাগতে পারে।
/এআরআর/  এমএসএম 

Ifad ad on bangla tribune

লাইভ

Nitol ad on bangla Tribune
টপ