behind the news
Rehab ad on bangla tribune
Vision Refrigerator ad on bangla Tribune

গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেনএমপিদেরও প্লট দেওয়া হবে না

ওমর ফারুক১৮:১৫, মার্চ ২৬, ২০১৬

গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেনশুধু সাধারণ মানুষই নয়,এমপিদেরও আর প্লট দেবে না রাজউক।এখন থেকে শুধু ফ্ল্যাট দেওয়া হবে।অল্প জমিতে যাতে বেশি মানুষের বাসস্থানের ব্যবস্থা করা যায় সেজন্যেই এ উদ্যোগ।রাজধানী ও এর আশপাশের এলাকায় জমি সংকটের কারণে শুধু ফ্ল্যাট প্রকল্প বাস্তবায়নের পথে এগুচ্ছে সরকার।

বাংলা ট্রিবিউনকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে একথা বলেছেন গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন। তার সাক্ষাৎকারের গুরুত্বপূর্ণ অংশ তুলে ধরা হলো:

বাংলা ট্রিবিউন: রাজউকের অধীনে আর নতুন কোনও আবাসিক এলাকা করার পরিকল্পনা আছে কিনা?

ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন: আমরা আর আবাসিক এলাকা নির্মাণ করব না। কোনও প্লটও কাউকে দেওয়া হবে না। এখন থেকে রাজউক কেবল স্যাটেলাইট শহর করে সেখানে অ্যাপার্টমেন্ট প্রকল্প বাস্তবায়ন করবে।

বাংলা ট্রিবিউন: গত বছর আপনি জাতীয় সংসদে বলেছিলেন যে, এমপিদের প্লট দিতে নতুন প্রকল্প হাতে নেবেন? আর এখন বলছেন প্লট নয়,ফ্ল্যাট দেবেন। এর কারণ কী?

ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন: এখন তো ঢাকার চারপাশে কোনও জমি খালি নেই। বেসরকারি হাউজিং কোম্পানিগুলো একের পর এক প্রকল্প করছে। আমরা জমি পাবো কোথায়? আপনারাই দেখুন ঢাকার মধ্যে এখন কি আর কোনও জমি খালি আছে?

রাজউক ইতোমধ্যে অনেক প্লট বরাদ্দ দিয়েছে। ১৯৯৬ সালের সরকারে আমি মন্ত্রী থাকাবস্থায় কেরানীগঞ্জে ঝিলমিল, উত্তরায় তৃতীয় পর্ব, পূর্বাচল নতুন শহর প্রকল্প হাতে নিই। মাত্র একশ’ কোটি টাকায় ঝিলমিল প্রকল্প বাস্তবায়নের উদ্যোগ নিই। তিনশ’ কোটি টাকার প্রকল্প ছিল উত্তরা তৃতীয় পর্ব। কিন্তু এখন কি এই দামে কোথাও জমি পাবো? নিশ্চয়ই না। তাই আমরা প্লটের চিন্তা বাদই দিয়েছি। আর একটা প্লটও কাউকে বরাদ্দ দেওয়া হবে না।

বাংলা ট্রিবিউন: তাহলে এমপিদের কী হবে?

ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন: তারাও ফ্ল্যাট পাবেন। প্রয়োজনে তাদেরকে গ্রুপ করে ২০ কাঠা জমি দেবো। বলব ওই জমিতে ফ্ল্যাট নির্মাণ করতে।সেখানে অনেক এমপির বাসস্থান হবে।আগে যেমন একজনকেই পাঁচ-দশ কাঠা জমি দেওয়া হতো,আগামীতে এটা আর হবে না।

গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন বাংলা ট্রিবিউন:এমপিদের না হয় ফ্ল্যাট দেবেন,সাধারণ মানুষরা যাবে কোথায়?

ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন: সাধারণ মানুষের জন্য তো স্যাটেলাইট টাউন হচ্ছে। এই যেমন উত্তরায় পনের হাজার ফ্ল্যাট নির্মাণ প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।এর মধ্যে একটি ব্লকের কাজ দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলেছে। বাকি কাজ বাংলাদেশ ও মালয়েশিয়া সরকারের মধ্যে জি-টু-জি পদ্ধতিতে নির্মাণ করা হবে।মালয়েশিয়ানরা আমাদের ফ্ল্যাটগুলো নির্মাণ করে দেবে। চুক্তি অনুযায়ী তারা কিছু লাভ পাবে। চার বছরের মধ্যে ফ্ল্যাট রেডি হয়ে যাবে। এ কাজটি দ্রুত এগিয়ে চলেছে। এরপর আমরা পূর্বাচল ও ঝিলমিলেও অ্যাপার্টমেন্ট নির্মাণ কাজ শুরু করব।

প্রসঙ্গত,রাজউকের উত্তরা তৃতীয় পর্বের ১৮ নম্বর সেক্টরে ২১৪.৪৪ একর জমির ওপর ফ্ল্যাট প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। ‘এ, বি এবং সি’- এ তিনটি ব্লকে ফ্ল্যাট হবে ১৫ হাজার ৩৬টি। প্রকল্পের প্রাক্কলিত ব্যয় ধরা হয়েছে ৯ হাজার ৩০ কোটি ৭২ লাখ টাকা। প্রকল্পে ১৭৯টি ষোলতলা ভবন হবে। বর্তমানে চলমান ‘এ’ ব্লকের কাজ শেষ হলে পর্যায়ক্রমে ‘বি’ এবং ‘সি’ ব্লকে কাজ শুরুর কথা রয়েছে। ‘এ’ ব্লকের ৭৯টি ভবনে ফ্ল্যাট হবে ৬৬৩৬টি।

বাংলা ট্রিবিউন: আবাসনের ব্যবস্থা কি শুধু রাজউক করছে?

ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন: রাজউকের পাশাপাশি জাতীয় গৃহায়ণ কর্তৃপক্ষ এবং বিভিন্ন উন্নয়ন কর্তৃপক্ষও এ কাজটি করছে। জাতীয় গৃহায়ণ কর্তৃপক্ষ ঢাকার লালমাটিয়া ও মিরপুর এলাকায় সাধারণ জনগণ ও সরকারি কর্মকর্তাদের জন্য ফ্ল্যাট নির্মাণ প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে।

বাংলা ট্রিবিউন: ঢাকা শহরের ভেতর বিভিন্ন ভবন মালিকরা নকশার ব্যতিক্রম ঘটিয়ে ভবন নির্মাণ করেছেন।পার্কিংয়ের জায়গায় দোকানপাট ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান তুলে চালাচ্ছেন। এসবের বিরুদ্ধে আপনাদের বর্তমান অবস্থান কী?

ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন: এর বিরুদ্ধে আমাদের উচ্ছেদ অভিযান চলমান আছে। রাজউককে বলে দিয়েছি এ ব্যাপারে ‍যেন কারও কথা না শোনে। আসলে ঢাকার সর্বনাশ আমরা নিজেরাই করেছি। অথচ রাজউক খুব পরিকল্পিতভাবে কাজ করে যাচ্ছিল। এই যেমন গুলশান এলাকার কথাই ধরুন। সেখানে সুন্দর সুন্দর লেক আছে। অথচ এই লেক ভরাট করেই প্রভাবশালীদের জন্য প্লট তৈরি করা হয়েছে। শুধু তাই নয়,লেকের জমিতে প্লট করার পর লেকের ওপর বস্তিও করা হয়েছে।এই বস্তিতে থাকে বিভিন্ন বাসাবাড়ির কাজের বুয়ারা।

এবার আমার নির্দেশে গুলশানকে জঞ্জালমুক্ত করা হচ্ছে। আর একটা প্লটও যাতে গুলশান লেকে তৈরি হতে না পারে, সে জন্য লেকের চারদিকে ওয়াকওয়ে নির্মাণ করা হয়েছে।গুলশান লেক উন্নয়নে রাজউক কাজ করছে। এক সময় দেখবেন কি সুন্দর হয় এই লেক।

 

ওএফ/ এপিএইচ/

Ifad ad on bangla tribune

লাইভ

Nitol ad on bangla Tribune
টপ