ফেসবুকে যাত্রীর অভিযোগে সিভিল এভিয়েশন কর্মকর্তার কারাদণ্ড

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট০৭:৩০, মার্চ ৩১, ২০১৬

প্রতারণা করে টাকা হাতিয়ে নেওয়া নিরাপত্তা কর্মকর্তা ( গোল চিহ্নিত)যাত্রী হয়রানির অভিযোগে সিভিল এভিয়েশন অথরিটির এক নিরাপত্তা কর্মকর্তাকে ৩ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড ও ৫ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট। সিভিল এভিয়েশন অথরিটির ওই নিরাপত্তা কর্মকর্তার নাম মোশারফ। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের মাধ্যমে এক যাত্রী অভিযোগ করলে অনুসন্ধানে এর সত্যতা মেলে। বিমানবন্দরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ ইউসূফ বাংলা ট্রিবিউনকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
জানা গেছে, মঙ্গলবার (২৯ মার্চ) রাত ১টার দিকে মালয়েশিয়াগামী নজরুল নামের এক যাত্রীর কাছে থেকে প্রতারণা করে এক হাজার টাকা হাতিয়ে নেন নিরাপত্তা কর্মকর্তা মো. মোশারফ। নজরুলের পাশে থাকা আরেক যাত্রী (নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক)এ ঘটনা দেখে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ ইউসূফের মোবাইলে ফোন করে অভিযোগ জানান। তিনি নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটকে জানান, মালয়েশিয়া এয়ারলাইন্সের যাত্রী মো. নজরুলের কাছ থেকে ভয়ভীতি দেখিয়ে এক হাজার টাকা নিয়েছেন ওই কর্মকর্তা। ৯ হাজার টাকা নিয়ে বিমানবন্দরে আসেন নজরুল। আন্তর্জাতিক ফ্লাইটে ভ্রমণের ক্ষেত্রে নগদ ৫ হাজার টাকার বেশি নেওয়া না যাবে বলে তার কাছ থেকে এক হাজার টাকা রেখে দেন মো. মোশারফ হোসেন ও আতিক নামের দুই নিরাপত্তা কর্মকর্তা। আর বাকি ৮ হাজার টাকা তাকে দিয়ে বিমানে ওঠার অনুমতি দেন। যদিও আইন অনুযায়ী নগদ ৫ হাজার টাকার বেশি কোনও যাত্রী সঙ্গে রাখতে পারবেন না। অভিযোগ শুনে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ ইউসূফ ওই যাত্রীকে ভুক্তভোগী নজরুল এবং অভিযুক্ত কর্মকর্তার ছবি তুলে ফেসবুকে  বিমানবন্দর ম্যাজিস্ট্রেটের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজ এ (https://www.facebook.com/magistrates.all.airports.bangladesh) পাঠাতে বলেন।
আদালত সূত্র জানায়, যাত্রীর পাঠানো ছবি, সময় ধরে বুধবার (৩০ মার্চ) বিমানবন্দরের সিসি ক্যামেরার ভিডিও ফুটেজ যাচাই-বাছাই করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ ইউসূফ। সেখানে সিভিল এভিয়েশনের সিকিউরিটি কর্মকর্তা মোশারফের টাকা নেওয়ারও সত্যতা মেলে। রাত ৮টার দিকে বিমানবন্দরে ভ্রাম্যমাণ আদালতেও স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন মো. মোশারফ। আরেক কর্মকর্তা আতিক বর্তমানে পলাতক রয়েছেন। যাত্রী হয়রানির ঘটনায় জড়িত থাকার দায়ে অভিযুক্ত কর্মকর্তা মোশারফকে ৩ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড ও ৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। একই সঙ্গে তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে নির্দেশনাটি বেবিচক চেয়ারম্যানের কাছেও পাঠানো হয়েছে।
এ প্রসঙ্গে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ ইউসূফ বলেন, ফেসবুকে আমরা নানা ধরনের অভিযোগ পাই। অনেকে ফোনেও অভিযোগ জানান। এমন একটি অভিযোগের ভিত্তিতে মোশারফকে কারাদণ্ড দিয়ে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে। যাত্রী হয়রানির বিষয়ে আমরা কোনও ছাড় দেই না। কোনও ধরনের অন্যায়কেই প্রশ্রয় দেওয়া হবে না।
/সিএ/এমএসএম 

লাইভ

টপ