স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও ঢাকার দুই মেয়র মশা মারার নাটক করছেন: মান্না

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৩:২২, আগস্ট ০২, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৩:২৭, আগস্ট ০২, ২০১৯

নাগরিক ঐক্যের সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখছেন মাহমুদুর রহমান মান্না

নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেছেন, দেশের সব জেলা এখন ডেঙ্গু কবলিত। দেশের মানুষ নিরাপদ নয়। স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও ঢাকা সিটির দুই মেয়র এখনও পর্যন্ত মশা মারার কার্যকর ওষুধ আমদানি করতে পারেননি। কিন্তু তারা মশা মারার নাটক করছেন।

শুক্রবার (২ আগস্ট) সকালে জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

মশা নিধনে বর্তমানের ওষুধটি কার্যকর নয় বলে দাবি করে মান্না বলেন, ‘গত দুই-তিন বছর এমন রিপোর্ট দেখা গেছে যে, শুধু মাত্র পছন্দের কোম্পানিকে অন্যায়ভাবে কাজ পাইয়ে দেওয়ার জন্য একই ওষুধ কেনা হয়েছে।স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও ঢাকা সিটির দুই মেয়র এখনও পর্যন্ত মশা মারার ওষুধ আমদানি করতে পারেননি, কিন্তু তারা মশা মারার নাটক করছেন।’

 মশা মারার কার্যকর ওষুধ কেনার জন্য প্রধানমন্ত্রীকে নির্দেশ দিতে হয়েছে বলে উল্লেখ করে মান্না বলেন, ‘এরকম একটা ব্যাপারে যদি প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশের প্রয়োজন হয়, তাহলে ঢাকার দুই সিটি মেয়র ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী এবং একইসঙ্গে সংশ্লিষ্টদের পদে থাকার কোনও নৈতিক অধিকার নেই।’

নাগরিক ঐক্যের এই নেতা বলেন, ‘ ডেঙ্গুর সিজন এখনও তিন মাস বাকি।  আগামী সেপ্টেম্বরে এটা সর্বোচ্চ পর্যায়ে ওঠার কথা। আমাদের দেশে যখন ডেঙ্গুর ভয়াবহ বিস্তার, তখন পশ্চিমবঙ্গে প্রকোপ কমে গিয়ে সামান্য পর্যায়ে আছে। মানুষের প্রতি দায়বদ্ধ সরকার থাকলে, সেটার ফল কী হতে পারে পশ্চিমবঙ্গ তা দেখিয়েছে। আর মানুষের  প্রতি দায়বদ্ধতা না থাকলে, তার ফল কী হয়, সেটার প্রমাণ বাংলাদেশ।’ ডেঙ্গু মোকাবিলায় প্রতিটি ওয়ার্ডে ক্যাম্প স্থাপন ও প্রতিদিন মশার ওষুধ ছিটানোর দাবি জানান মান্না।

তিনি আরও বলেন, ‘ডেঙ্গু নিয়ে সরকারের স্বাস্থ্যমন্ত্রী এবং ঢাকার দুই সিটির দুই মেয়র কী বাগাড়ম্বর করছেন। অনর্থক বিরোধী দলের রাজনীতিকে দোষারোপ করছেন। তবে একথাও সত্য যে, বিরোধী দলের রাজনীতি আজ অনৈক্যের কানা গলিতে আর আপসকামিতার চোরাবালিতে আটকে গেছে।’

‘ভোট ডাকাতির সংসদ’ বাতিলের দাবি জানিয়ে মান্না বলেন, ‘অবিলম্বে একটি গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের ব্যবস্থা করতে হবে।’

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন নাগরিক ঐক্যের নেতা এস এম আকরাম, মোমিনুল হক, ডা.জাহিদউর রহমান প্রমুখ।

/এএইচআর/এপিএইচ/

লাইভ

টপ