প্রসঙ্গ: শোভন-রাব্বানী প্রধানমন্ত্রী বললেন-এরা ‘মনস্টার’ হয়ে গেছে, নেতারা সবাই চুপ

Send
মাহবুব হাসান
প্রকাশিত : ০২:৩০, সেপ্টেম্বর ১৫, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৪:১০, সেপ্টেম্বর ১৫, ২০১৯

−−−আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সভায় বক্তব্য রাখছেন দলের সভাপতি শেখ হাসিনা
ছাত্রলীগের অব্যাহতিপ্রাপ্ত সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন এবং সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানীকে ‌‌‘মনস্টার’ সম্বোধন করেছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ‘আমি ওদের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক বানিয়েছি, কিন্তু ওরা পদ পাওয়ার পর মনস্টার হয়ে গেছে।’ এরপরই তাদের জায়গায় প্রথম সহ-সভাপতিকে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এবং প্রথম যুগ্ম সাধারণ সম্পাদককে ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব দেওয়ার ঘোষণা দেন তিনি।

শনিবার (১৪ সেপ্টেম্বর) দলের কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকের অনির্ধারিত আলোচনার সময় প্রধানমন্ত্রী এ মন্তব্য করেন। বৈঠকের একাধিক সূত্র বাংলা ট্রিবিউনকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

সূত্র মতে, কার্যনির্বাহী সংসদের পুরো বৈঠকে কোনও নেতাই ছাত্রলীগের প্রসঙ্গটি তোলেননি। সাংগঠনিক ও রাজনৈতিক নানা বিষয় আলোচনার পর একদম শেষের দিকে দলের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, রাজনৈতিক বিষয় নিয়ে আর কারও কিছু বলার আছে কিনা? তখনও সবাই চুপ করে থাকলে তিনি নিজেই ছাত্রলীগের বিষয়টি নিয়ে কথা বলেন।

ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের পদ হারালেন রেজওয়ানুল হক শোভন ও গোলাম রাব্বানীসূত্র জানায়, বৈঠকে ছাত্রলীগের দুই নেতার কর্মকাণ্ড নিয়ে প্রধানমন্ত্রী অসন্তোষ প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, ‘শোভন-রাব্বানীর বিরুদ্ধে অনেক অভিযোগ। সর্বশেষ তারা জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসির কাছে বিশ্ববিদ্যালয়ের বার্ষিক বাজেটের পার্সেন্টেজ চাইতে গিয়েছিল। ভিসি তাতে রাজি না হওয়ায় উল্টো তাকেই দোষারোপ করার চেষ্টা করেছে। তার বিরুদ্ধেই অভিযোগ তুলেছে। এরা (শোভন-রাব্বানী) আসলে মনস্টার হয়ে গেছে। এদের আর ছাত্রলীগের নেতৃত্বে থাকার দরকার নেই।’

এরপরই তিনি শোভন-রাব্বানীকে অব্যাহতি দিয়ে প্রথম সহ-সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় এবং প্রথম যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্যকে ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব দেওয়ার কথা ঘোষণা দেন।

প্রসঙ্গত, গত ৭ সেপ্টেম্বর দলের সংসদীয় ও স্থানীয় সরকার বোর্ডের সভায় ছাত্রলীগ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগের কথা তুলে ধরে ক্ষোভ প্রকাশ করেন শেখ হাসিনা। তিনি তাদের কমিটি ভেঙে দেওয়ার কথা বলেন। পরে শোভন-রাব্বানীর গণভবনে প্রবেশের স্থায়ী পাসও বাতিল করা হয়। একই ধারাবাহিকতায় শনিবার আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকে শোভন-রাব্বানীকে ছাত্রলীগের নেতৃত্ব থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়।

আরও পড়ুন:
যুবলীগের কিছু নেতার উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী: এরা শোভন-রাব্বানীর চেয়েও খারাপ

শোভন-রাব্বানী বাদ, ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জয়-সা. সম্পাদক লেখক



/টিটি/এপিএইচ/

লাইভ

টপ