ক্রাইস্টচার্চ ছাড়ার সময়েও ক্রিকেটারদের চোখেমুখে আতঙ্ক

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৩:৫৬, মার্চ ১৬, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৪:১২, মার্চ ১৬, ২০১৯

এমন কিছু যে নিউজিল্যান্ডে ঘটতে পারে, তার জন্য একেবারেই প্রস্তুত ছিলেন না বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা। নিজের চোখেকে যেন বিশ্বাস করাতে পারছিলেন না তারা। ৪-৫ মিনিট এদিক-ওদিক হলেই হয়তো তারাও হতেন ক্রাইস্টচার্চের নির্মম ট্র্যাজেডির শিকার। ঘোর কাটার পর তামিম-মুশফিকদের মাথায় শুধু একটা বিষয়ই ঘুরেছে, যত দ্রুত সম্ভব দেশে ফেরার। শনিবার বাংলাদেশ সময় সকালে নিউজিল্যান্ড ছেড়েছে বাংলাদেশ দল।

ক্রাইস্টচার্চের দুই মসজিদের রক্তবন্যার ঘটনার অনেকটা সময় পেরিয়ে গেলেও বিমানবন্দরে বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের চোখেমুখে ছিল আতঙ্কের ছাপ। চোখের সামনে দেখা ঘটনা দাগ কেটে দিয়েছে তাদের মনে। ভাবতেই তাদের গা শিউরে উঠছে, সংবাদ সম্মেলনটা দীর্ঘ না হলে মসজিদের ভেতর তারাও থাকতেন। এরপর... আর ভাবতে পারেন না মুশফিকরা। ক্রাইস্টচার্চ বিমানবন্দরে ছাড়ার সময়ও শঙ্কার মেঘে ঢাকা তাদের মন।

১.১. যা দেখেছেন, ভয়ঙ্কর সেই পরিস্থিতি যেন জীবন্ত হয়ে ফুটে উঠছে মুশফিকুর রহিমের চোখেমুখে।

২.২. লিটন দাস ছিলেন হোটেলে, লোমহর্ষক ঘটনা চোখে দেখা হয়নি তার। তবে সতীর্থদের কাছে শোনা বর্ণনায় তিনিও স্তব্ধ।

৩.৩. মোস্তাফিজুর রহমানের মুখটাই বলে দিচ্ছে সব।

৪.৪. মাহমুদউল্লাহই নেতৃত্ব দিয়েছেন টেস্টে। সংবাদ সম্মেলনে তার দেরি হওয়াতেই রক্ষা পেয়েছেন ক্রিকেটাররা।

৫.৫. কড়া নিরাপত্তায় বাংলাদেশ দল ছেড়েছে ক্রাইস্টচার্চ।

৬.৬. তামিম ইকবাল ও প্রধান কোচ স্টিভ রোডস (ডানে) এখনও আছেন ঘোরে।

৭.৭. পুলিশ পাহারায় ক্রাইস্টচার্চ বিমানবন্দরে লিটন-মোস্তাফিজরা।

৮.৮. ক্রাইস্টচার্চের সন্ত্রাসী হামলা নিয়েই হয়তো স্টিভ রোডস কথা বলছিলেন নিউজিল্যান্ড পুলিশের সঙ্গে।

শুক্রবার (১৫ মার্চ) ক্রাইস্টচার্চের দুটি মসজিদে এক অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী হামলা চালিয়ে ৪৯ জন ইসলাম ধর্মালম্বী নারী-পুরুষ ও শিশুকে হত্যা করে। হামলার স্থান থেকে ৫০ গজ দূরে ছিলো তামিম-মুশফিকদের বাস। তৃতীয় টেস্টের ভেন্যু হ্যাগলি ওভাল মাঠের খুব কাছে আল নূর মসজিদে শুক্রবার স্থানীয় সময় বেলা দেড়টার দিকে সন্ত্রাসী হামলা হয়।

অনুশীলন শেষে ওই মসজিদে জুমার নামাজ পড়তে গিয়েছিলেন দলের কয়েকজন। সেখানে তারা একটু আগে মসজিদে ঢুকলেই ঘটে যেতে পারতো স্মরণকালের নৃশংসতম ঘটনা। সংবাদ সম্মেলনের জন্য মসজিদে যেতে দেরি হওয়াতেই মূলত বেঁচে গেছেন মুশফিক-তামিমরা। মসজিদে প্রবেশের মুহূর্তে স্থানীয় এক নারী বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের সতর্ক করেন গোলাগুলির কথা জানিয়ে। আতঙ্কিত খেলোয়াড়েরা তখন দৌড়ে হ্যাগলি ওভালে ফেরত আসেন। ওখান থেকে বাংলাদেশ দলকে বিশেষ নিরাপত্তায় নভোটেল হোটেলে নিয়ে যাওয়া হয়।

/কেআর/

লাইভ

টপ