behind the news
Rehab ad on bangla tribune
Vision Refrigerator ad on bangla Tribune

আইপিএল-এ বিস্ময়ের জন্ম দিতে মুস্তাফিজের ভারত যাত্রা

রবিউল ইসলাম২০:৪৭, এপ্রিল ০৫, ২০১৬

আবদুর রাজ্জাক, মোহাম্মদ আশরাফুল, মাশরাফি বিন মুর্তজা, সাকিব আল হাসান, তামিম ইকবালের পর ষষ্ঠ বাংলাদেশি ক্রিকেটার হিসেবে আইপিএল খেলতে গেলেন মুস্তাফিজ। ১ কোটি ৪০ লাখ রুপিতে তাকে নিয়েছে হায়দরাবাদ। মঙ্গলবার বিকাল পাঁচটার ফ্লাইটে আইপিএল-এ নবম আসরে বিস্ময়কর কিছু উপহার দিতে ইতোমধ্যেই ভারত পৌঁছেছেন মুস্তাফিজুর রহমান।
গত বছর ভারতের বিপক্ষে জাতীয় দলের জার্সি গায়ে দিয়ে আলো ছড়ানো শুরু করেন এই বিস্ময় বালক। তিনি একাই ভারতীয় ব্যাটিং লাইনআপকে গুঁড়িয়ে দেন। যা কিনা কোটি কোটি ক্রিকেট ভক্তের কল্পনারও অতীত ছিল। তিন ম্যাচে ১৩টি উইকেট শিকার করে সেই বালক শুধু যে ভারতীয় দলের কাছেই ভয়ঙ্কর হয়ে ওঠেছিল তা নয়; ক্রিকেট বিশ্বে হৈচৈ ফেলে দিয়ে বিশ্বরেকর্ড গড়ে ফেলেন।
এরপর তার পথ চলা থেমে থাকেনি। একটু একটু করে নিজেকে নিয়ে গেছেন অনন্য উচ্চতায়। এই বিস্ময় বালক সাতক্ষীরার কালীগঞ্জ উপজেলার তারালি ইউনিয়নের তেঁতুলিয়া গ্রামে ১৯৯৫ সালে ৬ সেপ্টেম্বর জন্মেছিলেন। চার ভাই ও দুই বোনের মধ্যে সবার ছোট মুস্তাফিজ।

এই বিস্ময় বালকের ক্রিকেটে আসার পেছনে ভূমিকা রেখেছেন সেজো ভাই মোখলেসুর রহমান। কালীগঞ্জ থেকে প্রতিদিন সাতক্ষীরা শহরে মোটরসাইকেলের পেছনে চড়িয়ে নিয়ে যেতেন তিনি। তার বড় ভাই এক সময় ক্রিকেট খেলতেন, মেজো ভাইও কম যান না, আর সেজো ভাই এখনও ক্রিকেট খেলেন।

হঠাৎ পাওয়া বিস্ময় বালক মুস্তাফিজকে আদৌ কোনও বিস্ময় বলা কি ঠিক হবে! বরং বলতে হবে মুস্তাফিজকে খুঁজে পাওয়াই যেন এক ধরনের বিস্ময়। তাইতো সামনে আরও অপেক্ষা করছে নানা বিস্ময়ের। প্রথমবারের মতো আইপিএল খেলতে গিয়ে কেমন বিস্ময়ের জন্ম দেয়; এটা দেখার অপেক্ষাতেই আছে কোটি কোটি ক্রিকেটভক্ত তথা মুস্তাফিজ ভক্তরা।

মঙ্গলবার মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে দুপুর দুটার দিকে হঠাৎ করেই উদয় হন কাটারবয় মুস্তাফিজ। উদ্দেশ্য ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগ থেকে আইপিএল খেলার অনাপত্তিপত্র (এনওসি) নেওয়া। সেখানে কিছুক্ষণের মধ্যেই কাজ শেষ করে বিসিবির গাড়িযোগে বিমানবন্দরের উদ্দেশে রওনা দেন।

এমনিতেই মুখচোরা স্বভাবের মুস্তাফিজ। প্রয়োজনীয় কথাটাও ঠিকমতো বলতে চান না। মঙ্গলবারও তাই করলেন। অনেক চাপাচাপি করার পরও কিছুই বললেন না। শুধু বললেন, ‘আল্লাহ সুযোগ করে দিয়েছেন। চেষ্টা করবো ভালো খেলতে।’

কথা বলে বিসিবির পরিচালনা বিভাগের রুম থেকে হেঁটে হেঁটে যান একাডেমি ভবনের দিকে। ওখানেই তার ব্যাগ-ল্যাগেজ সবকিছু। কেমন যেন বিষন্ন। প্রথমবার এতো বড় একটি টুর্নামেন্টে খেলতে যাচ্ছেন। হয়তো কিছুটা নার্ভাস মুস্তাফিজ। এমন প্রশ্ন করতেই হেসে উত্তর দিলেন।

তিনি বলেন, ‘না সেই রকম কিছু না। এতো কিছু নিয়ে ভাবছি না। একা একা যাচ্ছি তাই একটু নার্ভাস।’ বিস্ময় বালক মুস্তাফিজ একা একা যাবেন বলে নার্ভাস ফিল করলেও টুর্নামেন্ট নিয়ে কোনও নার্ভাসনেস কাজ করছে না। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমি ম্যাচ নিয়ে ভাবছি না। সুযোগ পেলে চেষ্টা করবো নিজের সেরাটা দিতে। যা আগেও দিয়েছি।’

এতোটুকু বলেই আর কি বলবো জানালেন। এরপর দ্রুত একাডেমি ভবনের দোতলায় চলে গেলেন মুস্তাফিজ। ফিরে আসলেন কিছুক্ষণের মধ্যেই। এবার অবশ্য মোবাইল রেকর্ডিংয়ের সামনে দাঁড়াতে বাধ্য হলেন। মাত্র এক মিনিটে তিনি তার অনুভূতিসহ লক্ষ্যের কথা জানালেন অনেক প্রশ্নের পর।

প্রথমবারের মতো আইপিএল খেলতে যাচ্ছেন। নিশ্চয়ই রোমাঞ্চ কাজ করছে? উত্তরে মুস্তাফিজ জানালেন, ‘ভালো লাগছে, খেলতে পারছি বলে।’

এরপর তার ভক্তদের কাছে দোয়া চাইতে গিয়ে শুধু নিজের জন্য নয়, বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানের জন্যও দোয়া চাইলেন। তিনি বলেন, ‘আমার জন্য সবাই দোয়া করবেন যেন ভালো করতে পারি। শুধু আমার জন্য না, সাকিব ভাইয়ের জন্যও দোয়া করবেন।’

/আরআই/এফআইআর/

ULAB
Ifad ad on bangla tribune

লাইভ

Nitol ad on bangla Tribune
টপ