ছোট হয়ে আসছে বিবিসি বাংলা রেডিও

Send
হিটলার এ. হালিম
প্রকাশিত : ০৬:০৫, এপ্রিল ০২, ২০১৮ | সর্বশেষ আপডেট : ০৬:৪০, এপ্রিল ০২, ২০১৮

বিবিসি বাংলা রেডিওবিশ্বখ্যাত সংবাদ মাধ্যম বিবিসি বাংলা বাংলাদেশে রেডিওর অনুষ্ঠান কমিয়ে টেলিভিশন ও ডিজিটাল মাধ্যমে নিজেদের কার্যক্রম সম্প্রসারণের উদ্যোগ নিয়েছে। এই পদক্ষেপ হিসেবে ১ এপ্রিল থেকে রেডিওতে প্রচারিত অনুষ্ঠানের সংখ্যা নেমে এসেছে দু’টিতে, যা আগে ছিল চারটি। অন্যদিকে, টেলিভিশনে এখন সপ্তাহে তিন দিন বাংলা অনুষ্ঠান সম্প্রচার করছে ব্রিটিশ এই গণমাধ্যম।
বিবিসি বাংলার সম্পাদক সাবির মুস্তাফা বাংলা ট্রিবিউনকে জানান, দর্শক ও শ্রোতাদের আগ্রহের পরিপ্রেক্ষিতে বিবিসি বাংলার অনুষ্ঠান নতুন করে সাজানো হয়েছে। ডিজিটাল মাধ্যমকে গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে বেশি। ডিজিটাল মাধ্যমকে ভবিষ্যতের মাধ্যম উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে ক্ষেত্র বিশেষে এগিয়ে থাকতে ডিজিটাল মাধ্যমে যেতেই হবে।’
জানা গেছে, এরই মধ্যে বিবিসি বাংলা বিভাগ ৭৫ বছর পূর্ণ করেছে।
সাবির মুস্তাফা বলেন, ‘আমরা একটি সার্ভে করে দেখেছি, বর্তমান সময়ে সবচেয়ে বড় প্ল্যাটফর্ম হলো টিভি। শতকরা ৮১ ভাগ মানুষ টিভি দেখে। আর রেডিও শোনেন ১৫ শতাংশ মানুষ। অন্যদিকে গত বছর অনলাইনে মাধ্যমের পাঠক বেড়েছে ৩০ শতাংশ। ফলে এই নতুন সিদ্ধান্ত এসেছে।’
তিনি উল্লেখ করেন, সার্ভেতে আরও উঠে এসেছে এক সপ্তাহে আমাদের টিভি অনুষ্ঠান দেখেছেন ৯২ লাখ দর্শক। আর রেডিও শুনেছেন ৭৫ লাখ শ্রোতা। দেখা যাচ্ছে রেডিওর শ্রোতা কম বা কমছে। এসব বিভিন্ন কারণে বিবিসি বাংলা ডিজিটাল মাধ্যমের দিকে বেশি মনোযোগ দিয়েছে। তবে তিনি মনে করেন না রেডিও একেবারে বিলীন হয়ে যাবে। এজন্য অনুষ্ঠানের মান বাড়ানোর জন্য তারা উদ্যোগ নিয়েছেন। সংখ্যা দিয়ে নয় অনুষ্ঠানের মান বাড়িয়ে কর্তৃপক্ষ শ্রোতাদের ধরে রাখার ব্যাপারে বেশি মনযোগী হয়েছেন তারা।
রেডিওর অডিও কনটেন্ট রাখার পাশাপাশি ডিজিটাল মাধ্যমে টেক্সট, ভিডিও বেশি করে যুক্ত করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতেও সমানতালে উপস্থিত থাকার উদ্যোগ এরই মধ্যে বাস্তবায়ন করতে শুরু করেছে এই বিট্রিশ গণম্যাধ্যমের বাংলা বিভাগ।
জানা গেছে, প্রতিদিন বিবিসি বাংলা রেডিওতে চারটি অনুষ্ঠান প্রচার হতো। ১ এপ্রিল থেকে দু’টো অনুষ্ঠান কমিয়ে সকাল ও সন্ধ্যার অনুষ্ঠান দুটো চালু রেখেছে। এদিকে, বিবিসি বাংলার টিভি অনুষ্ঠান প্রবাহ চ্যানেল আইতে সপ্তাহে একদিন প্রচার হতো। কিছুদিন হলো তা দুইদিন প্রচার হচ্ছে। এছাড়া ক্লিক নামে তথ্যপ্রযুক্তিভিত্তিক একটি অনুষ্ঠানও প্রচার হচ্ছে।
সাবির মুস্তাফা জানান, বিবিসি বাংলা বিভাগের ঢাকা অফিসে টিভি ও ডিজিটাল বিভাগের কার্যক্রম বাড়ানোর জন্য সম্প্রতি ৯ জনকে নিয়োগ দেওয়া হয়েছ। লন্ডন অফিসে অতিরিক্ত শিফট চালু করা হয়েছে।
আরও জানা গেল, অনলাইনের কার্যক্রম সম্প্রসারণের পাশাপাশি ফেসবুক, ইউটিউব ও টুইটারে আরও সক্রিয় হয়েছে বিবিসির বাংলা। এরই মধ্যে বিবিসি বাংলার ফেসবুক পেজে ফলোয়ারের সংখ্যা এক কোটি ১৯ লাখ ৬৩ হাজার ১৫৩ জন ছাড়িয়ে গেছে। বর্তমানে দেশের ১০টি শহরে এফএম রেডিওতেও বিবিসি বাংলার অনুষ্ঠান শোনা যাচ্ছে।
আরও পড়ুন-
তৃতীয় বিপিও সামিট ১৫ ও ১৬ এপ্রিল

/টিআর/

লাইভ

টপ