X
সোমবার, ০২ আগস্ট ২০২১, ১৭ শ্রাবণ ১৪২৮

সেকশনস

পুলিশ কেন গণপিটুনির শিকার হয়

আপডেট : ১৫ আগস্ট ২০১৯, ০০:৪৩

গণপিটুনি গুজব ছড়িয়ে গণপিটুনির ঘটনা বেড়ে যাওয়ায়,এর বিরুদ্ধে  নানাবিধ সতর্ক পদক্ষেপ নিতে পুলিশকে নির্দেশ দেওয়া হয়। কিন্তু বিভিন্ন সময়ে পুলিশকেও গণপিটুনির শিকার দেখা গেছে। অধিকারকর্মীরা বলছেন, কখনও কখনও সন্ত্রাসীরা ঢাল হিসেবে জনগনের সামনে ভুল বার্তা দিয়ে পুলিশের ওপর ক্ষিপ্ত করে তোলে। আবার কখনও কখনও খোদ পুলিশই তাদের দায়িত্ব পালন না করায় জনগনের পিটুনির মুখে পড়ে। আর গণপিটুনির অভিজ্ঞতার কারণে তারা সহজে মব এর মুহুর্তে দায়িত্ব পালন করতে চায় না। আর বাহিনীর পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে,আসামী গ্রেফতার করতে গিয়ে পুলিশ কখনও কখনও আক্রমনের শিকার হয়। কোন পরিস্থিতিতেই পুলিশ মবকে এড়িয়ে যায় না।

সংবাদপত্রে প্রকাশিত তথ্যমতে,২০১৮ সালের ২৬ আগস্ট নাটোর সদর উপজেলার ছাতনী ইউনিয়নে এক ইউপি সদস্যের ইন্ধনে এক কৃষককে মাদক ব্যবসায়ী সাজাতে গিয়ে গণপিটুনির শিকার হয়েছে পুলিশের তিন সদস্য ও এক র্সোস। ওইদিন শিবপুর গ্রামের কৃষক আ্ইয়ুব আলীর বাড়িতে মাদক তল্লাশীর নামে তাণ্ডব চালায় সদর থানার এক এএসআই সহ পুলিশের তিন সদস্য। ভুক্তভোগী আইয়ুবের চিৎকারে পুলিশের সঙ্গে থাকা চার সোর্স পালাতে সক্ষম হলেও এলাকাবাসী জড়ো হয়ে তিন পুলিশ সদস্যকে ঘিরে ধরে গণপিটুনি দেয়।

এববছর ১৩ জুন বরিশালে ঘুষ না দেয়ায় মোটরসাইকেল আরোহীকে নগরীর সরকারি সৈয়দ হাতেম আলী কলেজ সংলগ্ন চৌমাথায় মারধর করেছে পুলিশ। এতে উপস্থিত জনতা ক্ষিপ্ত হয়ে ট্রাফিক পুলিশের দুই সদস্যকে পিটুনি দিয়েছে। এ সময় ভুক্তভোগী মোটরসাইকেল চালককে আটকের চেষ্টা করলে পুলিশের একটি টহল গাড়ি ভাঙচুর করা হয়।এধরনের অসংখ্য ঘটনা প্রতিনিয়ত সংবাদ হয়।

আইন ও সালিশ কেন্দ্রের সাবেক নির্বাহী পরিচালক নূর খান বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, গণপিটুনিতে পুলিশ পড়ে কারণ যারা সন্ত্রাসী তারা পুলিশের ওপর ক্ষিপ্ত থাকে, সাধারণ মানুষও পুলিশকে চিনতে না পেরে বা পুলিশের কর্মকাণ্ডে ক্ষুব্ধ হয়ে সুযোগ পেলেই আক্রমণ করে।

আক্রমনের শিকার হওয়ায় মবকে এড়িয়ে যেতে চায় উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, এটা পুলিশের একটা কৌশলই থাকে যে মবের সামনে সবসময় সতর্ক থাকা। যেটা সে নিয়ন্ত্রন করতে পারবে না, বা সে যদি সংখ্যায় কম থাকে তাহলে সে মবকে েএড়িয়ে যায়। মিছিল বা মিটিং যখন ভঙ্গ করতে চায়, পাল্টা মানুষ যদি আক্রমনে যায় তাহলে পুলিশ পিছু হটে এবং এসময় যদি কোন পুলিশ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় তাহলে মব তাদের আক্রমণ করে। পুলিশ যখন নিজেকে িএকা ভাবে বা দেখে তখন তার মধ্যে একধরনের ভীতি কাজ করে।

পুলিশকে জনগন পিটুনি দেয় কেন বিশ্লেষণ করতে গিয়ে মানসিক স্বাস্থ্য ইন্সটিটিউটের অধ্যাপক তাজুল ইসলাম বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, মানুষ যখন তার কাঙ্খিত সেবার পায় না তখন সে প্রতিবাদ করতে চায় এবং সেই প্রতিবাদেরও যখন উপায় থাকে না তখন ভেতরে ক্ষোভ জন্ম নেয় এবং কারোর ওপর প্রকাশের সুযোগ এলে সেটি সহিংস রূপ নেয়। তিনি বলেন, পুলিশের সাথে জনগনের ক্ষমতার দুরত্ব আছে। জনগন যখন মনে করে পুলিশ যথাসাধ্য দায়িত্ব পালন করছে না তখনও সে কোন ব্যবস্থা নেওয়ার জায়গায় নেই বা সঠিক সেবা দাবি করার জায়গা তার জন্য দেওয়া হয়নি। ফলে সে একধরনের সুযোগ খোঁজে যার মাধ্যমে এই না পারার যন্ত্রনা মিটবে।

 পুলিশ কখনোই মব এড়িয়ে যায় না উল্লেখ করে পুলিশ সদর দপ্তরের জনসংযোগ ও গণমাধ্যম শাখার সহকারী মহাপরিদর্শক সোহেল রানা বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন,ঘটনার আকস্মিকতা ও ব্যাপকতার কারনে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে পুলিশকে শুরুতে কিছুটা বেগ পেতে হয়। কিন্তু, যথাসম্ভব দ্রুত সময়ের মধ্যেই পুলিশ পাবলিক অর্ডার ম্যানেজ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে সক্ষম হয়। এ রকম অগনিত উদাহরন রয়েছে।

পুলিশ কেন গনপিটুনির শিকার হয় প্রশ্নে এই কর্মকর্তা আরও বলেন, আসামী গ্রেফতার করতে গিয়ে পুলিশ কখনও কখনও আক্রমনের শিকার হয়। আসামী পক্ষের লোকজন অনেক সময় সংঘবদ্ধ হয়ে আসামী ছিনিয়ে নিতে পুলিশের উপর ঝাপিয়ে পড়ে। এ রকম প্রতিটি ক্ষেত্রেই পুলিশ সর্বোচ্চ পেশাদারিত্ব ও সহনশীলতার সাথে পরিস্থিতি মাকাবিলা করে আসামীকে আইনের আওতায় নিয়ে আসে এবং ঘটনা সংক্রান্তে উপযুক্ত আইনি পদক্ষেপ গ্রহণ করে।

 

 

 

/ইউআই/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

বিধিনিষেধ অবশ্যই থাকতে হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

বিধিনিষেধ অবশ্যই থাকতে হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

হাসপাতালের জন্য ভবন খুঁজছি, পাওয়া যাচ্ছে না: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

হাসপাতালের জন্য ভবন খুঁজছি, পাওয়া যাচ্ছে না: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

মুমূর্ষু মানুষকে রক্তদান একটি মানবিকতা: শিল্পমন্ত্রী

মুমূর্ষু মানুষকে রক্তদান একটি মানবিকতা: শিল্পমন্ত্রী

হাসপাতাল থেকে টিকাকেন্দ্র সরানো হবে: স্বাস্থ্যের ডিজি

হাসপাতাল থেকে টিকাকেন্দ্র সরানো হবে: স্বাস্থ্যের ডিজি

বিধিনিষেধ অবশ্যই থাকতে হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

আপডেট : ০১ আগস্ট ২০২১, ২১:১২

দেশে এখনও করোনার ঊর্ধ্বমুখী অবস্থা চলছে জানিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, আমরা তো এখনও করোনা ফ্রি হইনি। বিধিনিষেধ অবশ্যই থাকতে হবে। বিধিনিষেধের মধ্যেই তা মেনে কাজ করতে হবে।

রবিবার (১ আগস্ট) মহাখালীর বিসিপিএস মিলনায়তনে ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের এমবিবিএস প্রথম বর্ষের ক্লাস উদ্বোধন করে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নে তিনি এ মন্তব্য করেন।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, টিকা কর্মসূচি শুরু করেছি আমরা, এটাও একটা বড় হাতিয়ার করোনার বিরুদ্ধে। টিকা আমরা আগে সেভাবে পাইনি, যার ফলে দিতে পারিনি। এখন প্রত্যেক সপ্তাহে টিকা আসছে। আমরা টিকা দেওয়ার একটা বড় পরিকল্পনা হাতে নিয়েছি।

এ ছাড়া পোশাক কারখানা খুলে দেওয়ায় সংক্রমণ বাড়বে জানিয়ে জাহিদ মালেক বলেন, পোশাক শ্রমিকরা গাদাগাদি করে এসেছে। তিল ধারণের জায়গা ছিল না। এর মাধ্যমে সংক্রমণ বৃদ্ধি পাবে।

তিনি বলেন, আমরা সেটা স্বীকার করি আর না করি, স্বাস্থ্যবিধি ওখানে কোথাও মানা হয়নি। আমরা আশা করবো এ ধরনের অবস্থা ভবিষ্যতে যেন না হয়।

জীবন-জীবিকা অবশ্যই করতে হবে- মন্তব্য করে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, জীবনের জন্য জীবিকা দরকার, আবার জীবিকার জন্য জীবনও তো থাকতে হবে। এই দুইটা ব্যালেন্স আমাদের করতে হয়। সরকারের সবদিকেই সে ব্যালেন্স করে চলতে হয়। কিন্তু ব্যালেন্স সব সময় রাখা যায় না। সবকিছু ভেবেই এগুতে হবে যাতে সংক্রমণ বৃদ্ধি না পায়। কারণ, সংক্রমণ বৃদ্ধি পেলে মৃত্যুর হার বাড়বে।

 

/জেএ/এনএইচ/

সম্পর্কিত

হাসপাতালের জন্য ভবন খুঁজছি, পাওয়া যাচ্ছে না: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

হাসপাতালের জন্য ভবন খুঁজছি, পাওয়া যাচ্ছে না: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

মুমূর্ষু মানুষকে রক্তদান একটি মানবিকতা: শিল্পমন্ত্রী

মুমূর্ষু মানুষকে রক্তদান একটি মানবিকতা: শিল্পমন্ত্রী

হাসপাতাল থেকে টিকাকেন্দ্র সরানো হবে: স্বাস্থ্যের ডিজি

হাসপাতাল থেকে টিকাকেন্দ্র সরানো হবে: স্বাস্থ্যের ডিজি

করোনায় ২৪ ঘণ্টায় বাড়লো মৃত্যু ও শনাক্ত

করোনায় ২৪ ঘণ্টায় বাড়লো মৃত্যু ও শনাক্ত

হাসপাতালের জন্য ভবন খুঁজছি, পাওয়া যাচ্ছে না: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

আপডেট : ০১ আগস্ট ২০২১, ২০:৩২

পোশাক কারখানা খুলে দেওয়ায় সংক্রমণ বাড়বে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। রবিবার (১ আগস্ট) মহাখালীর বিসিপিএস মিলনায়তনে ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের এমবিবিএস প্রথম বর্ষের ক্লাস উদ্বোধন করে সাংবাদিকদের প্রশ্নে তিনি এ মন্তব্য করেন।

জাহিদ মালেক বলেন, তারা গাদাগাদি করে এসেছে। তিল ধারণের জায়গা ছিল না। এর মাধ্যমে সংক্রমণ বৃদ্ধি পাবে।

‘আমরা সেটা স্বীকার করি আর না করি, স্বাস্থ্যবিধি ওখানে কোথাও মানা হয়নি। আমরা আশা করবো এ ধরনের অবস্থা ভবিষ্যতে যেন না হয়’।

সংক্রমণের হার বাড়ছে জানিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, উত্তরবঙ্গে কিছুটা হার কমেছে, আর মধ্যাঞ্চলে এখনও স্থিতিশীল অবস্থা রয়েছে, অর্থাৎ হার কমেনি। আর দক্ষিণাঞ্চলে বাড়ছে। যেমন কুমিল্লা, চট্টগ্রাম, সিলেটে বাড়ছে। সেখানে এখনও বাড়ছে।

শ্রমিকদের কর্মস্থলে ফেরার সুযোগ দিতে সীমিত সময়ের জন্য লঞ্চ চলাচলের অনুমতি দেওয়া হয়েছে। রোববার সকালে মুন্সীগঞ্জের শিমুলিয়া ঘাটে ছিল ঢাকামুখী যাত্রীদের প্রচণ্ড ভিড়।

আমরা সেবা দেওয়ার জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করছি জানিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, যতটুকু বেড বাড়ানো সম্ভব, আমরা বাড়িয়েছি। হাসপাতালের ভেতরে আর একটা বেড ঢোকানোর জায়গা নেই। সে কারণে আমরা নতুন ভবনও খুঁজছি, তবে পাওয়া যাচ্ছে না। এ ছাড়া ভবন পাওয়া গেলেই হবে না, ডাক্তার, নার্স, যন্ত্রপাতিও থাকতে হবে।

আমরা সেটারও চেষ্টা করছি। প্রতিদিন দুইশ’র মতো মানুষ মৃত্যুবরণ করে। প্রায় ১০ হাজারের বেশি মানুষ আক্রান্ত হচ্ছে। করোনায় দৈনিক শনাক্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা জানিয়ে তিনি বলেন, আমরা মৃত্যু-শনাক্ত কমিয়ে আনতে চাই। কিন্তু যদি স্বাস্থ্যবিধি না মানা হয় তাহলে এটা কমবে না।

তবে একইসঙ্গে আমাদের জীবন-জীবিকা অবশ্যই করতে হবে, মন্তব্য করেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, জীবনের জন্য জীবিকা দরকার, আবার জীবিকার জন্য জীবনও তো থাকতে হবে। এই দুইটা ব্যালেন্স আমাদের করতে হয়। সরকারের সবদিকেই সে ব্যালেন্স করে চলতে হয়। কিন্তু ব্যালেন্স সব সময় রাখা যায় না।

জাহিদ মালেক বলেন, বিশ্বের অনেক দেশ খুলে দিয়েছিল আবার বন্ধ করে দিয়েছে। অস্ট্রেলিয়ায় কারফিউ দিয়েছিল। যুক্তরাষ্ট্রে মাস্ক পরার বাধ্যবাধকতা তুলে দিয়েছিল কিন্তু আবার পরতে বলেছে। অনেক জায়গায় রেস্টুরেন্ট খুলে দিয়েছিল, আবার বন্ধ করে দিয়েছে। সব জায়গায় একই অবস্থা। সেজন্য আমাদেরও সাবধানে এগুতে হবে। সবকিছু ভেবেই এগুতে হবে যাতে সংক্রমণ বৃদ্ধি না পায়। কারণ, সংক্রমণ বৃদ্ধি পেলে মৃত্যুর হার বাড়বে।

শিল্পকারখানা খোলায় শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌরুটে মুন্সীগঞ্জের শিমুলিয়া ঘাটে কর্মস্থলে ফেরা দক্ষিণবঙ্গের শ্রমজীবীদের উপচেপড়া ভিড় দেখা গেছে।

বিধিনিষেধ থাকবে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, বিধিনিষেধ থাকতে হবে। আমরা তো এখনও করোনা ফ্রি হইনি। আমাদের দেশে এখনও করোনা ঊর্ধ্বমুখী। বিধিনিষেধ অবশ্যই থাকতে হবে। বিধিনিষেধের মধ্যেই তা মেনে কাজ করতে হবে। টিকা কর্মসূচি শুরু করেছি আমরা, এটাও একটা বড় হাতিয়ার করোনার বিরুদ্ধে। টিকা আমরা আগে সেভাবে পাইনি, যার ফলে দিতে পারিনি। এখন প্রত্যেক সপ্তাহে টিকা আসছে। আমরা টিকা দেওয়ার একটা বড় পরিকল্পনা হাতে নিয়েছি।

 

 

/জেএ/এনএইচ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

বিধিনিষেধ অবশ্যই থাকতে হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

বিধিনিষেধ অবশ্যই থাকতে হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

মুমূর্ষু মানুষকে রক্তদান একটি মানবিকতা: শিল্পমন্ত্রী

মুমূর্ষু মানুষকে রক্তদান একটি মানবিকতা: শিল্পমন্ত্রী

হাসপাতাল থেকে টিকাকেন্দ্র সরানো হবে: স্বাস্থ্যের ডিজি

হাসপাতাল থেকে টিকাকেন্দ্র সরানো হবে: স্বাস্থ্যের ডিজি

করোনায় ২৪ ঘণ্টায় বাড়লো মৃত্যু ও শনাক্ত

করোনায় ২৪ ঘণ্টায় বাড়লো মৃত্যু ও শনাক্ত

মুমূর্ষু মানুষকে রক্তদান একটি মানবিকতা: শিল্পমন্ত্রী

আপডেট : ০১ আগস্ট ২০২১, ১৯:৩২

শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন বলেন, বঙ্গবন্ধুর সারাজীবনের আত্মত্যাগ তখনই সার্থক হবে, যখন আমরা অসহায় মানুষের জন্য কোনও কাজ করতে পারবো। অসহায় ও মুমূর্ষু মানুষের জন্য রক্তদান আমাদের জন্য একটা বড় সুযোগ বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বাস্তবায়নে। অসহায় ও মুমূর্ষু  মানুষকে রক্তদান একটি মানবিকতা। 

রবিবার (১ আগস্ট) একটি বেসরকারি টেলিভিশন কার্যালয়ে আয়োজিত শোকাবহ আগস্ট ২০২১ উপলক্ষে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আত্মত্যাগের স্মরণে স্বেচ্ছা রক্তদান কর্মসূচির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে শিল্পমন্ত্রী এসব কথা বলেন। 

শিল্প মন্ত্রণালয় থেকে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ খবর জানানো হয়েছে। 

অনুষ্ঠানে শিল্পমন্ত্রী বলেন, আগস্ট বাংলাদেশের সকল মানুষের জন্য একটি শোকাবহ মাস। আমি বিশ্বাস করি, শিল্প মন্ত্রণালয়সহ প্রতিটি মন্ত্রণালয় এবং যে সকল প্রচার সংস্থাসমূহ আছেন তারা যদি এ মহৎ উদ্যোগগুলিকে সারা বাংলাদেশের মানুষের কাছে নিয়ে যান, তাতে বঙ্গবন্ধু রক্তের ঋণ কখনও তো শোধ করা যাবে না। তবে মানবতার সেবায় এ রক্তদান কর্মসূচি বিশাল ভূমিকা রাখবে।

 

/এসআই/এনএইচ/

সম্পর্কিত

বিধিনিষেধ অবশ্যই থাকতে হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

বিধিনিষেধ অবশ্যই থাকতে হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

হাসপাতালের জন্য ভবন খুঁজছি, পাওয়া যাচ্ছে না: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

হাসপাতালের জন্য ভবন খুঁজছি, পাওয়া যাচ্ছে না: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

হাসপাতাল থেকে টিকাকেন্দ্র সরানো হবে: স্বাস্থ্যের ডিজি

হাসপাতাল থেকে টিকাকেন্দ্র সরানো হবে: স্বাস্থ্যের ডিজি

করোনায় ২৪ ঘণ্টায় বাড়লো মৃত্যু ও শনাক্ত

করোনায় ২৪ ঘণ্টায় বাড়লো মৃত্যু ও শনাক্ত

হাসপাতাল থেকে টিকাকেন্দ্র সরানো হবে: স্বাস্থ্যের ডিজি

আপডেট : ০১ আগস্ট ২০২১, ২০:১৩

দেশে করোনার টিকাদান কেন্দ্র অচিরেই আরও বাড়ানো হবে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাসার মোহাম্মদ খুরশিদ আলম। তিনি বলেন, ‘আমরা চাচ্ছি হাসপাতাল থেকে টিকাকেন্দ্র বের করে নিয়ে আসতে।’

রবিবার (১ আগস্ট) তিনি  এসব কথা জানান।

প্রসঙ্গত, আগামী ৭ আগস্ট থেকে সারাদেশে টিকাদান কর্মসূচি শুরু হতে যাচ্ছে।

এ প্রসঙ্গে ডিজি বলেন, ‘টিকাদান কেন্দ্র বাড়বে। সিটি করপোরেশন এবং গ্রামের ওয়ার্ড পর্যায়ে যখন টিকা দেওয়া শুরু হবে, তখন টিকা গ্রহীতা অনেক বেড়ে যাবে। আমরা চাচ্ছি  হাসপাতাল থেকে টিকাকেন্দ্র বের করে নিয়ে আসতে।’

হাসপাতালে টিকাদান কেন্দ্র করার কারণ জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমাদের এতদিন ধরে যে বড় ভয় ছিল, টিকা নেওয়ার পর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হয় কিনা, যার জন্য ইমিডিয়েট হাসপাতালের সাপোর্ট লাগবে, কিন্তু আমরা দেখলাম, গত কয়েক মাসে এত এত টিকা দেওয়া দেখলাম, সে রকম মেজর কোনও দুর্ঘটনার সম্মুখীন হইনি।’

ডা. আবুল বাসার মোহাম্মদ খুরশিদ আলম বলেন, ‘সেক্ষেত্রে যদি হাসপাতালগুলোকে ফ্রি না করি, তাহলে প্রতিটি হাসপাতালেই স্বাভাবিক কাজকর্ম ব্যাহত হচ্ছে। হাসপাতালের বাইরে আনলেই টিকাকেন্দ্র বেড়ে যাবে। আর কেন্দ্র বাড়লেই আরও বেশি সংখ্যক মানুষকে টিকার আওতায় আনতে পারবো।’

গ্রামাঞ্চলে স্কুল-কলেজ-কমিউনিটি হেলথ ক্লিনিক আর ঢাকার ভেতরে মেডিক্যাল কলেজগুলোতে কেন্দ্র দিয়ে দিতে চাই জানিয়ে অধ্যাপক খুরশিদ আলম বলেন, ‘হাসপাতাল থেকে টিকাকেন্দ্র কলেজ বিল্ডিংগুলোতে ট্রান্সফার করতে চাচ্ছি। কলেজের জায়গা বড়, শিক্ষার্থীরাও নাই, সেখানে মাল্টিপল বুথ করে টিকা দিতে চাই।’

গ্রামাঞ্চলে টিকাদানের বিষয়ে ইতোমধ্যে মাইক্রোপ্ল্যান হয়ে গেছে, প্রশিক্ষণ চলছে। প্রশিক্ষণ শেষ হলেই আগামী ৭ আগস্ট থেকে টিকা দেওয়া শুরু হবে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘ইউনিয়ন পর্যায়ে সম্প্রসারিত টিকাদান কেন্দ্রে যেভাবে টিকা দেয়, সেভাবেই টিকা দেওয়া হবে।’

সোমবার (২ আগস্ট) থেকে দেশে অ্যাস্ট্রাজেনেকার প্রথম টিকা দেওয়া শুরু হবে। সেক্ষেত্রে যাদের অ্যাস্ট্রাজেনেকার দ্বিতীয় ডোজ দেওয়ার নির্ধারিত তিন মাস অতিবাহিত হয়েছে, কিন্তু এখন দেওয়া হলে কোনও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হতে পারে কিনা প্রশ্নে ডিজি বলেন, ‘বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বারবার বলেছে, অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকার বেলায় গ্যাপটা বেশি হলে অ্যান্টিবডি টাইটার বাড়ে, তার মানে প্রতিরোধ ক্ষমতা বেড়ে যায়।’

সেক্ষেত্রে তিন মাস খুব বেশি গ্যাপ না। আমরা আশা করছি, এতে কোনও ক্ষতি হবে না।’

 

/জেএ/এপিএইচ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

করোনায় ২৪ ঘণ্টায় বাড়লো মৃত্যু ও শনাক্ত

করোনায় ২৪ ঘণ্টায় বাড়লো মৃত্যু ও শনাক্ত

বঙ্গবন্ধুর প্রজ্বলিত স্বাধীনতার দীপশিখা অনন্তকাল ধরে জ্বলবে: তথ্যমন্ত্রী

বঙ্গবন্ধুর প্রজ্বলিত স্বাধীনতার দীপশিখা অনন্তকাল ধরে জ্বলবে: তথ্যমন্ত্রী

করোনায় ২৪ ঘণ্টায় বাড়লো মৃত্যু ও শনাক্ত

আপডেট : ০১ আগস্ট ২০২১, ২০:৩৯

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন আরও ২৩১ জন। শনিবার (৩১ জুলাই) ছিল এ সংখ্যা ২১৮ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন ১৪ হাজার ৮৪৪ জন। গতকাল শনাক্ত হয়েছিলেন ৯ হাজার ৩৬৯ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় মারা যাওয়া ২৩১ জনকে নিয়ে দেশে সরকারি হিসাবে এ পর্যন্ত মোট মারা গেছেন ২০ হাজার ৯১৬ জন। আর নতুন করে ১৪ হাজার ৮৪৪ জনকে নিয়ে এ পর্যন্ত মোট শনাক্ত হয়েছেন ১২ লাখ ৬৪ হাজার ৩২৮ জন।

গত একদিনে করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন ১৫ হাজার ৫৪ জন। আর এখন পর্যন্ত করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন ১০ লাখ ৯৩ হাজার ২৬৬ জন।

 

রবিবার (১ আগস্ট) স্বাস্থ্য অধিদফতর নিয়মিত সংবাদ বুলেটিনে এ তথ্য জানিয়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদফতর জানায়, গত ২৪ ঘণ্টায় করোনার নমুনা সংগৃহীত হয়েছে ৪৮ হাজার ৪৮১টি আর পরীক্ষা হয়েছে ৪৯ হাজার ৫২৯টি। দেশে এখন পর্যন্ত করোনার মোট নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ৭৭ লাখ ৯০ হাজার ৪২৩টি। এরমধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় পরীক্ষা হয়েছে ৫৭ লাখ ৩২ হাজার ১৯৪টি আর বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ২০ লাখ ৫৮ হাজার ২২৯টি।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা রোগী শনাক্তের হার ২৯ দশমিক ৯৭ শতাংশ আর এখন পর্যন্ত ১৬ দশমিক ৪৭ শতাংশ। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৮৬ দশমিক ৪৭ শতাংশ আর মৃত্যুর হার এক দশমিক ৬৫ শতাংশ।

গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া ২৩১ জনের মধ্যে পুরুষ ১৩৯ জন আর নারী ৯২ জন। দেশে এখন পর্যন্ত করোনা আক্রান্ত হয়ে মোট পুরুষ মারা গেলেন ১৪ হাজার ১৪২ জন আর নারী ছয় হাজার ৭৭৪ জন।

২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়াদের মধ্যে ৯১ থেকে ১০০ বছরের মধ্যে রয়েছেন একজন, ৮১ থেকে ৯০ বছরের মধ্যে নয় জন, ৭১ থেকে ৮০ বছরের মধ্যে ৪৫ জন, ৬১ থেকে ৭০ বছরের মধ্যে ৭২ জন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে ৪৬ জন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে ৩৪ জন, ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে ১৯ জন, ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে তিন জন আর ১১ থেকে ২০ বছরের মধ্যে দুই জন।

মারা যাওয়া ২৩১ জনের মধ্যে ঢাকা বিভাগের রয়েছেন ৭৭ জন, চট্টগ্রাম বিভাগের ৫৩ জন, রাজশাহী বিভাগের ১৩ জন, খুলনা বিভাগের ৪৪ জন, বরিশাল বিভাগের ছয় জন, সিলেট বিভাগের নয় জন, রংপুর বিভাগের ১৮ জন আর ময়মনসিংহ বিভাগের ১১ জন।

আর স্বাস্থ্য অধিদফতর জানিয়েছে, ২৩১ জনের মধ্যে সরকারি হাসপাতালে মারা গেছেন ১৬৮ জন, বেসরকারি হাসপাতালে ৪৯ জন, বাড়িতে ১৩ জন। আর হাসপাতালে মৃত অবস্থায় আনা হয়েছে একজনকে।

/জেএ/এপিএইচ/এনএইচ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

হাসপাতাল থেকে টিকাকেন্দ্র সরানো হবে: স্বাস্থ্যের ডিজি

হাসপাতাল থেকে টিকাকেন্দ্র সরানো হবে: স্বাস্থ্যের ডিজি

বঙ্গবন্ধুর প্রজ্বলিত স্বাধীনতার দীপশিখা অনন্তকাল ধরে জ্বলবে: তথ্যমন্ত্রী

বঙ্গবন্ধুর প্রজ্বলিত স্বাধীনতার দীপশিখা অনন্তকাল ধরে জ্বলবে: তথ্যমন্ত্রী

সর্বশেষ

খুলনায় জুনের চেয়ে জুলাইয়ে তিন গুণ বেশি মৃত্যু

খুলনায় জুনের চেয়ে জুলাইয়ে তিন গুণ বেশি মৃত্যু

ট্যাংকারে হামলা নিয়ে ইরান-ইসরায়েল উত্তেজনা

ট্যাংকারে হামলা নিয়ে ইরান-ইসরায়েল উত্তেজনা

পর্নোগ্রাফিতে রাজি না হওয়ায় স্ত্রীকে নির্যাতন, স্বামীর কারাদণ্ড

পর্নোগ্রাফিতে রাজি না হওয়ায় স্ত্রীকে নির্যাতন, স্বামীর কারাদণ্ড

মাইকে ঘোষণা দিয়ে দুই গ্রামবাসীর সংঘর্ষ, আহত অর্ধশতাধিক

মাইকে ঘোষণা দিয়ে দুই গ্রামবাসীর সংঘর্ষ, আহত অর্ধশতাধিক

সিআরবিতে নলকূপ স্থাপন বন্ধে ওয়াসার এমডির কাছে অভিযোগ

সিআরবিতে নলকূপ স্থাপন বন্ধে ওয়াসার এমডির কাছে অভিযোগ

মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় মা-মেয়ে নিহত, গুরুতর আহত ১

মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় মা-মেয়ে নিহত, গুরুতর আহত ১

ফের হামাস প্রধান নির্বাচিত হলেন ইসমাইল হানিয়া

ফের হামাস প্রধান নির্বাচিত হলেন ইসমাইল হানিয়া

ডিএনসিসি করোনা হাসপাতালের ৫০০ বেডে যুক্ত হচ্ছে সেন্ট্রাল অক্সিজেন

ডিএনসিসি করোনা হাসপাতালের ৫০০ বেডে যুক্ত হচ্ছে সেন্ট্রাল অক্সিজেন

ছেলের হাতে বাবা খুন, ২২ ঘণ্টায় আদালতে অভিযোগপত্র

ছেলের হাতে বাবা খুন, ২২ ঘণ্টায় আদালতে অভিযোগপত্র

ভোলার ঢাকাগামী নৌযানে অতিরিক্ত যাত্রী

ভোলার ঢাকাগামী নৌযানে অতিরিক্ত যাত্রী

সেই পিয়াসা আটক 

সেই পিয়াসা আটক 

মানবপাচারবিরোধী ক্যাম্পেইনে মোশাররফ-তিশা

মানবপাচারবিরোধী ক্যাম্পেইনে মোশাররফ-তিশা

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

বিধিনিষেধ অবশ্যই থাকতে হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

বিধিনিষেধ অবশ্যই থাকতে হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

হাসপাতালের জন্য ভবন খুঁজছি, পাওয়া যাচ্ছে না: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

হাসপাতালের জন্য ভবন খুঁজছি, পাওয়া যাচ্ছে না: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

মুমূর্ষু মানুষকে রক্তদান একটি মানবিকতা: শিল্পমন্ত্রী

মুমূর্ষু মানুষকে রক্তদান একটি মানবিকতা: শিল্পমন্ত্রী

হাসপাতাল থেকে টিকাকেন্দ্র সরানো হবে: স্বাস্থ্যের ডিজি

হাসপাতাল থেকে টিকাকেন্দ্র সরানো হবে: স্বাস্থ্যের ডিজি

করোনায় ২৪ ঘণ্টায় বাড়লো মৃত্যু ও শনাক্ত

করোনায় ২৪ ঘণ্টায় বাড়লো মৃত্যু ও শনাক্ত

বঙ্গবন্ধুর প্রজ্বলিত স্বাধীনতার দীপশিখা অনন্তকাল ধরে জ্বলবে: তথ্যমন্ত্রী

বঙ্গবন্ধুর প্রজ্বলিত স্বাধীনতার দীপশিখা অনন্তকাল ধরে জ্বলবে: তথ্যমন্ত্রী

কর্মচারী কল্যাণ বোর্ডের ডিজি হলেন মো. আলি কদর

কর্মচারী কল্যাণ বোর্ডের ডিজি হলেন মো. আলি কদর

‘কনসার্ট ফর বাংলাদেশ’র সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে স্মারক ডাকটিকিট প্রকাশ

‘কনসার্ট ফর বাংলাদেশ’র সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে স্মারক ডাকটিকিট প্রকাশ

বঙ্গবন্ধু হত্যার কুশীলব অনুসন্ধান কমিশনে কারা থাকবেন, খোঁজা হচ্ছে

বঙ্গবন্ধু হত্যার কুশীলব অনুসন্ধান কমিশনে কারা থাকবেন, খোঁজা হচ্ছে

কাল থেকে ঢাকায়, ৭ আগস্ট সারাদেশে অ্যাস্ট্রাজেনেকার দ্বিতীয় ডোজ

কাল থেকে ঢাকায়, ৭ আগস্ট সারাদেশে অ্যাস্ট্রাজেনেকার দ্বিতীয় ডোজ

© 2021 Bangla Tribune