X
বুধবার, ২১ এপ্রিল ২০২১, ৮ বৈশাখ ১৪২৮

সেকশনস

৫০ বছর ধরে বঙ্গবন্ধুতে আপ্লুত জেনারেল ভেতসপ

আপডেট : ০৮ মার্চ ২০২১, ২২:৩৮

গত এক যুগেরও বেশি সময় ধরে ভারতে ভুটানের রাষ্ট্রদূতের ভূমিকা পালন করছেন মেজর জেনারেল ভেতসপ নামগিয়েল। দিল্লির কূটনৈতিক মহলে তিনি অত্যন্ত শ্রদ্ধেয় ও সম্মানিত একজন ব্যক্তিত্ব। ভুটান সেনাবাহিনীর এই সাবেক কর্মকর্তা ও অভিজ্ঞ কূটনীতিবিদ জানাচ্ছেন, গত পঞ্চাশ বছর ধরে তাকে মন্ত্রমুগ্ধ করে রেখেছেন একজন রাষ্ট্রনায়ক– যিনি আর কেউ নন, বাংলাদেশের জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।

উপলক্ষটা ছিল বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণের সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন অনুষ্ঠান। দিল্লিতে বাংলাদেশ দূতাবাস প্রাঙ্গণে এই উপলক্ষে যে বিশেষ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছিল, সেখানেই বিশেষ অতিথি হিসেবে আমন্ত্রিত হয়ে এসেছিলেন অ্যাম্বাসেডর নামগিয়েল। ওই অনুষ্ঠানে ভাষণ দিতে গিয়েই তিনি বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে তার সেই পুরনো স্মৃতি রোমন্থন করেন।

যখন একাত্তরে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ শুরু হচ্ছে, তখন অ্যাম্বাসেডর নামগিয়েল ভারতের দেরাদুনে ইন্ডিয়ান মিলিটারি অ্যাকাডেমিতে সামরিক প্রশিক্ষণ নিচ্ছেন। তরুণ এই সেনা কর্মকর্তা মুক্তিযুদ্ধের প্রতিটা খুঁটিনাটির খবর রাখতেন, ভুটান যখন প্রথম দেশ হিসেবে বাংলাদেশকে কূটনৈতিক স্বীকৃতি দেয় সে দিন তো আনন্দে ফেটে পড়েছিলেন তিনি।

‘৭ মার্চের সেই অবিস্মরণীয় ভাষণের কথাও আমি দেরাদুনে বসেই শুনেছিলাম। তখনই ভাষণটা পুরো শুনতে পারিনি, অনেক পরে শেখ মুজিবের গলায় পুরোটা শুনি আর রোমাঞ্চিত হই’ বাংলাদেশ হাই কমিশনে তার ভাষণে জানান মেজর জেনারেল নামগিয়েল।

‘যুদ্ধে পাকিস্তানের আত্মসমর্পণের পর শেখ মুজিব যখন পাকিস্তানের জেল থেকে মুক্তি পেয়ে লন্ডন হয়ে দিল্লিতে এসে নামলেন, সেই দিনটার কথাও আমার ছবির মতো মনে আছে। সেটা ছিল বাহাত্তরের ১০ই জানুয়ারি।’ ‘আমরা মিলিটারি অ্যাকাডেমির ক্যাডেটরা সবাই মিলে টিভির সামনে বসে গোটা অনুষ্ঠানটা লাইভ দেখছিলাম। দিল্লি এয়ারপোর্টে যখন শেখ মুজিব যখন বিমানের সিঁড়ি বেয়ে নামছেন, তার প্রতিটা দৃপ্ত পদক্ষেপ যেন এখনও চোখের সামনে ভাসে’ —বলেন তিনি।

‘সে দিনই প্রথম দেখা হয়েছিল ইন্দিরা গান্ধী আর শেখ মুজিবের। দূরদর্শনে যিনি ধারাবিবরণী দিচ্ছিলেন, তার কণ্ঠস্বর আবেগে থরথর করে কাঁপছিল, এখনও আমার মনে আছে। আর ছ’ফুটেরও ওপর লম্বা, অত্যন্ত সুপুরুষ শেখ মুজিব প্রথম দেখাতেই যেন সবার মন জয় করে নিয়েছিলেন।’

সে বছরের ডিসেম্বরেই ইন্ডিয়ান মিলিটারি অ্যাকাডেমি থেকে কমিশনড হন ভেতসপ নামগিয়েল। ভুটানে ফিরে গিয়ে রয়্যাল বডিগার্ডসের সদস্য মনোনীত হন তিনি। ১৯৭৪-য়ে যখন ভুটানের চতুর্থ রাজা জিগমে সিংগে ওয়াংচুকের অভিষেক হয়, তখন তিনি নিজের এডিসি হিসাবে বেছে নেন নামগিয়েলকে।

পরবর্তী তিন দশক ধরে ভুটানের রাজা যখন যেখানে রাষ্ট্রীয় সফরে গেছেন, তার এডিসি হিসেবে প্রায় সব সফরেই সঙ্গী ছিলেন ভেতসপ নামগিয়েল। আর এভাবেই চুয়াত্তরের শীতে তার সরাসরি দেখার সুযোগ হয়েছিল বঙ্গবন্ধুকে।

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক বা দূতাবাস স্থাপনের ক্ষেত্রে (স্বীকৃতি নয়) ভুটান ছিল দ্বিতীয় দেশ, ভারতের পরই। সেটা হওয়ার পর আমাদের রাজা যখন ঢাকায় রাষ্ট্রীয় সফরে গেলেন, বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে তার বৈঠকের সময় আমারও উপস্থিত থাকার সৌভাগ্য হয়েছিল। অবশ্যই তার সঙ্গে সরাসরি কথা বলতে পারিনি, তবে তার প্রতিটা কথা মুগ্ধ হয়ে শুনেছিলাম।’

‘এরপর সারাজীবনে বহু রাষ্ট্রপ্রধানকে, বহু দেশনায়ককে কাছ থেকে দেখেছি। কিন্তু ঢাকায় বঙ্গবন্ধুর ব্যক্তিত্ব আজও আমার মনে স্থায়ী ছাপ রেখে গেছে, আজও সেই অভিজ্ঞতা ভুলতে পারিনি। শেখ মুজিবুর রহমান আজ এত বছর পরেও আমায় অভিভূত, আপ্লুত করে রেখেছেন’, জানান অ্যাম্বাসেডর নামগিয়েল।

বাংলাদেশ ও ভুটানের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক ঐতিহাসিকভাবেই মৈত্রী ও সৌহার্দ্যের এক অনন্য নিদর্শন। সেখানে বাংলাদেশের জাতির পিতাকে নিয়ে ভুটানের অভিজ্ঞতম কূটনীতিবিদের এই নস্টালজিক স্মৃতিচারণ নিঃসন্দেহে এক অন্য মাত্রা যোগ করে।

/এমআর/

সর্বশেষ

কাল থেকে নন ব্যাংকিং আর্থিক প্রতিষ্ঠানও খোলা

কাল থেকে নন ব্যাংকিং আর্থিক প্রতিষ্ঠানও খোলা

মহাসড়কে বসবে এক্সেল লোড নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্র

মহাসড়কে বসবে এক্সেল লোড নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্র

হেফাজত নেতাদের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহিতার মামলার দাবি ইনুর

হেফাজত নেতাদের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহিতার মামলার দাবি ইনুর

ক্যান্ডিতে নাজমুল পেলেন ক্যারিয়ারের প্রথম সেঞ্চুরি

ক্যান্ডিতে নাজমুল পেলেন ক্যারিয়ারের প্রথম সেঞ্চুরি

রাশিয়া থেকে আসছে রিঅ্যাক্টর

রাশিয়া থেকে আসছে রিঅ্যাক্টর

বাঁশখালীর ঘটনায় বিচার বিভাগীয় তদন্ত দাবি স্কপ’র

বাঁশখালীর ঘটনায় বিচার বিভাগীয় তদন্ত দাবি স্কপ’র

অভ্যন্তরীণ ফ্লাইট শুরু, ব্যস্ততা বেড়েছে বিমানবন্দরে

অভ্যন্তরীণ ফ্লাইট শুরু, ব্যস্ততা বেড়েছে বিমানবন্দরে

মসজিদ নির্মাণ নিয়ে প্রতিপক্ষের হামলায় নিহত ১

মসজিদ নির্মাণ নিয়ে প্রতিপক্ষের হামলায় নিহত ১

অন্যান্য দেশ থেকেও ভ্যাকসিন আনার উদ্যোগ সরকারের

অন্যান্য দেশ থেকেও ভ্যাকসিন আনার উদ্যোগ সরকারের

বঙ্গবন্ধুকে সম্মান জানালো ফিলিপিন্সের রিজাল যাদুঘর

বঙ্গবন্ধুকে সম্মান জানালো ফিলিপিন্সের রিজাল যাদুঘর

মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের তালিকায় শীর্ষে মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলো

অ্যামনেস্টির প্রতিবেদনমৃত্যুদণ্ড কার্যকরের তালিকায় শীর্ষে মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলো

থাইল্যান্ডে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূতের পরিচয়পত্র পেশ

থাইল্যান্ডে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূতের পরিচয়পত্র পেশ

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মহাসড়কে বসবে এক্সেল লোড নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্র

মহাসড়কে বসবে এক্সেল লোড নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্র

অন্যান্য দেশ থেকেও ভ্যাকসিন আনার উদ্যোগ সরকারের

অন্যান্য দেশ থেকেও ভ্যাকসিন আনার উদ্যোগ সরকারের

থাইল্যান্ডে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূতের পরিচয়পত্র পেশ

থাইল্যান্ডে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূতের পরিচয়পত্র পেশ

জনপ্রতি ফিতরা সর্বনিম্ন ৭০ ও সর্বোচ্চ ২৩১০ টাকা

জনপ্রতি ফিতরা সর্বনিম্ন ৭০ ও সর্বোচ্চ ২৩১০ টাকা

বিআরটিএ’র দালালচক্র ভাঙতে হবে: কাদের

বিআরটিএ’র দালালচক্র ভাঙতে হবে: কাদের

লিপ সার্ভিস না দিয়ে জনগণের পাশে দাঁড়ান: বিএনপিকে কাদের

লিপ সার্ভিস না দিয়ে জনগণের পাশে দাঁড়ান: বিএনপিকে কাদের

ছাড় হয়েছে স্বাস্থ্যকর্মীদের প্রণোদনার টাকা

ছাড় হয়েছে স্বাস্থ্যকর্মীদের প্রণোদনার টাকা

জলবায়ু সম্মেলনে ক্ষতিগ্রস্তদের কথা বলবে বাংলাদেশ

জলবায়ু সম্মেলনে ক্ষতিগ্রস্তদের কথা বলবে বাংলাদেশ

অসহায়দের জন্য সাড়ে ১০ কোটি টাকার অনুদান দিলেন প্রধানমন্ত্রী

অসহায়দের জন্য সাড়ে ১০ কোটি টাকার অনুদান দিলেন প্রধানমন্ত্রী

‘চার শক্তির ওপর নির্ভর করছে মিয়ানমারের ভবিষ্যৎ’

‘চার শক্তির ওপর নির্ভর করছে মিয়ানমারের ভবিষ্যৎ’

Bangla Tribune is one of the most revered online newspapers in Bangladesh, due to its reputation of neutral coverage and incisive analysis.
© 2021 Bangla Tribune