X
শুক্রবার, ২৫ জুন ২০২১, ১১ আষাঢ় ১৪২৮

সেকশনস

হাসপাতাল থেকে করোনা রোগী কীভাবে পালায়, কেন পালায়?

আপডেট : ১৪ মে ২০২১, ২৩:৩৯

যশোর জেনারেল হাসপাতাল থেকে আবারও ভারতফেরত এক করোনা রোগী পালিয়েছেন। গত বৃহস্পতিবার (১৩ মে) নিজেকে রোগীর স্বজন পরিচয় দিয়ে হাসপাতাল থেকে বেরিয়ে যাওয়া এই রোগীকে ফিরিয়ে আনতে অভিযানে নেমেছে পুলিশ। এর আগে গত ২৩ ও ২৪ এপ্রিল এ হাসপাতাল থেকে ভারতফেরত সাতজনসহ মোট ১০ জন করোনা রোগী পালিয়ে যান।

কেন ভারত থেকে আসা এই করোনা রোগীরা পালানোর চেষ্টা করছে জানতে চাইলে রোগী ও রোগীর স্বজনরা বলছেন, হাসপাতালের আচরণে মনে হয় কারাগারে নেওয়া হয়েছে। রোগীরা বড় অপরাধী। শুনেছি এই রোগের চিকিৎসাই নাই। স্বজনদের ছাড়া হাসপাতালে এভাবে রাখা হলে আগেই মরে যাওয়ার ভয় পেয়ে পালানোর চেষ্টা করেন।

হাসপাতালের নিরাপত্তা ব্যবস্থায় কোনও সমস্যা আছে কিনা প্রশ্নে যশোর জেলা সিভিল সার্জন ডা শেখ আবু শাহীন বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, প্রথমবার রোগী পালানোর পর পুলিশ এবং হাসপাতালের পক্ষ থেকে দুই কিংবা তিন স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হয়। এরপরও কেন একই ঘটনা ঘটলো তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

প্রথম দফায় পালিয়ে যাওয়া রোগী ও তাদের স্বজনরা দাবি করেন, তারা কেউ হাসপাতালে ভর্তিই  হননি। আবার কেউ বলেন, হাসপাতাল থেকেই কোনও সহকারী তাদের বলেছে, ‘চলে যেতে চাইলে চলে যেতে পারেন’। এক পরিবারে কোভিড উপসর্গ থাকলেও তারা হাসপাতালে নানা শঙ্কায় থাকতে চাননি বলে না বলে চলে গেছেন।

বৃহস্পতিবারের ঘটনায় যশোর জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার ডা. আরিফ আহমেদ হাসপাতাল থেকে করোনা রোগী পালানোর কথা স্বীকার করে বলেন, বিকাল সোয়া ৫টার দিকে মোবাইল ফোনে কথা বলতে বলতে ওই রোগী বের হয়ে যান। সেখানে দায়িত্বরত পুলিশ জিজ্ঞেস করলে তিনি রোগী পরিচয় গোপন করে নিজেকে রোগীর স্বজন দাবি করে চলে যান।

নিরাপত্তা ব্যবস্থা কী এতই শিথিল যে করোনা রোগী বের হয়ে গেলেও টের পাওয়া যায় না প্রশ্নে স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিচালক ( হাসপাতাল ও ক্লিনিকসমূহ) ডা. ফরিদ হোসেন মিয়া বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, যশোরের লোকাল প্রশাসন এর ব্যবস্থা নিচ্ছে। রোগীকে ফেরত আনার চেষ্টা করা হচ্ছে। তার কন্টাক্ট ট্রেসিং এর চেষ্টা করা হবে। আমরা হাসপাতালকে বলেছি ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য। আমাদের নিরাপত্তা ব্যবস্থায় গাফিলতি থাকলে সে বিষয়েও ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এদিকে যশোর জেলা সিভিল সার্জন ডা শেখ আবু শাহীন বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, রোগীকে ধরার চেষ্টা চলছে, এটা দেখছে স্থানীয় পুলিশ প্রশাসন। রোগীর বিষয়ে তারা এখনও আমাদের কিছু জানায়নি। তার মানে তাকে এখনও পাওয়া যায়নি। কিন্তু হাসপাতালের নিরাপত্তা ব্যবস্থার গাফলতির কারণেই বারবার রোগী পালাচ্ছে কিনা বা এই বিষয়ে কোনও পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এর আগে রোগী পালানোর পর পুলিশ এবং হাসপাতালের পক্ষ থেকে দুই কিংবা তিন স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হয়। তারপরও এই রোগী পালিয়েছে। জেলা প্রশাসন,  আইনশৃঙ্খলা বাহিনীসহ সংশ্লিষ্টদের নিয়ে বৈঠক করে আমরা করণীয় নির্ধারণ করবো।

/ইউআই/এমআর/

সম্পর্কিত

দাঁড়ানো ট্রাকের পেছনে মোটরসাইকেলের ধাক্কায় ২ আনসার সদস্য নিহত

দাঁড়ানো ট্রাকের পেছনে মোটরসাইকেলের ধাক্কায় ২ আনসার সদস্য নিহত

টিকা নেওয়া মানুষেরা ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত হচ্ছেন: ইসরায়েল

টিকা নেওয়া মানুষেরা ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত হচ্ছেন: ইসরায়েল

করোনা নিয়ন্ত্রণে গোঁজামিল

করোনা নিয়ন্ত্রণে গোঁজামিল

কাজের কথা বলে পাচারের চেষ্টা, নিয়ে নেওয়া হতো কিডনি

কাজের কথা বলে পাচারের চেষ্টা, নিয়ে নেওয়া হতো কিডনি

ঢাকায় চার দিনেই ১০৭ শতাংশ বেড়েছে করোনা শনাক্ত 

ঢাকায় চার দিনেই ১০৭ শতাংশ বেড়েছে করোনা শনাক্ত 

বেসরকারি পর্যায়ে অ্যান্টিজেন পরীক্ষার অনুমোদন দিচ্ছে সরকার

বেসরকারি পর্যায়ে অ্যান্টিজেন পরীক্ষার অনুমোদন দিচ্ছে সরকার

মৃত্যুর পর করোনা ইউনিটের মেঝেতেই লাশ পড়েছিলো ১৪ ঘণ্টা

মৃত্যুর পর করোনা ইউনিটের মেঝেতেই লাশ পড়েছিলো ১৪ ঘণ্টা

করোনা আক্রান্ত ব্যক্তিকে আমবাগান থেকে স্ত্রীসহ উদ্ধার করলো পুলিশ

করোনা আক্রান্ত ব্যক্তিকে আমবাগান থেকে স্ত্রীসহ উদ্ধার করলো পুলিশ

কোভিশিল্ডের টিকা এক কোটি ১ লাখ ডোজ শেষ

কোভিশিল্ডের টিকা এক কোটি ১ লাখ ডোজ শেষ

খুলনায় টানা ৩ দিন সর্বাধিক মৃত্যু

খুলনায় টানা ৩ দিন সর্বাধিক মৃত্যু

খুলনা বিভাগে ২৪ ঘণ্টায় করোনা কেড়ে নিলো ২০ প্রাণ

খুলনা বিভাগে ২৪ ঘণ্টায় করোনা কেড়ে নিলো ২০ প্রাণ

বাবার চেয়ে ছেলে ২১ বছরের বড়!

বাবার চেয়ে ছেলে ২১ বছরের বড়!

সর্বশেষ

টানা ৪ দিন ধরে খুলনা বিভাগে মৃতের সংখ্যা বেশি

টানা ৪ দিন ধরে খুলনা বিভাগে মৃতের সংখ্যা বেশি

তিব্বতে প্রথম বুলেট ট্রেন চালু করলো চীন

তিব্বতে প্রথম বুলেট ট্রেন চালু করলো চীন

২০ কোটি টাকার জাল স্ট্যাম্পসহ গ্রেফতার ৪ জন রিমান্ডে

২০ কোটি টাকার জাল স্ট্যাম্পসহ গ্রেফতার ৪ জন রিমান্ডে

ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নকেই পাচ্ছে না উইম্বলডন

ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নকেই পাচ্ছে না উইম্বলডন

‌‘মা-বাবা বৃদ্ধাশ্রমে, রাস্তায় আপনার লাশ, এমন উন্নয়ন চাই না’

‌‘মা-বাবা বৃদ্ধাশ্রমে, রাস্তায় আপনার লাশ, এমন উন্নয়ন চাই না’

মানিকগঞ্জ থেকে ঢাকা: মোটরসাইকেলে ১০০০, কারে ৫০০ টাকা

মানিকগঞ্জ থেকে ঢাকা: মোটরসাইকেলে ১০০০, কারে ৫০০ টাকা

স্বচ্ছ যুব নেতৃত্ব তৈরিতে কাজ করছি: নিখিল

স্বচ্ছ যুব নেতৃত্ব তৈরিতে কাজ করছি: নিখিল

মাওলানা ভাসানী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসির বিরুদ্ধে স্বেচ্ছাচারিতার অভিযোগ

মাওলানা ভাসানী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসির বিরুদ্ধে স্বেচ্ছাচারিতার অভিযোগ

অ্যাপ থেকে ১৬ প্রেক্ষাগৃহে উঠলেন শাকিব খান

অ্যাপ থেকে ১৬ প্রেক্ষাগৃহে উঠলেন শাকিব খান

বাবা হওয়ার পর কতটা বদলেছেন এড শিরান?

বাবা হওয়ার পর কতটা বদলেছেন এড শিরান?

বেলারুশের সেই সাংবাদিক এখন গৃহবন্দি

বেলারুশের সেই সাংবাদিক এখন গৃহবন্দি

দাঁড়ানো ট্রাকের পেছনে মোটরসাইকেলের ধাক্কায় ২ আনসার সদস্য নিহত

দাঁড়ানো ট্রাকের পেছনে মোটরসাইকেলের ধাক্কায় ২ আনসার সদস্য নিহত

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

দোহার ও নবাবগঞ্জের সঙ্গে সব যোগাযোগ বন্ধ থাকবে

দোহার ও নবাবগঞ্জের সঙ্গে সব যোগাযোগ বন্ধ থাকবে

‘সীমান্তবর্তী দেশ থেকে এলে ১৪ দিনের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিন আবশ্যক’

‘সীমান্তবর্তী দেশ থেকে এলে ১৪ দিনের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিন আবশ্যক’

আইসিডিডিআরবি,র গবেষণা পুরো দেশের চিত্র নয়: স্বাস্থ্য অধিদফতর

আইসিডিডিআরবি,র গবেষণা পুরো দেশের চিত্র নয়: স্বাস্থ্য অধিদফতর

বাড়ছে করোনা: গেম চেঞ্জার কী?

বাড়ছে করোনা: গেম চেঞ্জার কী?

আগের যে কোনও বিপর্যয়কে ছাড়িয়ে যাওয়ার শঙ্কা

আগের যে কোনও বিপর্যয়কে ছাড়িয়ে যাওয়ার শঙ্কা

‘কোভিশিল্ড’ আছে মাত্র একলাখ

‘কোভিশিল্ড’ আছে মাত্র একলাখ

‘কোভিশিল্ড’ আছে ১ লাখ ৯ হাজার

‘কোভিশিল্ড’ আছে ১ লাখ ৯ হাজার

ঢাকা বিভাগের ৩ জেলায় বেড়েছে সংক্রমণ

ঢাকা বিভাগের ৩ জেলায় বেড়েছে সংক্রমণ

ঢাকার দুই ওয়ার্ডে এডিস মশার লার্ভা বেশি: স্বাস্থ্য অধিদফতর

ঢাকার দুই ওয়ার্ডে এডিস মশার লার্ভা বেশি: স্বাস্থ্য অধিদফতর

সোমবার থেকে ৩ কেন্দ্রে দেওয়া হবে ফাইজারের টিকা

সোমবার থেকে ৩ কেন্দ্রে দেওয়া হবে ফাইজারের টিকা

© 2021 Bangla Tribune